রবিবার, ০২ সেপ্টে ২০১৮ ০৩:০৯ ঘণ্টা

প্রবাসী সহ সিলেট বিভাগে ৬ খুন

Share Button

প্রবাসী সহ সিলেট বিভাগে ৬ খুন

ডেস্ক রিপোর্ট: সিলেটে নগরীতে প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা এবং দেবরের হাতে ভাবি খুন হয়েছেন। এছাড়া হবিগঞ্জে দুই শিশুকে হত্যা করে আত্মহত্যা করেছেন মা ও প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত হয়েছেন আরেকজন।

সিলেট নগরীর প্রাণকেন্দ্র জিন্দবাজারে ছুরিকাঘাতে এক প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা ও বালাগঞ্জে দেবরের ছুরিকাঘাতে ভাবী খুন হয়েছে। গত শুক্রবার রাতে পৃথক হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে। বালাগঞ্জের ঘটনায় নিহতের এক দেবরকে আটক করেছে পুলিশ।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানার ওসি মোশাররফ হোসেন বলেন, গত শুক্রবার রাত ১১টার দিকে নগরীর জিন্দাবাজারের সিটি সেন্টারের সামনে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে কুয়েত আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আবদুল আহাদ নিহত হয়েছেন। নিহত আহাদ মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার করিমপুর মেদিনীমহলের নুর মিয়ার ছেলে।

ওসি আরো বলেন, শুক্রবার রাত ১১টার দিকে জিন্দাবাজারের সিটি সেন্টারের সামনে একদল যুবক তাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে। এতে তার পেট ও শরীরের বিভিন্ন স্থান ক্ষত-বিক্ষত হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বালাগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, বালাগঞ্জ উপজেলার নতুন সুনামপুর গ্রামে দেবরের ছুরিকাঘাতে শামীমা আক্তার (২২) নামে এক গৃহবধূ খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন শিশুসহ আরো দুইজন। গত শুক্রবার রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পারিবারিক কলহের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। দেড়বছর বয়সী এক ছেলের জননী শামীমা একই গ্রামের আমির আলীর স্ত্রী ও উপজেলার গৌরীপুর গ্রামের তুরণ মিয়ার মেয়ে।

জানা গেছে, তার বোন শামীমা পিঠা তৈরি করছিলেন। চাচাতো দেবর মিন্টু ও রুহুল আমিন অতিরিক্ত পিঠা না পেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে শামীমার বুকে ও হাঁটুতে ছুরিকাঘাত করে। এ সময় তাদের বাধা দিতে শামীমার ছোট বোন নাইমা (১০) ও ভগ্নীপতি বারু মিয়া এগিয়ে গেলে তাদেরও ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় তারা। আহতদের উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শামীমাকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত অন্যরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বালাগঞ্জ থানার ওসি জালাল উদ্দিন বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামীর চাচাতো ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে গৃহবধূ শামীমা খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় মিন্টুর ভাই রিপনকে আটক করা হয়েছে।

রাজনগর প্রতিনিধি জানান, নিহত কুয়েত আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সম্পাদক আব্দুল আহাদের গ্রামের বাড়ি রাজনগর উপজেলার মেদিনিমহল গ্রামে দাফন সম্পন্ন হয়েছে। আব্দুল আহাদের হত্যার প্রতিবাদে রাজনগরের মুন্সিবাজারে সড়ক অবরোধ ও মানবন্ধন করেছে স্থানীয় জনতা। গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত মৌলভীবাজারÑফেঞ্চুগঞ্জ সড়কের মুন্সিবাজারে এ অবরোধ মানবন্ধন করা হয়। সন্ত্রাসী হামলায় নিহত আব্দুল আহাদ রাজনগর প্রেসক্লাবের সাবেক সদস্য ছিলেন। গত ঈদুল আযহার পূর্বে ছুটিতে দেশে এসেছিলেন। আব্দুল আহাদের নিহতের ঘটনায় রাজনগর প্রেসক্লাবের সদস্যরা কালো ব্যাজ ধারণ ও শোক সভা করেন। রাজনগর প্রেসক্লাবের সভাপতি আউয়াল কালাম বেগের সভাপতিত্বে আয়োজিত সভায় বক্তব্য রাখেন সহসভাপতি আব্দুল আজিজ, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান সোহেল প্রমুখ।

আব্দুল আহাদের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, কুয়েত প্রবাসী আব্দুল আহাদ (৩৮) বাংলাদেশে থাকাবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন। পাশাপাশি তিনি সাংবাদিকতাও করতেন। জনতার প্রত্যাশা নামক প্রত্রিকার প্রতিনিধি হিসেবে রাজনগর প্রেসক্লাবের সদস্য ছিলেন। এরপর তিনি কুয়েত চলে যান। দীর্ঘদিন কুয়েত থাকায় তিনি আওয়ামীলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। বিগত কাউন্সিসিলে তিনি কুয়েত আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। একই সময়ে কুয়েতে ‘সিলেট লেখক ফোরামের’ সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। নিহতরে স্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, সিলেটে তিনি কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পদক ওবায়দল কাদের অনুষ্ঠানে যোগদিতে সিলেট যান। সিলেটে তিনি আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাতও করেন। নিহতের স্ত্রী জানান, সিলেট যাওয়ার আগে একটি ফোন এসেছিল বিদেশ থেকে। ফোনে বলা হয়েছিল ‘সিলেট যারে যখন বিদায় নিয়ে যাস’। বিষয়টি তিনি গুরুত্ব দেন। শুক্রবার বিকালে সিলেট থেকে বাড়িতে ফেরার কথা ছিল। কিন্তু রাতে সিটের জিন্দাবাজের সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে নিহত হন।

এদিকে স্থানীয় লোকজন ও আওয়ামী লীগ নেতারা আব্দুল আহাদ হত্যার প্রতিবাদে মানবন্ধন করেন। মান্ববন্ধনে ছিলেন, মনসুরনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মিলন বখত, রাজনগর সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেওয়ান খয়রুল মজিদ সালেক, ফতেহপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নকুল চন্দ্র দাস ও মুন্সিবাজার ইউপি চেয়ারম্যান ছালেক মিয়াসহ স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী।

শনিবার বিকালে নিহতের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে রাজনগরের মুন্সিবাজারের বাসায় নিয়েআসা হয়। সন্ধ্যা ৭টায় মুন্সিবাজারে প্রথম জানাযা ও মেদিনিমহল গ্রামের (খরিদপুর) পারিবারিক কবরস্থানে রাত নয়টায় ২য় জানাযা শেষে লাশ দাফন করা হয়।

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, জেলার চুনারুঘাটে গরুর ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের ফিকলের আঘাতে ছুনু মিয়া (৩৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে আটক করেছে।

গতকাল শনিবার বিকাল ৪টায় চুনারুঘাট উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ছুনু মিয়া আলীনগর গ্রামের আশ্বব উল্লার পুত্র।

এলাকাবাসী পুলিশ সূত্র জানায়, উপজেলার আলীনগর গ্রামে ছুনু মিয়ার ধানের জমিতে একই এলাকার আব্দুর রহমানের পুত্র আজিদুল হকের গরু ধান খেতে দেখে বাধা দেয়। এ নিয়ে আজিদুল হক ও ছুনু মিয়ার মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে আব্দুর রহমানের ছোট ভাই জাহিদুল দেশীয় অস্ত্র ফিকল দিয়ে ছুনু মিয়াকে আঘাত করলে তিনি মাটিতে পড়ে যায়। এ সময় ছুনুকে বাচাতে তার মা রাবিয়া খাতুন (৫০) ও তার ছোট ভাই নুর মিয়া (২৫) এগিয়ে আসলে তারাও আহত হন। পরে স্থানীয় লোকজন ছুনু মিয়া ও তার মা-ভাইকে চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেছে কর্তব্যরত চিকিৎসক ছুনু মিয়াকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে চুনারুঘাট থানার ওসি তদন্ত আলী আসরাফের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনার স্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। নিহত ছুনু মিয়ার লাশ হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করা হয়। পরে বিকাল ৫টায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে আজিদুল জাহিদুলসহ পাঁচ জনকে আটক করেন।

এ ব্যাপারে চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম আজমিরুজ্জামান জানান, জমির ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে।

এদিকে, জেলার মাধবপুরে ২ শিশুর দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন ও মায়ের গলায় ফাঁস দেয়া লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে এলাকাবাসী এ ঘটনাকে দুই শিশু সন্তানকে জবাই করে হত্যার পর গলায় ফাঁস দিয়ে মা আত্মহত্যা করেন বলে ধারণা করলেও গৃহবধূর স্বজনরা দাবি করেন তাদের তিন জনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

গত শুক্রবার মধ্যরাতে মাধবপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ তিনটি উদ্ধার করে। নিহতরা হলেন স্থানীয় ব্যবসায়ী মজিবুর রহমান মজিদের স্ত্রী হাদিছা বেগম (২৪), তাদের আড়াই বছর বয়সী মেয়ে মীম আক্তার ও ৭ মাসের শিশু সন্তান মোজাহিদ মিয়া।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের নিজনগর গ্রামে ব্যবসায়ী মজিবুর রহমান মজিদের ঘরে কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে আশপাশের লোকজন ওই ঘরের দিকে এগিয়ে যান। ঘরের দরজা বন্ধ দেখতে পেয়ে ডাকাডাকি করলেও কেউ কোন সাড়া মেলেনি। এক পর্যায়ে তারা উকিঝুকি দিয়ে দেখতে পান মজিবুর রহমান মজিদের ঘরের ভেতর গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় তার স্ত্রী হাদিছা বেগমের লাশ পড়ে রয়েছে। আর খাটে তার আড়াই বছর বয়সী শিশু মিম আক্তারের গলা কাটা লাশ পড়ে রয়েছে। পরে স্থানীয় লোকজন পেছন দিকে গেলে অপর একটি তালাবদ্ধ কক্ষে ৭ মাস বয়সী মোজাহিদ মিয়ারও গলা কাটা লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। এ দৃশ্য দেখে তারা মাধবপুর থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করেন।

এদিকে ঘটনার পর থেকেই মজিবুর রহমান মজিদ পলাতক থাকায় তাকে ঘিরে সন্দেহ তীব্র হচ্ছে। গ্রামের লোকজন বলছেন, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে একাধিবার সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। তাদের মধ্যে বনিবনা হচ্ছিলো না।

হাদিসার বাবা শামীম মিয়া বলেন, আমার মেয়েকে তার সন্তানকে মজিদই হত্যা করে পালিয়ে গেছে। কোনও মায়ের পক্ষে তার সন্তানদের জবাই করে হত্যা করা সম্ভব না।

হাদিসার ভাই দীন ইসলাম বলেন, মজিদ দীর্ঘদিন ধরে আমার বোনকে নির্যাতন করে আসছিল। তবে সন্তানদের কথা চিন্তা করে আমার বোন শত অত্যাচার সহ্য করেছে। কিন্তু এরপরও সে তাদের হত্যা করে পালিয়ে গেছে।

হাদিছার স্বজনরা জানান, ২০১৪ সালে মজিদের সঙ্গে হাদিছা বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না। মজিদের উগ্রমেজাজের কারণে সামান্য বিষয়েই ঝগড়া-ঝাটি লেগেই থাকত। মজিদ প্রায়ই তার স্ত্রীকে মারধোর করত। ৩ দিন আগেও মজিদ তার শাশুড়ির সামনে হাদিছাকে মারধোর করেন। তাদের দাবি, হাদিছা ও তার সন্তানদেরকে মজিদ নির্মমভাবে খুন করেছে।

ধর্মঘর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামসুল ইসলাম কামাল জানান, শুক্রবার রাতে ওই গ্রামের কয়েকজন আমাকে ঘটনাটি জানায়। আমি থানাকে জানাই। তবে কি কারণে এ ঘটনা ঘটছে তা এ মুহূর্তে বলতে পারব না।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার এস এম রাজু আহমেদ জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। তবে কী কারণে হত্যার ঘটনা ঘটেছে পুলিশ গভীরভাবে খতিয়ে দেখছে। তদন্ত শেষেই তাদের মৃত্যুর সঠিক কারণ সম্পর্কে বিস্তারিত বলা যাবে।

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com