বুধবার, ০৯ মে ২০১৮ ১০:০৫ ঘণ্টা

সিলেট জমিয়তের একাল-সেকাল

Share Button

সিলেট জমিয়তের একাল-সেকাল

 

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:: ‘জমিয়তে উলামা” শতাব্দীপ্রাচীন একটি ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। উপমহাদেশের হক্কানী আলেমগনের নেতৃত্বাধীন একক সংগঠন। বৃট্রিশ বিরোধী আন্দোলন এবং দারুল উলুম দেবন্দের সাথে যার আত্মিক সর্ম্পক। সিলেটকে বলা হয় জমিয়তের রাজধানী। কারণ শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র) এর স্মৃতিবিজড়িত সিলেট অঞ্চল থেকেই বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের আহবান বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িযে পড়ে। সিলেটের নয়াসড়ক (১৯২৩) খেলাফত বিল্ডিং ছিলো মাদানী (র) এর আন্দোলনের কেন্দ্র। আর নয়া সড়ক মসজিদ ছিলো আধ্যাত্মিকতার কেন্দ্রভূমি। ১৯৩৭ খৃস্টাব্দ। মুসলিমদের রাজনৈতিক আশ্রয় হয়তো জামিয়ত অথবা মুসলিমলীগ। অধিকাংশ হকপন্থী আলেম তখন জমিয়তের পতাকাতলে সমবেত। শায়খুল আরব ওয়াল আজম শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানী রাহ. জমিয়তের আমীর। আয়োজন হয় নিখিল ভারত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের। মাদানী রাহ. শর্তসাপেক্ষে মুসলিমলীগের সাথে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের নির্বাচনী ঐক্য ঘোষণা করেন। সাথে সাথে নির্বাচনী প্রচারণার কাজে স্বতস্ফুর্তভাবে অংশ নেন। এই কাজে সমগ্র ভারতবর্ষ সফর করেন। একপর্যায়ে তিনি বিশ্বনাথে আয়োজিত বিশাল নির্বাচনী জনসভায় তাশরীফ আনেন। কিশোর আশরাফ আলী (মাওলানা আশরাফ আলী শায়খে বিশ্বনাথী)। স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে সে সম্মেলনে সক্রিয়ভাবে উপস্থিত ছিলেন। ১৯৪৪ সালে যখন বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন প্রচণ্ডভাবে ইংরেজদের গায়ে আঘাত হানে, তখন রানাপিং মাদরাসার ছাত্রত্বাবস্থায় তিনি এ আন্দোলনে সর্বোতভাবে অংশগ্রহণ করেন। বিশ্বনাথী নিজে বলেন-চারখাই নিবাসী মাওলানা মছদ্দর আলী রাহ.’র নেতৃত্বে সিলেট কুদরত উল্লাহ জামে মসজিদ থেকে যে শোভাযাত্রা বের হয়েছিলো, তাতেও আমি অংশগ্রহণ করেছিলাম।’ ১৯৪৬ সালে অনুষ্ঠিত প্রাদেশিক সংসদ নির্বাচনে জমিয়ত উলামায়ে হিন্দ স্বয়ংসম্পূর্ণভাবে অংশগ্রহণ করে। প্রায় প্রতিটি আসনে নিজস্ব প্রার্থী দাঁড় করায়। মুসলিমলীগ ও কংগ্রেস নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলো। সিলেটের প্রায় প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় জমিয়তের প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এর অংশ হিসেবে প্রার্থী ছিলেন মদন মোহন কলেজের প্রফেসর বিশ্বনাথ থানার নাচুনী নিবাসী মৌলভী শায়খ সুলাইমান খান রাহ. শায়খে বিশ্বনাথী এই নির্বাচনে কার্যক্রমেও সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। রানাপিং থেকে তখন শায়খে বিশ্বনাথীকে ও বাঘা থেকে মাওলানা আবদুুর রশীদ সিরামিসিকে পাঠানো হয় বিশ্বনাথে নির্বাচনী প্রচারনার জন্য। নিজ দায়িত্বে বিশ্বনাথ বাজারে তিনি কার্যালয় স্থাপন করে কর্মকাণ্ড চালিয়ে কষ্ট মুজাহাদার সাথে বিশ্বনাথে প্রায় প্রতিটি গ্রাম চষে বেড়ান। ১৯৪৭ সালের ভারত বিভক্তির সময় শায়খে বিশ্বনাথী মাদানী রাহ.’র জাতীয়বাদের প্রবক্তা ছিলেন। যুবক শায়খে বিশ্বনাথী এই আন্দোলনেও সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। অবশেষে খণ্ডিত হয়ে যায় ভারত। বঙ্গদেশ পড়ে পাকিস্তানের আওতায়। নাম হয় পূর্বপাকিস্তান। সিলেট অঞ্চল নিয়ে শুরু হয় লড়াই। কেউ বলেন যাবে পূর্ব পাকিস্তানে, কেউ বলেন সংযুক্ত হবে আসামের সাথে। আয়োজন হয় রেফারেন্ডামের। শায়খে বিশ্বনাথী গণভোটের জোয়ার জমিয়ত মুখী করতে নামেন আবার আন্দোলনে এই তরুণ ছাত্রনেতা রানাপিং থেকে বিশ্বনাথ অঞ্চলের বেশ কয়েকজন ছাত্র ও রামসুন্দর উচ্চ বিদ্যালয়ের তৎকালীন নবম শ্রেণীর ছাত্র (পরবর্তী কালের নন্দিত শিক্ষক ও রামসুন্দর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, তাতিকোনা জাগরণ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ) তজম্মুল আলীকে সাথে নিয়ে সিলেট থেকে নৌকাযোগে বিশ্বনাথ এসে প্রচার কাজ চালান। পথিমধ্যে টুকের বাজারে তারা হামলার শিকার হন।

১৯২১ সালে মাওলানা মাদানী মৌলভীবাজারে কন্ফারেন্স করেন। পরে ১৯২৩ সালে মরকজি মাদরাসা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের কার্যক্রম জোর দার হয় অত্রঅঞ্চলে। দেশ বিভাগের পরে নানা কারনে আন্দোলন স্থিমিত হয়ে যায় সিলেটে। পুর্বপাকিস্তান তথা সিলেটে জমিয়তের কার্যক্রমকে নতুন করে প্রতিষ্ঠা করেন মাওলানা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র)। এজন্যই তাকে বাংলায় ’বাবায়ে জমিয়ত’ বলা হয়। ক্বাঈদুল উলামা হযরতুল আল্লামা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া (র) প্রমুখের পরামর্শে তিনি জমিয়তকে পূন:প্রতিষ্ঠা করেন। এখানে সংক্ষিপ্ত ভাবে তুলে ধরা হলো:

পাকিস্তান আমলে তৎকালীন সিলেটের ঊলামা-মাশায়েখের পরার্মশে মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীর (র:) আহবানে সিলেটের হাওয়া পাড়া মসজিদে ১৯৬৪ সালের ১লা নভেম্বর তারিখে এক উলামা ও সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে খলিফায়ে মদনী হযরত মাওলানা বশির আহমদ শায়খে বাঘা (র.)কে পৃষ্টপোষক, মাওলানা রিয়াসত আলী রানাপিংগীকে সভাপতি, মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িকে সহ সভাপতি, মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথীকে সাধারণ সম্পাদক এবং মাওলানা শামসুল ইসলাম শেরপুরীকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে সর্বপ্রথম সিলেট জেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম গঠন করা হয়। হাওয়া পাড়া মসজিদের ইমাম মাওলানা মাহমুদ আলী (প্রিন্সিপাল মাওলানা হাবিবুর রহমানের পিতা) ও মুতাওয়াল্লী গুলজার মিয়ার ব্যবস্থাপনায় সেদিন জমিয়তের কমিটি গঠন করা হয়। ১৯৬৫ সালের মার্চে সিলেটে মরহুম সুলেমান খানের বাসভবনে মজলিসে শুরার বৈঠক হয়। এর পরে ২০ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৬ রানাপিং মাদরাসায় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ২০ মার্চ সিলেটের ঢাকা দক্ষিণ হাই¯কুল মাঠে কন্ফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়। উক্তকন্ফারেন্স সফলে মাওলানা বশির উদ্দীন শায়খে কুলাউড়কে সভাপতি, মাওলানা শামসুল ইসলাম শেরপুরীকে নাযিম,মাওলানা আব্দুর রহিমকে নায়বে নাযিম ও মাওলানা মুফাজ্জল আলীকে খাযিন করে ১৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। তখনকার সময়ে দফতর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন সৈয়দপুরের মাওলানা সৈয়দ আব্দুন নূর সাহেব (ইউকে জমিয়তের সেক্রেটারী সৈয়দ তামিম আহমদের পিতা)। এসব আন্দোলন সংগ্রামে ডাক্তার মুর্তাজা চৌধুরী সর্বাত্মক সহযোগিতা করতেন। বর্তমান কালে যেমনটি করছেন, লেচুবাগানের বিশিষ্ট দানবীর আলহাজ্ব নাদির খান। ১৯৬৮ সালের ২৫ এপ্রিল জামিয়া কাসিমুল উলুম সিলেট দরগাহ মাদরাসায় জমিয়তের মজলিসে আমেলা অনুষ্ঠিত হয়। ১লা মে লাহুর অধিবেশনে সিলেট থেকে ১২ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল যোগদান করে। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান মহাসচিব থাকা অবস্থায় ১৯৭৮ সালের ১৯,২০ ও ২১ মার্চ সিলেট রেজিষ্ট্রারী মাঠে ঐতিহাসিক সীরাতুন্নবী (সা.) সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে পীর মুহসিন উদ্দীন দদু মিয়া, মাওলানা আরফি রব্বানী,মাওলানা বুরহান উদ্দীন, মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
আইয়ূবখানের পতনের পর ১৯৭০ সালে ইয়াহিয়া খান সাধারণ নির্বাচন দেন। জমিয়ত নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে। উক্ত নির্বাচনে ইসলামী দলগুলোর মধ্যে জমিয়তই কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের অধিক সংখ্যক আসন লাভ করে। জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মুফতী মাহমুদ সীমান্ত প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বপ্রাপ্ত হন।
এদিকে, সিলেট-৭, কানাইঘাট আসনে ১৯৬২ সালে প্রথমে (চেয়ার প্রতীকে) পার্লামেন্ট নির্বাচনে অংশ নিয়ে সদস্য নির্বাচিত হন আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী। ১৯৬৫ সালে মুসলিম লীগের মনোনয়নে পাকিস্তানের পার্লামেন্ট নির্বাচনে গোলাপফুল প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। সর্বশেষ ১৯৭০ সালে (১২ ডিসেম্বর এর নির্বাচনে) সদরে জমিয়ত হযরত শায়খে কৌড়িয়াসহ প্রমুখ বুর্যুগানে দ্বীনের অনুরোধে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মনোনয়নে (খেজুরগাছ) নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। অবশ্য তখন আ;লীগ প্রার্থী এডভোকেট আব্দুর রহিম নির্বাচিত হন।
এছাড়া সিলেট-১ আসনে মাওলানা মুখলিসুর রহমান,সিলেট-২ আসনে মাওলানা রশীদুল হাসান,সিলেট-৩ আসনে মাওলানা শরফুদ্দীন,সিলেট-৪ আসনে মাওলানা বশীরুদ্দীন, সিলেট-৬ আসনে মাওলানা নূর উদ্দীন গহরপুরী, সিলেট-৮ আসনে পিপি মুবারক, সিলেট-৯ আসনে মাওলানা মাহমুদ মনির গাতি, সিলেট-১১ আসনে মাওলানা আমীনউদ্দীন শায়খে কাতিয়া প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। (সুত্র: বিশিষ্ট পার্লামেন্টারিয়ান আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রহ/ আতাউর রহমান কোম্পানীগঞ্জী)

১৯৭০ সালের নির্বাচনের পরে শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর না করার অনিবার্য পরিণতিতে স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হয়। দীর্ঘ ৯ মাস সংগ্রামের পর বাংলাদেশ মুক্ত হয়। ১৯৭২ সালে প্রণীত বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী সকল ইসলামী রাজনৈতিক দল বেআইনি ঘোষিত হলে জমিয়ত তার রাজনৈতিক কর্মকান্ডও বন্ধ করে দেয়। স্বাধীনতার পর বন্ধ ঘোষিত মাদরাসা সমূহ খুলে দেবার ব্যাপারে জমিয়ত নেতৃবৃন্দের সাথে শায়খে বিশ্বনাথী (র:)ও গুরুত্বপুর্ন ভূমিকা রাখেন।
স্বাধীন বাংলাদেশে সর্ব প্রথম জানুয়ারি ১৯৭৪ সালে যাত্রাবাড়ী দারুল উলূম মাদানিয়ায় অনুষ্ঠিত এক উলামা সম্মেলনে মাওলানা শ্য়াখ তাজাম্মুল আলী জালালাবাদীকে সভাপতি ও মুফতী আহরারুজ্জামান কে সাধারণ সম্পাদক করে জমিয়তে উলামা বাংলাদেশ গঠন করা হয়। ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত মাওলানা রিয়াসত আলী সভাপতি এবং ৭৭ সাল পর্যন্ত সেক্রেটারী ছিলেন শায়খে বিশ্বনাথী। এর পরে ১৯৭৯ থেকে ৯৪ সাল পর্যন্ত সিলেট জেলা সভাপতি ছিলেন মাওলানা শফিকুল হক আকুনী (র)। ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৮ পর্যন্ত মাওলানা শায়খ আব্দুল্লাহ হরিপুরী,১৯৯৮ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত মাওলানা আলিম উদ্দীন , ২০০৩ থেকে ২০১১ পর্যন্ত মাওলানা হাবিবুল্লাহ ভিতরগ্রামী এবং ২০১১ সাল থেকে বর্তমান (২০১৮ পর্যন্ত) জেলা জমিয়তের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীন। এদিকে, শায়খে বিশ্বনাথী ১৩ বছর সিলেট জেলা জমিয়তের সেক্রেটারীর দায়িত্বপালন করার পরে ১৯৭৭ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত ৫ বছর সেক্রেটারী ছিলেন প্রিন্সিপাল মাওলানা হাবিবুর রহমান। এরপরে ১৯৮১-৮৫ পর্যন্ত মাওলানা নুরুল ইসলাম এল এলবি,১৯৮৫-৯০ পর্যন্ত মাওলানা শফিকুল হক আকুনী, ১৯৯০-৯৪ পর্যন্ত মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী,১৯৯৪-২০০৩ পর্যন্ত মাওলানা জিয়াউদ্দীন ( ৯ মাস ভারপ্রাপ্ত ছিলেন মাওলানা শায়খ আব্দুল খালিক (চাক্তা),২০০৩ থেকে ২০১১ পর্যন্ত মাওলানা আজিজুর রহমান ঘুগারকুলী এবং ২০১১ সাল থেকে তৎকালীন যুব বিষয়ক সম্পাদক শায়খুল হাদীস মাওলানা আতাউর রহমান কোম্পানীগঞ্জীকে জেলা জমিয়তের সেক্রেটারী নির্বাচিত করা হয়। তিনি বর্তমানে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।
১২ মে ২০১৮ সিলেট জেলা জমিয়তের কাউন্সিল। ঐতিহ্যবাহী এই সংগঠনের এবারের কমিটিতে কারা আসছেন? এমন প্রশ্নের জবাব পেতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে। একটি কর্মট তারুন্যদীপ্ত একটি কমিটির প্রত্যাশায়।

এই সংবাদটি 1,050 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com