বুধবার, ০৫ সেপ্টে ২০১৮ ১১:০৯ ঘণ্টা

তরুণ আলেম আব্দুল হালীম জমিয়তী আর নেই

Share Button

তরুণ আলেম আব্দুল হালীম জমিয়তী আর নেই

সিলেট রিপোর্ট: ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাকালীন কর্মী,মাসিক তৌহিদী পরিক্রমা ও সাপ্তাহিক জমিয়তের র্শীষ পর্যায়ের এজেন্ট তরুণ আলেম মাওলানা আব্দুল হালীম জমিয়তী আর নেই। তিনি গত সোমবার আকস্মিক ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো প্রায় ৩৮ বছর। অত্যন্ত সহজ-সরল, জমিয়তের একনিষ্ট এই কর্মীর মৃত্যুর খবরে সর্বত্র শোকের ছায়া নেমে আসে। প্রথমেতোর মৃত্যুর খবরটিকে অনেকেই গুজব মনে করেছিলেন। কিন্তু সময়ের ধারাপরিক্রমায় সকলেই জেনে গেলেন তিনি আর নেই। চলেগেছেন পরপারে। স্ত্রীকে বিধরা এবং ৪টি সন্তানকে এতিম করে আব্দুল হালিম চলেগেলেন নাফেরার দেশে।
তিনি ‌‌”আব্দুল হালিম জমিয়তী” নামেই পরিচিত ছিলেন। বিয়ানীবাজারের মুরাদগঞ্জ মাদরাসায় অধ্যয়নকরেছেন।

সিলেট জেলা জমিয়তের সভাপতি মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীন বলেন, ” ছিননি ভাই আব্দুল হালিম জমিয়তীরে। জমিয়ত করলে অলা খরতায়। তুমি জমিয়ত কর আবার মানুষের সামনে জমিয়ত’র নাম লইতে শরম করে ইতা কিযাত জমিয়ত? জমিয়ত করলে আব্দুল হালিম জমিয়তীর লাখান খরতায়।”

শাহবাগের মাওলানা ফারুক আহমদ জানান,
সে আমার এক প্রিয় শাগরেদ।সেই শৈশব কাল থেকেই জমিয়ত কর্মি।তখন তালবাড়ি গ্রামে জমিয়ত সমর্থক খোবই কম।কেহ জমিয়ত করলেও পরিচয় দিত না।আমিও ফয়জে আমের তখনকার সাধারন শিক্ষক।পরে নাজিমে তা’লিমাত।মাদরাসার নিতি ও আদর্শের সম্মান জানাতে আমিও কোন দিন জমিয়তের পরিচয় দেইনি।ফয়জে আম থাকা কালে সক্রিয় জমিয়ত করিনি।তবে আকাবিদের চেতনায় ছাত্র গঠনের লক্ষে আন-নেছার ছাত্র সংসদ গটন করেছি।কিন্তু আমার এ ছাত্র টি পাড়া মহল্লায় জমিতের কাজ নিয়ে ব্যস্ত। পড়ার প্রতি আগ্রহ কম হওয়াতে আমি তার প্রতি কঠুর।সে আমাকে ভয় পেত।আমার সামনে আসলেই কম্পমান।তাকে তার সাথিরা মস্করা করে জমিয়তি বলে ডাকত।তাচ্ছল্য করত।কিন্তু সে বেপরওয়া।মানুষ তাকে জমিয়তি বলে তাচ্ছল্য করলেও সে গর্ব করত।মানসিক এ নির্যাতনের পরেও হাসি মুখে বরণ করত।কোন দিন প্রতিকার করত না।না সে নিজের নামের সাথে জামিয়তি নিসবত টি যুক্ত করে দিল।
আজ সে নেই। তার অনেক স্মৃতি আছে। তার জানাজায় হাজারো অশ্রু সজল মানুষের বিড়।কত আর্তনাদ! মানুষ চিরকাল থাকে না।থাকে তার স্মৃতি।
আব্দুল হালিম এক অভাবি পরিবারের ছেলে।কিন্তু তার অভাব কারো কাছে প্রকাশ করত না।খেয়ে না খেয়ে জীবন কাটলেও কাকেও বলত না।সমাজিক কাজে নিজে না খেয়েও খরচ করত।ভাব সাবে বুঝা যেত সে খোব সচ্চল।আজ তার পরিবারটি অসহায়।তাদের দেখার কেহ নেই। চারটি সন্তান, এক ছেলে তিন মেয়ে। ছেলে মেয়েদের মধ্য দই মেয়ে প্রতিবন্ধি। কোন সুহৃদয় ব্যক্তি তাদের সাহায্য এগিয়ে আসতে পারেন।আল্লাহ আপনাদের সাহায্য করবেন।জানাজার সময় অনেকই সাহায্য করেছেন।এখন আপনিও সাহায্য করে এ পরিবারটির পাশে দাড়াতে পারেন।”

এই সংবাদটি 1,208 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com