সোমবার, ১৩ আগ ২০১৮ ০৭:০৮ ঘণ্টা

কওমী স্বীকৃতি নিয়ে শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়া প্রসঙ্গে শাহীনূর পাশা চৌধুরী যা বল্লেন

Share Button

কওমী স্বীকৃতি নিয়ে শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়া প্রসঙ্গে শাহীনূর পাশা চৌধুরী যা বল্লেন

সিলেট রিপোর্ট:
‘কওমী মাদরাসাসমূহের দাওরায়ে হাদিস (তাকমীল)-এর সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি (ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি) সমমান প্রদান আইন, ২০১৮’ খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। আজ (১৩ আগষ্ট)সোমবার রাজধানীর তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। এপ্রসঙ্গে অনেকেই অনেক কথা বলছেন। এবিষয়ে সাবেক এমপি ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী ফেসবুকে এক স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সিলেট রিপোর্ট ডটকম এর পাঠকদের জন্য তা হুবহু তুলে ধরা হলো:
আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিচক্ষণ ও দূরদর্শী। কওমী সনদের স্বীকৃতি দিয়ে প্রকারান্তরে পীর আউলিয়ার এই দেশে কওমী উলামায়ে কেরামের ভীত এদেশের আপামর জনসাধারণের কাছে গ্রহণযোগ্য তা বুঝিয়ে দিলেন। আসলেই তো সর্বশেষ হেফাজতের শাপলাচত্তর চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে গেলো। ২য় বৃহত্তম মুসলিম রাষ্ট্র বাংলাদেশের প্রায় সাড়ে ছয় লক্ষ মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিন এর শতকরা ৯৫ ভাগই কওমী পড়ুয়া। ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের শতকরা ৮৫ ভাগ বাংলাদেশী আলেম হাফেজ কওমীর বারান্দা থেকে ধর্মীয় শিক্ষা নিয়েছেন।
এই উপলব্ধি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী করতে পেরেই শেষতক স্বীকৃতিটা দিয়ে আর কিছু হউক না হোক নির্বাচনের আগ মুহূর্তে চমক সৃষ্টি করলেন।
কথা হলো এই উপলব্ধিটা তো তুলনামূলক ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ও থাকার কথা। ইসলামী দলগুলোর প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠনগুলো জোটে থাকার পরও কেন কওমী সনদের স্বীকৃতি আলোর মুখ দেখলোনা— এই প্রশ্ন আমাদেরে যারা ভালোবাসেন অনেকেরই।
এ প্রসঙ্গে যে কথাটি আলোচনার দাবী রাখে, তা হলো:
১. কওমী সনদের স্বীকৃতি বিগত জোট সরকারের সময়ে হয়েছিল, গেজেটও প্রকাশিত হয়। সময়ের স্বল্পতা এবং কওমী বিদ্বেষী একটি শক্তি জোটের শীর্ষ পর্যায়ে কলকা নেড়ে সফল হয়েছে, রাজনৈতিক ময়দানে বিফল হয়েছে জোট। সফলতার পাল্লা ভারী করলেন কওমী ঘরানার এক সময়ের বিশ্বস্থ প্রতিনিধি মাওলানা ফরিদ মাসউদ সাহেবের মন্ত্র ( সুপারিশ ) গ্রহণকারী বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।
শুভ কামনা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি।
শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি স্বীকৃতি আন্দোলনে মেধা, কৌশল ও কুটনৈতিক ভাবে যিনি সার্বিক সহযোগিতা করে পরপারে চলে গেছেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেমে দ্বীন জমিয়ত নেতা আল্লামা মুহিউদ্দীন খান রহ. কে।
রাজপথের আন্দোলন গরম করে স্বীকৃতি আদায়ের আরো দু’ জন বীর সিপাহসালার দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার খ্যাতনামা শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক রহ. ও বাংলার বরেণ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব আল্লামা ফজলুল হক আমিনী রহ. কে।
শ্রদ্ধার সাথে নেক হায়াত কামনা করছি বাংলার ১৬ কোটি মানুষের আস্তার প্রতীক হেফাজতের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী এবং আল্লামা নূর হোসাইন কাসিমী সাহেবের। যারা আন্দোলনে সরব নেতৃত্ব দিয়ে আমাদের দীর্ঘ প্রতিক্ষিত কওমী স্বীকৃতি আদায়ে সফল হলেন।
আর এ লাইনে প্রশাসন সহ সার্বিক সফলতার অন্যতম দাবীদার বেফাকের অন্যতম কর্ণধার কওমী ঘরানার গর্ব, যিনি স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম মন্ত্রী ও এমপি,শায়খুল হাদীস আল্লামা মুফতী ওয়াক্কাস সাহেবের ও নেক হায়াত কামনা করছি।

এই সংবাদটি 2,662 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com