শুক্রবার, ০৭ সেপ্টে ২০১৮ ১০:০৯ ঘণ্টা

‘বাঁ পা ঠিকমতো রাখতে পারি না, বাঁ হাতেও ব্যথা’

Share Button

‘বাঁ পা ঠিকমতো রাখতে পারি না, বাঁ হাতেও ব্যথা’

ডেস্করিপোর্ট : চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি দণ্ডিত হওয়ার পর খালেদা জিয়াকে রাখা হয় পুরান ঢাকার পরিত্যক্ত কেন্দ্রীয় কারাগারে। এর ৫৯ দিনের মাথায় খালেদাকে নেওয়া হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে। আর আজ বুধবার কারাবন্দী থাকার ৬ মাস ২৪ দিনের মাথায় হুইলচেয়ারে করে খালেদা জিয়াকে কারাগারের ভেতরে স্থাপিত আদালতে নেওয়া হলো।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত খালেদা জিয়ার পরনে ছিল গোলাপি রঙের শাড়ি। তবে বুক থেকে পা পর্যন্ত সাদা কাপড়ে ঢাকা ছিল। তাঁর বাঁ হাতের ওপরও ছিল সাদা কাপড়। হুইলচেয়ারে বসে থাকা অবস্থায় তাঁকে কেবল ডান হাত নাড়তে দেখা যায়। যখন শুনানি চলছিল, তখন মাঝেমধ্যে ডান হাত চোয়ালে ঠেকাচ্ছিলেন।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলাটির বিচারকাজ চলছিল পুরান ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে স্থাপিত আদালতে। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল গতকাল মঙ্গলবার সাংবাদিকদের বলেন, শুনানির সময় খালেদা জিয়া হাজির হন না। বিচার বিলম্বিত হচ্ছে। এরপর মঙ্গলবার বিকেলে আইন মন্ত্রণালয় এক প্রজ্ঞাপন দিয়ে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত কারাগারের একটি কক্ষকে আদালত ঘোষণা করে।

আজ জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার শুনানি থাকায় সকাল থেকে কারাগার ঘিরে ব্যাপক নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সকাল ১০টার দিকে দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজলসহ রাষ্ট্রপক্ষের অন্য আইনজীবীরা হাজির হন। তবে খালেদা জিয়ার কোনো আইনজীবীকে দেখা যায়নি। বেলা ১১টার দিকে আসেন বিচারক আখতারুজ্জামান। অবস্থান করেন কারাগারের ভেতরের আদালতের এজলাসের পাশের একটি কক্ষে, যা তাঁর খাসকামরা।

দুপুর সোয়া ১২টার দিকে খালেদা জিয়াকে হুইলচেয়ারে করে আদালতে আনা হয়। চারজন নারী কারারক্ষী তাঁকে আনেন। অবশ্য গৃহকর্মী ফাতেমাও খালেদা জিয়ার সঙ্গে এজলাসকক্ষে আসেন। এর পরপরই খালেদা জিয়া এজলাস কক্ষে থাকা বিএনপিপন্থী আইনজীবী গোলাম মোস্তফা খানকে কাছে ডেকে নেন। মিনিট দুয়েক তাঁর সঙ্গে কথা বলেন। আদালতের এজলাসকক্ষে বিচারক আসেন দুপুর ১২টা ২০ মিনিটের দিকে।

এরপর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলাটি বিচারের কোন পর্যায়ে আছে, তা আদালতকে বলতে শুরু করেন দুদকের কৌঁসুলি মোশাররফ হোসেন কাজল। তিনি আদালতকে জানান, এখানে আদালত স্থাপনবিষয়ক প্রজ্ঞাপন খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়াকে দেওয়া হয়েছে। এ মামলায় দুদকের পক্ষে যুক্তিতর্ক শুনানি শেষ করেছে। আসামি জিয়াউল হক মুন্নার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য দিন ধার্য রয়েছে।

আদালত তখন আদালতে থাকা মামলার আসামি জিয়াউল হক মুন্না ও মনিরুল ইসলাম খানের কাছে জানতে চান, তাঁদের আইনজীবীরা কোথায়?

এ সময় আদালতে থাকা বিএনপিপন্থী আইনজীবী ও ঢাকা বারের সভাপতি গোলাম মোস্তফা খান আদালতকে বলেন, খালেদা জিয়ার আইনজীবী হিসেবে নয়, একজন পর্যবেক্ষক হিসেবে এখানে এসেছেন। আইনজীবীরা জানেন না, এখানে আদালত বসবে। তবে কয়েকজন আইনজীবী বকশীবাজারের আদালতে থাকতে পারেন।
তখন আদালত দুই আসামিকে বলেন, এক ঘণ্টার জন্য আদালত মুলতবি থাকবে। আপনাদের আইনজীবীদের এখানে আসতে বলেন।

এ সময় খালেদা জিয়া আদালতের উদ্দেশে বলেন, তিনি অসুস্থ। চিকিৎসক বলেছেন, এভাবে বসে থেকে বেশিক্ষণ পা ঝুলিয়ে রাখলে পা ফুলে যেতে পারে। হাতেও ব্যথা।
খালেদা জিয়া বিচারকের উদ্দেশে বলেন, এ অবস্থায় তাঁর পক্ষে বারবার আদালতে আসা সম্ভব না, যত দিন ইচ্ছা সাজা দিয়ে দিতে পারেন। সাজাই তো হবে, ন্যায়বিচার নাই এখানে।

এই সংবাদটি 1,450 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com