সোমবার, ১৩ আগ ২০১৮ ০৩:০৮ ঘণ্টা

এরশাদের সঙ্গে কেন জোট করলো খেলাফত মজলিস?

Share Button

এরশাদের সঙ্গে কেন জোট করলো খেলাফত মজলিস?

ওমর ফারুক:

বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির সঙ্গে নির্বাচনী জোট গঠন করেছে শাইখুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক রহ. প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে শনিবার রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনিস্টিটিউট মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে ছয় শর্তের সমঝোতা চুক্তির ভিত্তিতে এ জোটের ঘোষণা দেওয়া হয়।

এসময় বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের আমির প্রিন্সিপাল আল্লামা হাবীবুর রহমান ‘ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য ছয় দফা চুক্তি’ হয়েছে বলে মন্তব্য করেন। হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ বলেন, ‘খেলাফত মজলিস আমার সঙ্গে আসার কারণে আমরা আগামীতে ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারি।’

হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সঙ্গে দলটির জোট ঘোষণার পরই সারা দেশে শুরু হয়েছে আলোচনা ও সমালোচনা। অনেকে একে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখলেও সমালোচনার পাল্লাই ভারি। রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে পড়া একটি দলের সঙ্গে ইসলামি আদর্শের দলটির এমন সিদ্ধান্ত বোদ্ধামহলও ভালো দৃষ্টিতে দেখছেন না। স্বয়ং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিসও এ নির্বাচনী সমঝোতার সঙ্গে একমত নয় বলে জানিয়েছে।

জোট গঠনের বিষয়টি কেন এতটা সমালোচনার দৃষ্টিতে দেখা হচ্ছে, বিষয়টি নিয়ে ফাতেহ২৪ এর পক্ষ থেকে দেশের কয়েকজন ইসলামি রাজনীতি বিশেষজ্ঞের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা এর নানাদিক নিয়ে কথা বলেন।

কেন এত সমালোচনা ?

তারা জানান,বর্তমানে জাতীয় পার্টির যে রাজনৈতিক অবস্থান, সে অবস্থানের কারণেই এই জোট গঠন ইসলামি মহলে আলোচনা ও বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। গত ৪-৫ বছর যাবত জাতীয় পার্টি যে রাজনৈতিক সংযোগ, যোগাযোগ, পরিস্থিতি, অনিশ্চিয়তা তৈরি করেছে, সেটা এ বিতর্কের অন্যতম কারণ। বিশেষত বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গেও রয়েছে তাদের নানা রকম প্রকাশ্য বোঝাপড়া। এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের এরশাদের সঙ্গে জোট গঠন সমালোচনার কারণ হবেই। ভবিষ্যতে এটা তাদের জন্য হতাশার কারণেও পরিণত হতে পারে।

তবে অস্বাভাবিক নয়

তবে বিশেষজ্ঞরা জানান, এ ধরণের জোট গঠনের ঘটনা অস্বাভাবিক কিছু নয় । মালয়েশিয়া ও পাকিস্তান, এ দুটি দেশের সাম্প্রতিক নির্বাচনেও এমন দৃশ্য দেখা গেছে। আদর্শিক দূরত্ব থাকা সত্ত্বেও রাজনৈতিক মেরুকরণের ভিত্তিতে এসব দেশের ইসলামি দলগুলোর মাঝে বিরোধী আদর্শের দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচনে নামার এক ধরণের প্রবণতা তৈরি হয়েছে। এরকম একটা নজীর যেহেতু সামনে এসেছে, ফলে এসব প্রেক্ষাপট থেকে এক ধরণের প্রেরণা তাদের মধ্যে কাজ করতে পারে বলেও মনে করা হচ্ছে। তবে বাংলাদেশের পরিস্থিতিতে এ ধরণের মেরুকরণ, যারা ইসলামি ভোটার বা ইসলামি রাজনীতির সমর্থক, তাদের মাঝে এক ধরণের সংশয় ও অপছন্দের পরিস্থিতিই তৈরি করেছে।

এর কোন নিশ্চিত ভবিষ্যৎ নেই

জোটের মাধ্যমে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস ছয় শর্তের সমঝোতা চুক্তি কতটা বাস্তাবায়ন করতে পারবে এ বিষয়ে তারা বলেন, জাতীয় পার্টির যে চরিত্র বা স্বরূপ দেখা যায়, সে হিসেবে বলা যেতেই পারে, এ ধরণের চুক্তি শেষ পর্যন্ত কোনো ভালো কোনো ফলাফল আনবে না। রাজনৈতিকভাবেও যে লাভের কথা বলা হচ্ছে, যে নির্বাচনে ভালো কিছু আসন পাওয়া যেতে পারে, এটাও সম্ভবত ঘটবে না। কারণ জাতীয় পার্টি এমন অঙ্গিকারাবদ্ধ ও প্রতিশ্রুতি পূরণের কোনো দল নয়। কারণ বর্তমানে তার এসব চরিত্র প্রকাশ হয়েছে। এজন্য এ জোট থেকে ভালো কিছু আসবে, এটা মনে হয় না।

আসবে আরও হতাশাজনক সমঝোতা

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নির্বাচন যতো ঘনিয়ে আসবে ইসলামি রাজনীতিতে এ ধরণের হতাশাজনক আরও কিছু জোট বা সমঝোতার চিত্র প্রকাশ পাবে। এগুলো মূলত ঘটছে ক্ষমতা বা দৃশ্যমান রাজনীতিতে যাওয়ার প্রতিযোগিতাকেন্দ্রিক একটা মনোভাবের কারণে। যদিও এখানে ইসলামি রাজনীতিবিদদের নিজস্ব ব্যাখ্যা থাকতে পারে। তবে সমঝোতার এ প্রকাশ্য দিকগুলো বেশ দৃষ্টিকটু ও হতাশাজনক। এসব ঘটনায় তাদের জনসমর্থন অনেক কমে আসতে পারে।

এই সংবাদটি 1,262 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com