জাতির ইতিহাসে বেদনাবিধুর কালো দিন

প্রকাশিত: ১০:৩৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৫, ২০১৮

আজ শোকাবহ ১৫ আগস্ট। জাতীয় শোক দিবস। বাঙালি জাতির শোকের দিন। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদতবার্ষিকী। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে সংঘটিত হয়েছিল ইতিহাসের এক কলঙ্কিত অধ্যায়। ৪৩ বছর আগে এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করেছিল ক্ষমতালোভী নরপিশাচ কুচক্রী মহল।

আজ যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদতবার্ষিকী পালনের জন্য সরকারি ও বেসরকারিভাবে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে দেশি-বিদেশি স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির মদদে কিছু সংখ্যক বিপথগামী সৈন্যের হাতে ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট নিহত হন।
ভারতবর্ষের স্বাধীনতা সংগ্রামী নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু বিশ্বাস করতেন, সশস্ত্র যুদ্ধ ছাড়া দেশের স্বাধীনতা অর্জন সম্ভব নয়। ফলে তিনি গড়ে তোলেন বিপ্লবী সংগঠন ‘সর্বভারতীয় ফরোয়ার্ড ব্লক’। তিনি ১৯৪১ খ্রিষ্টাব্দে গোপনে ভারত সীমান্ত অতিক্রম করে আফগানিস্তান ও রাশিয়া হয়ে জার্মানিতে পৌঁছেন। সেখানকার প্রবাসী ভারতীয়দের ভারতের স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র সংগ্রামে উদ্বুদ্ধ করেন। প্রবাসীরাই প্রথমে তাকে নেতাজি উপাধিতে ভূষিত করে। এক সময় জাপানে গিয়ে সেখানকার সরকারের সহায়তায় তিনি ১৯৪৩ খ্রিষ্টাব্দে অস্থায়ী সরকার গঠন করে সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে ভারতবর্ষকে স্বাধীন করতে মুক্তিসংগ্রাম শুরু করেছিলেন। তার আজাদ-হিন্দ ফৌজ পরাস্ত হলেও সুভাষচন্দ্র বসু ইংরেজদের কাছে আত্মসমর্পণ করেননি। তিনি জাপানে ১৯৪৫ খ্রিষ্টাব্দের ১৮ আগস্ট বিমান দুর্ঘটনায় মারা যান। বিদেশের মাটিতে এই বীর বাঙালি প্রাণত্যাগ করলেও ভারতের ইতিহাসে তিনি হয়ে আছেন যুগান্তকারী এক বীর পুরুষ। নেতাজির বীরত্ব, অসীম সাহস, ব্যক্তিত্ব ও সংগ্রামী চেতনা প্রেরণা জুগিয়েছে যুগে যুগে বাঙালি জাতিকে। বঙ্গবন্ধু তার আত্মজীবনীতে লিখেছেন, ‘ইংরেজদের বিরুদ্ধেও আমার মনে বিরূপ ধারণা সৃষ্টি হলো। ইংরেজদের এ দেশে থাকার অধিকার নেই। স্বাধীনতা আনতে হবে। আমিও সুভাষ বাবুর ভক্ত হতে শুরু করলাম।’ ১৯৭২ খ্রিষ্টাব্দে রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে প্রথম ভারত সফরকালে বঙ্গবন্ধু সফরের প্রটোকলের বাইরে গিয়ে নেতাজির ভাস্কর্যে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। নেতাজি বলেছিলেন, ‘তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাদের স্বাধীনতা দেব।’ আর বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ভাষণে বলেছিলেন, ‘রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরও দেব; এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ।’ তিনি লড়াই-সংগ্রামের মাধ্যমে স্বাধীনতা এনে দিয়ে এ দেশের মানুষকে মুক্ত করেছেন।
আগস্ট মাসে আমরা আরও হারিয়েছি শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ, কবি ও দার্শনিক হুমায়ুন কবির, বাংলাদেশের দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী, ভারত উপমহাদেশের বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ মওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ, বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা, আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি শামসুর রাহমান প্রমুখ খ্যাতনামা বাঙালিকে। আগস্ট মাস বাঙালির শোকের মাস। তাই শোকের মাস আগস্টের প্রতি জাতি-ধর্ম-বর্ণ-দল-মত নির্বিশেষে সবারই যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করে থাকেন। আমরা সকলের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি

এই সংবাদটি 117 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com