সোমবার, ০৬ আগ ২০১৮ ০৬:০৮ ঘণ্টা

আলোকচিত্রশিল্পী শহিদুল আলম গোয়েন্দা পুলিশের হেফাজতে

Share Button

আলোকচিত্রশিল্পী শহিদুল আলম গোয়েন্দা  পুলিশের হেফাজতে

এনটিভি: খ্যাতনামা আলোকচিত্রশিল্পী শহিদুল আলম এখন গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের হেফাজতে আছেন।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) আবদুল বাতেন এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘শহিদুল আলম গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যদের কাছে আছেন।’

শহিদুলকে কেন নিয়ে আসা হয়েছে—এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পুলিশের এই কর্মকর্তা আর কিছু বলতে চাননি।

সকালে রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে শহিদুল আলমের স্ত্রী নৃবিজ্ঞানী ও অ্যাক্টিভিস্ট রেহনুমা আহমেদ, দৃক ও পাঠশালার কয়েকজন শিক্ষক, ছাত্র ও শহিদুলের শুভানুধ্যায়ীরা রয়েছেন।

গতকাল রোববার রাত পৌনে ১১টার দিকে শহিদুল আলমকে ধানমণ্ডির ৯/এ সড়কের বাসা থেকে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় বলে পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়।

বার্তা সংস্থা ইউএনবির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাতেই এ ঘটনায় ধানমণ্ডি থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন রেহনুমা আহমেদ।

এদিকে ধানমণ্ডি থানার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তারা শহিদুল আলমকে আটক করেনি।

ধানমণ্ডি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মহিদুল ইসলাম জানান, পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হচ্ছে।

এদিকে শহিদুল আলম ও রেহনুমা আহমেদের পারিবারিক বন্ধু সাইদা গুলরুখ বিবিসি বাংলাকে জানান, রাত ১০টার দিকে শহিদুল আলম তাঁর ধানমণ্ডির বাসার চতুর্থ তলার কার্যালয়ে বসে কাজ করছিলেন। স্ত্রী রেহনুমা আহমেদ ছিলেন তৃতীয় তলার একটি বাসায়।

সাইদা গুলরুখ জানান, তিনি নিজেও সেখানে ছিলেন। তিনি বলেন, ‘রাত সাড়ে ১০টার দিকে আমরা হঠাৎ করেই চিৎকার শুনে বেরিয়ে আসার পর বাসার নিরাপত্তাকর্মীরা জানায়, ৩০/৩৫ জন লোক এসে শহিদুল আলমকে তাঁর অফিস কক্ষ থেকে জোর করে নিয়ে গেছে।’

শহিদুল আলমকে তুলে নেওয়ার আগে তাঁরা সিসিটিভি ফুটেজ ও ইন্টারকম ভেঙে ফেলে। সাইদা গুলরুখ আরো বলেন, এরপর সবাই দৌড়ে নিচে নেমে আসতে আসতে শহিদুলকে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। একটি গাড়ির নম্বর টুকে রাখতে পেরেছে দারোয়ান।

এই সংবাদটি 1,052 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com