রবিবার, ০২ সেপ্টে ২০১৮ ১২:০৯ ঘণ্টা

পবিত্র কাবা শরীফের ইমাম ও খতীব শায়খ সালেহ আত তালিবকে মুক্তি দিন : আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

Share Button

পবিত্র কাবা শরীফের ইমাম ও খতীব শায়খ সালেহ আত তালিবকে মুক্তি দিন : আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

সিলেট রিপোর্ট : হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও দারুল উলুম হাটহাজারীর সহকারী মুহতামিম, আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী গ্রেফতারকৃত পবিত্র কাবা শরীফের ইমাম ও খতিব শায়খ সালেহ আত তালিবকে অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তি দেয়ার জন্য সৌদি সরকারের প্রতি জোর দাবী জানিয়ে বলেছেন, যে অজুহাতে তাকে গ্রেফতারের খবর মিডিয়ায় প্রচারিত হয়েছে তা যদি সত্য হয় এটা মুসলিম উম্মাহর জন্য অত্যন্ত দু:খের এবং বেদনার। সংবাদ মাধ্যমে পেরিত এক বিবৃতিতে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন,এভাবে ইসলামের পক্ষে হক্ব কথা বলার কারনে যদি গ্রেপ্তার করা হয়,তাহলে বাতেল অপশক্তি প্রশ্রয় পেয়ে যাবে, এবং সারা পৃথিবীতে জাহান্নামী মুনাফিকদের আড্ডা খানা হয়ে যাবে ।আর এর মাধ্যমে শান্তি শৃংখলার পরিবর্তে অশান্তি ও বিশৃংখলা বেড়েই চলবে । তিনি বলেন, আমরা যতটুকু জেনেছি, কাবার ইমাম তার প্রদত্ব খোতবায় প্রচন্ডভাবে অশ্লীলতা, বেহায়াপনা ও ইসলামী শরীয়তে নিষিদ্ধ বস্তু থেকে বিরত থাকা এবং সামাজিকভাবে বয়কট করার আহবান জানিয়েছেন। তিনি সৌদী জনগণকে বলেছেন, হে মুসলমানগণ! আপনারা মুনাফেক ও বেইমানদের অনুষ্ঠানকে বর্জন করুন, যারা আল্লাহর নাফরমান এবং সমাজে অশ্লীলতা ও বেহায়াপনা চালু করছে তাদেরকে বয়কট করুন। যে কোন ধরণের গোনাহের অনুষ্ঠানকে বর্জন করুন ৷ যারা নারীদেরকে রাস্তায় বের করে, ড্রাইভিং লাইসেন্সের অনুমতি দিয়েছে, নারীদেরকে উলঙ্গপনার দিকে আহবান করে, যারা নারী-পুরুষের অবাদ মেলামেশার দিকে উৎসাহিত করে, যারা নেশাযুক্ত পানীয় পান করা বৈধতা দান করে, তাদেরকে বয়কট করুন। পরিপূর্ণভাবে গান-বাজনা, কমেডি, কৌতুক ও সিনেমার অনুষ্ঠানকে বয়কট করুন ৷ ইমাম আরো বলেছেন, নাচ গান এবং কমেডি নাটক সিনেমার অনুমোদন ইসলামী নীতিতে সম্পূর্ণ হারাম। এসব পবিত্র ভূমির নাগরিদের জন্য লজ্জাজনক এবং মক্কা মদীনাকে লাঞ্চিত করার শামিল। সুতরাং কুরআনের ধারকবাহকগণের কর্তব্য হলো আদর্শের জায়গা থেকে যুদ্ধের মাধ্যমে পশ্চিমা চেতনা, কালচার আমদানিকারকদের পরাজিত করা। আল্লামা বাবুনগরী বলেন, ইমামে হারাম শায়খ সালেহ আত তালেব সময়োপযোগী চেতনাসমৃদ্ধ মুসলিম উম্মাহর প্রতি দিকনির্দেশক খোতবা প্রদান করেছেন। পশ্চিমাদের খুশি করার জন্য কাবার এই সাহসী ইমামকে গ্রেফতার করেছে সৌদী সরকার। তিনি সৌদি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, সকল ক্ষমতাবানদের ক্ষমতার মালিক একমাত্র মহান আল্লাহ। পশ্চিমাদের নয় আল্লাহকে খুশি করুন। ইহুদী, খ্রিস্টানদের সাথে বন্ধুত্ব নয় ইসলামের সৈনিক ওলামায়ে কেরামদের সাথে সুসম্পর্ক কায়েম করুন। গ্রেফতারকৃত ইমামে হারাম শায়খ সালেহ আত তালেবকে দ্রুত মুক্তিদিন।

এই সংবাদটি 1,519 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com