সোমবার, ১৩ আগ ২০১৮ ০৪:০৮ ঘণ্টা

শায়খে বারকোটি (র.)-এর কবর থেকে একটু প্রেমের স্পর্শ

Share Button

শায়খে বারকোটি (র.)-এর কবর থেকে একটু প্রেমের স্পর্শ

সৈয়দ মবনু ::
১২ আগস্ট ২০১৮। গতকাল সকাল এগারোটায় আমি ইংল্যান্ড থেকে ফিরি। আমি ভুলে গিয়েছিলাম আজ শায়খুলহাদিস মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকোটির জানাজা। তিনি ১১ আগষ্ট রাত পৌনে বারোটায় ইন্তেকাল করেন। ১২ আগষ্ট সকালে শায়খুলহাদিস মাওলানা আব্দুশ শহিদ, শায়খে গোলমুকাপনি আমাদের বাসায় আসেন। সাথে ছিলো তাঁর ছেলে নয়াসড়ক জামে মসজিদের ইমাম হাফিজ মাওলানা মুহাম্মদ। শায়খে গোলমুকাপনি হলেন আমার ভাতিজা হাফিজ মাওলানা সৈয়দ শামীম আহমদের শশুড়। এই হিসাবে তিনি হলেন আমার বেয়াই। দরজায় দেখা হতেই শায়েখ বললেন, বেয়াইসাব কেমন আছেন? আমি ভালো বললে, প্রশ্ন করেন, তালইসাব রে দেখতে আইলাম। আমি তাঁকে হাত ধরে বাবার রোমে নিতে নিতে মুহাম্মদ প্রশ্ন করলো, চাচা কি যাবেন জানাজায়? আমি প্রথমে বুঝতে পারিনি কার জানাজা। পরে বুঝতে পারি আজ বাদ আসর জানাজা। শায়খে গোলমকাপনিকে বিদায় দিয়ে আমি আর আমার ছোটভাই সৈয়দ নাসির সিদ্ধান্ত নিলাম জানাজায় যাওয়ার। আমরা বিকাল চারটার দিকে বাসা থেকে বের হই। বারকোট হয়ে আমি ঢাকাদক্ষিন, ভাদেশ্বর ইত্যাদি এলাকায় অনেক গিয়েছি। আজ কেন গোলাপগঞ্জ অতিক্রম করার পর ড্রাইভার যখন কদমরসুলের রাস্তা দিয়ে প্রবেশ করে তখন তাকে বারণ করতে খিয়াল থাকলো না। কিছুপথ অতিক্রমের পর বুঝতে পারি, ভুলপথে যাচ্ছি। গাড়ি ঘুরিয়ে আবার মূল পথে আসি। আমরা কোনমতে জানাজার শেষ অংশে গিয়ে পৌঁছি। জানাজা হয় বারকোট জামেয়া ইসলামিয়া মাদরাসা ময়দানে।
জানাজা শেষে শায়খুলহাদিস মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকোটি (র.) কে দাফন করা হয় তাঁর বাড়িসংলগ্ন এক উঁচু টিলায়, যা তাদের পারিবারিক গোরস্থান। আমি আর আমারভাই সৈয়দ নাসির স্থানীয় এক মুরুব্বির সহযোগিতায় মাত্র তিন-চারজন যখন গুরুস্থানে তখন সেখানে পৌঁছে যাই। কবরের চারপাশে ঘুরে দেখি। খুব সুন্দর কবর হয়েছে। সন্দুক কবর। যারা কবর তৈরি করেছেন তাদের একজন আমাকে চিনেন। বললেন, কবর খুব সুন্দর হয়েছে এবং এমনভাবে হয়েছে যে, লাশ রাখার সাথে সাথে এমনি পশ্চিমমূখি হয়ে যাবে। কিছু সময় পর অনেক মানুষ লাশ নিয়ে পৌঁছেন। ইচ্ছেছিলো আমিও নীচে নেমে লাশ রাখবো। কিন্তু সিদ্ধান্ত হলো তিনজনের বেশি কেউ কবরে নামবেন না। আমি কবরের পারে দাঁড়িয়ে লাশ নীচে দিতে সাহায্য করলাম। কবরে নামলেন হযরতের বড়ছেলে হাফিজ মাওলানা শিব্বির ও তার অন্য দুইভাই। লাশ কবরে রাখা হলো। আমি প্রথমে খন্ড খন্ড কিছু মাঠি দিলাম। লাশকে পশ্চিমমূখি রাখতে এই মাঠি ব্যবহার করা হলো। অতপর বাঁশ বিছানো শুরু হলো। আমরা হাতাহাতি করে বাঁশ দিলাম, নীচে যারা তারা বিছালেন। বাঁশ বিছিয়ে দুজন উঠে গেলেন একেবারে উপরে। নীচে থাকলেন শিব্বির চাচ বিচানোর জন্য। দুটা চাচই আমার হাতে নিলাম তাঁকে দেওয়ার জন্য। আমি যখন চাচ এগিয়ে দিচ্ছি তখন দুজন চোখাচোখি হই। সে চাচ আমার হাত থেকে নিতে নিতে এক হাত এগিয়ে দিলো মুসাফার জন্য। আমার খুব ভাল লাগলো, আমি খুব তুপ্ত হলাম। কারণ, সে আমার কৈশোরের বন্ধু, সে আমার প্রেম। সে তাঁর বাবার কবরে দাঁড়িয়ে আমাকে সেই বন্ধুত্বের সম্মান দিয়েছে।
শায়খুলহাদিস মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকোটি (র.)-এর ৫ ছেলে, ২ মেয়ে। শিব্বির ছেলেদের মধ্যে সবার বড়। বারকোটি হুজুরকে আমি যেদিন থেকে জানি, সেদিন থেকেই চিনি শিব্বিরকে। তিনি দীর্ঘদিন আমাদের গ্রাম সৈয়দপুর মাদরাসার মুহাদ্দিস ছিলেন। তবে তখন গ্রামের সাথে আমার খুব সম্পর্ক ছিলো না। বছরে একবার বাবা-মার সাথে গ্রামে গেলে নানাবাড়ি, মায়ের নানাবাড়ি আর আমাদের বাড়ি পর্যন্তই ছিলো যাওয়া-আসা। বারকোটি হুজুর যখন দরগাহ মাদরাসায় আসেন মুফতি আব্দুল হান্নান (র.) মক্কা শরিফে হজ্ব পালনে গিয়ে ইন্তেকালের পর। তখন খুব পাশাপাশি সময়ে মাওলানা এমদাদুল হক হবিগঞ্জিও এসেছিলেন। এর কিছুদিন পর মাওলানা আব্দুল বাছিত বরকতপুরী (র.) আসেন। তখন আমরা দরগাহ মাদরাসায় পড়ি। শিব্বির তখন হাফেজিতে পড়ে। খুব দ্রুত আমাদের মধ্যে গভীর বন্ধুত্ব হয়ে যায়। সে বয়সে আমার কিছু ছোট হবে। সেই সময়ে আমাদের বন্ধুত্বের অনেক স্মৃতি এখনও আমাকে নাড়িয়ে যায়। সময় অনেক গিয়েছে, দূরত্ব হয়েছে স্থানের, কিন্তু আমার প্রেমের কোন ঘাটতি ঘটেনি। জানিনা, তার মনের কথা। বুকে হাত দিয়ে বলবো না যে, আমরা ছোটবেলা ফার্মের মোরগি ভদ্রলোক ছিলাম। আমাদের চঞ্চলতা দরগাহ মাদরাসা এবং তার আশপাশের মানুষ অনুভব করতো। অনেকবার বিচারেরও মুখোমুখি হয়েছি দুষ্টামির জন্য। তবে আমরা কোনদিন অন্যের অমঙ্গল করেছি বলে মনে হয় না। কারো উপর বিচার দায়ের করার অভ্যাস আমার কোনদিনই ছিলো না।
একবার একটি অপরাধের কারণে, বারকোটি হুজুরের আদালতে আমাকে দাঁড়াতে হলো। সেদিন শিব্বিরও আমার সাথে ছিলো। হুজুর বারবার জানতে চাইলেন আমার সাথে কে ছিলো? আমি বললাম, একা ছিলাম। তিনি বিশ্বাস করতে পারলেন না। আমিও কারো নাম বললাম না। হুজুরের বিচারের পদ্ধতিই ভিন্ন ছিলো। তিনি সঠিক এবং ন্যায়সম্মত বিচার করতে চেষ্টা করতেন। বারকোটি হুজুর জানতেন শিব্বির আর আমি একসাথে চলাফেরা করি। হুজুর থাকতেন মাদরাসার অফিসের পাশাপাশি পূর্ব-পশ্চিমে যে ঘরগুলো সেখানের একটিতে। বাকি একটিতে থাকতেন মাওলানা এমদাদুল হক হবিগঞ্জি এবং একটিতে গঙ্গাজলি হুজুর। সিড়ির নীচে থাকতেন মাওলানা তজম্মুল আলী। শায়খুল হাদিস বারকোটি (র.)-এর কর্মের নিয়ম-নীতি আমি খুব কাছাকাছি থেকে দেখেছি আজাদ দ্বীনি এদারা বোর্ডের পঞ্চাশসালা দস্তারবন্দি সম্মেলনের সময়। তখন যারা মাঠে-ময়দানে কাজ করেছেন তাদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনে তিনিও ছিলেন। হুজুরের কিছু বক্তব্য এখনও আমাকে নাড়িয়ে যায়। তিনি প্রায়ই ছাত্রদের উদ্দেশ্যে উপদেশমূলক বক্তব্যে বলতেন, ‘এমন জাগাত বইও না মাইনসে কয় উঠ, এমন কথা কইও না মাইনসে কয় দুর।’ (এমন স্থানে বস না মানুষ বলে উঠে যাও/ এমন কথা বলো না মানুষ বলে দূর)। কোথাও বসতে কিংবা কথা বলতে গেলে হুজুরের এই কথা সর্বদাই স্মরণ থাকে। পালনের চেষ্টা করি। হুজুরের জীবনের একটি ঘটনা তাঁর সময়ের একজন ছাত্র আমাকে বলেছিলেন, শায়খুলহাদিস বারকোটি যেদিন ছাত্রজীবন শেষে একই মাদরাসায় শিক্ষকতা শুরু করেন তার পূর্বরাতে তিনি মাদরাসার ছাত্রদের মধ্যে তাদেরকে ডাকেন যাদের সাথে তাঁর ইয়ার্কি কিংবা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিলো। তিনি সবাইকে নিয়ে সারারাত আনন্দ-পূর্তি করেন। ফজরের সময় ঘোষণা করেন, আগে আমি ছিলাম ছাত্র, তোমরাও ছিলে ছাত্র, যেভাবে ইচ্ছে কথাবার্তা, আড্ডা-ইয়ার্কি করেছো। আজ থেকে আমি এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক আর তোমরা হলে ছাত্র। আর যেভাবে ইচ্ছে সেভাবে চলেতে পারবে না। আমি কাউকে খাতির করবো না।’ তাঁর সেই সহপাঠির বক্তব্য হলো, এইদিন থেকে শায়খুলহাদিস বারকোটি সম্পূর্ণ পাল্টে গিয়ে অত্যন্ত ব্যক্তিত্ব নিয়ে চলতে থাকেন। তাঁর চলাফেরা, কথা-বার্তায় অত্যন্ত বক্তিত্ববোধ ছিলো। সিরত এবং সুরত, দুটাই তাঁর খুব সুন্দর ছিলো। আল্লাহ তাঁর এই বান্দার কিয়ামতও সুন্দর করেদিন, এই কামনা থাকলো।

এই সংবাদটি 1,334 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com