সোমবার, ০৯ জুলা ২০১৮ ০৮:০৭ ঘণ্টা

উকাব : উম্মাহর অস্তিত্বের পতাকা

Share Button

উকাব : উম্মাহর অস্তিত্বের পতাকা

শাহিদ হাতিমী ::

বাংলাদেশ ও পাকিস্তান প্রসঙ্গ: এই ঝাণ্ডার আদর্শিক পথ দিয়ে ১৯৪৭সালে পাকিস্তান জন্ম নিয়েছিল। এই ঝাণ্ডাবাহী দুই আলেমের নাম শাব্বীর আহমদ ও যুফর আহমদ। পাকিস্তান স্বাধীন হলে পশ্চিম পাকিস্তানে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করলেন মাওলানা শাব্বীর আহমদ উসমানী এবং পূর্ব পাকিস্তানে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করলেন মাওলানা যুফর আহমদ উসমানী। তাঁরা ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা। বলাবাহুল্য তখন বাংলাদেশ নামক কোনো দেশ ছিলো না। আমরা বাঙালী হয়েও দেশ পরিচয়ে ছিলাম পাকিস্তানী। আজ আমরা স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক। অথচ কয়জনে জানি স্বাধীনতার ইতিহাসের ইতিহাস! জানলেও স্বীকার করি কতোটুকু? লাল সবুজের বাংলাদেশ কি এমনি এমনি স্বাধীন হয়ে যায়! আসুন অতীত পাঠে ব্রত হই।

স্বাধীনতার পাঠ পরিক্রমায় একটি গল্প মনে পড়ে গেলো! আল্লামা আব্দুর রহমান কাশগরী। দেওবন্দের এ সুসন্তান প্রথিতযশা এক আলেম। বরিত এক মুহাদ্দিস। মানিত এক মনীষী। মানুষ গড়ার এ কারিগর শিক্ষকতা করতেন ঢাকা আলিয়া মাদরাসায়। পাকবাহিনীর বেহুদা ধাপুটী আচরণ পছন্দ করতেন না। একটি স্বপ্ন দেখলেন। স্বপ্নটা কিছু প্রিয় মানুষের উপস্থিতিতে ছাত্রদের সামনে পেশ করে দিলেন। বললেন স্বাধীনতা ছাড়া পাকদের গ্যাড়াকল থেকে মুক্তি মিলবে না। লড়তে হবে এবং আজাদী অর্জন করতে হবে। শুধু ভাষার জন্য নয়, লড়াই চলুক স্বাধীকারের জন্যও। ডাক দিতে হবে স্বাধীনতারও। এই স্বপ্ন শোনলেন মওলানা ভাসানী। দারুল উলুম দেওবন্দের সন্তান আব্দুল হামিদ খান ভাসানী। তিনি লুফে নিলেন স্বপ্নটি। জানিয়ে দিলেন তাঁর অত্যন্ত বিশ্বস্ত শিষ্য শেখ মুজিবসহ কতিপয় রাজনীতিবীদকে। শেখ মুজিব গুরুর কথা শোনে কিছুদিন ভাবলেন! আল্লামা শামসুল হক ফরিদপুরীর মতামত চাইলেন, দোয়া নিলেন। এটি সম্ভবত ১৯৫০ সালের গল্প! এর আগে আরো কেউ কেউ এ স্বপ্ন দেখলেও তা ছিলো অপ্রকাশিত। (শতবর্ষী এক মুরব্বীর কাছে শোনা এ গল্প)

এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, উকাবে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পতাকাতলে সমবেত দেওবন্দী আলেমরাই এ উপমহাদেশ, এই ভারতবর্ষের স্বাধীনতার স্থপতি! আর আমাদের বাংলাদেশের স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক সুত্রটা ভাষা আন্দোলনের মাধ্য দিয়ে যাত্রা করলেও সর্বাগ্নে আলেমরাই বুঝেছিলেন এদেশকে স্বাধীন করতে হবে। যা উপরের গল্পে প্রতিয়মান। ভাষা আন্দোলন ছিল পূর্ব বাংলার ইতিহাসে একটি সাংস্কৃতিক অান্দোলন যার উদ্দেশ্য ছিল পাকিস্তান রাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় ভাষা হিসেবে “বাংলা ভাষার” স্বীকৃতি অাদায়। পাকিস্তানের সরকারী কর্মকাণ্ডে বাংলা ভাষার ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য এ অান্দোলন পরিচালিত হয়। মুফতি নাদিমুল কামার আহমদ নামের একজন আলেম এই আন্দোলনের সুচনা করেছিলেন। ১৯৪৭ সালে ভারতবর্ষের বিভাজনের মাধ্যমে পাকিস্তান নামক রাষ্ট্র গঠিত হয়; পূর্ব পাকিস্তান এবং পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে ব্যাপক সাংস্কৃতিক, ভৌগোলিক এবং ভাষাগত পার্থক্য ছিল, আছে। এ পার্থক্য পরবর্তীকালে পূর্ব পাকিস্তান ও পশ্চিম পাকিস্তানের রাজনৈতিক জীবনে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করে। এখানে ভাষা আন্দোলন ও তমদ্দুন মজলিসের কথা উল্লেখ করা নৈতিকতার দাবিদার। (মুফতি নাদিমুল কামারের নেতৃত্বের বিষয়টির সত্যায়নে এই লিংক দেখতে পারেন-https://historyofbanglabd.blogspot.com/…/02/blog-post_10.ht…)
“১৯৪৭ সালের ১ সেপ্টেম্বর গঠিত সাংস্কৃতিক সংগঠন “তমদ্দুন মজলিস” ওই বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত ‘পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা বাংলা না উর্দু’ শীর্ষক পুস্তিকার মাধ্যমে এই পটভূমিতেই ভাষা আন্দোলনের সূচনা করে। এই পুস্তিকার লেখক ছিলেন তিনজন— তমদ্দুন মজলিসের প্রতিষ্ঠাতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক আবুল কাসেম, সাহিত্যিক-শিক্ষাবিদ অধ্যাপক কাজী মোতাহার হোসেন ও সাংবাদিক-সাহিত্যিক আবুল মনসুর আহমদ। এদের মধ্যে অধ্যাপক আবুল কাসেমের লেখায় ভাষা আন্দোলনের মূল দাবী এভাবে তুলে ধরা হয় : (১) পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হবে দুটি— বাংলা ও উর্দু। (২) প্রাদেশিক অফিস-আদালতের ভাষা ও শিক্ষার মাধ্যম হবে বাংলা। ১৯৪৮ থেকে ১৯৫১ পর্যন্ত রাষ্ট্রভাষা প্রশ্নে কোনো বড় ঘটনা ঘটেনি। ১৯৪৯ সালে বাংলা হরফ বদলানোর এক চক্রান্ত হলে তমদ্দুন মজলিসসহ বিভিন্ন সংস্থা প্রতিবাদ জানালে সরকার এ প্রশ্নেও পিছটান দিতে বাধ্য হয়। এর পর ১৯৫২ সালে খাজা নাজিমুদ্দিন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঢাকায় এসে ২৭ জানুয়ারি তারিখে পল্টন ময়দানে এক জনসভায় ঘোষণা দেন— উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা। যে নাজিমুদ্দিন ১৯৪৮ সালে বাংলা রাষ্ট্রভাষার দাবী মেনে নিয়ে চুক্তি স্বাক্ষর করেন তাঁর এ ঘোষণা বিশ্বাসঘাতকতা বলে সবার কাছে প্রতিভাত হয়। এই বিশ্বাসঘাতকতার প্রতিবাদেই ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি প্রতিবাদ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত হয়।”

১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি, পাকিস্তান সরকার রাষ্ট্রের একমাত্র জাতীয় ভাষা হিসেবে উর্দুকে ঘোষণা দেয়, ফলে পূর্ব পাকিস্তানের বাংলা ভাষাভাষী জনগণের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। নতুন এ ঘোষণায় সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা বৃদ্ধি পায় এবং গণবিরোধিতার সম্মুখীন হয়ে সরকার সকল ধরণের গণ সমাবেশ ও প্রতিবাদ করাকে বেআইনী ঘোষণা করে। তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা এবং অন্যান্য রাজনৈতিক কর্মীরা এই আইন অমান্য করে এবং ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারী এক বিরাট ট্রাজেডি সংগঠিত হয়! মাসিক মদীনার মরহুম সম্পাদক, বিশ্বনন্দিত ইসলামি চিন্তাবিদ মাওলানা মুহিউদ্দীন খান স্মৃতিচারণ করে বলেছিলেন আমার জানামতে ঢাকা আলিয়া মাদরাসার ছাত্রদের মিছিলটিই ছিলো চোখে পড়ার মতো! ইতিহাসের পাতা থেকে হারিয়ে গেলেও সত্য এটাই যে- ভাষা আন্দোলনে মাদরাসা শিক্ষার্থীরাও কোনো অংশে পিছিয়ে ছিলো না বরং এগিয়ে ছিলো।

ভাষার বিজয় ছিনিয়ে আনার বিনিময়ে আত্মাহুতি দিতে হয়েছে আব্দুস সালাম, আবুল বারাকাত, রফিকুল ইসলাম, আব্দুল জব্বারসহ বেশ ক’জন মেধাবী পৃথিবীকে। ঐদিনে বহু বিক্ষোভকারী ছাত্রদেরকে পুলিশ হত্যা করে। আর ত্যাগের মাধ্যমেই আন্দোলন তার চূড়ান্ত লক্ষে পৌঁছে। এখন আমাদের মাতৃভাষা শুধু দেশিয় ভাষা নয় বরং এটি আন্তর্জাতিক ভাষার সুখ্যাতি লাভ করেছে। প্রতিবছর ২১শে ফেব্রুয়ারী জাতীয় শোক ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস এখন পালন করা হয়। এই যে আমাদের ভাষা বিজিত হলো, যদি আলেমসমাজ উকাবের ছায়ায় সমবেত হয়ে ভারত উপমহাদেশ স্বাধীন না করতেন তবে তো আন্দোলন দিল্লী কা লাড্ডুই থাকতো; কথা বলার সাহসও থাকতো কিনা সন্ধেহময়!!
(অসমাপ্ত)

এই সংবাদটি 1,046 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com