শনিবার, ০৮ সেপ্টে ২০১৮ ০৫:০৯ ঘণ্টা

সমকামিতা ইসলাম ও নৈতিকতা বিরুধী জঘন্যতম অপরাধ : আল্লামা বাবুনগরী

Share Button

সমকামিতা ইসলাম ও নৈতিকতা বিরুধী জঘন্যতম অপরাধ : আল্লামা বাবুনগরী

ইনামুল হাসান ফারুকী:
ভারতের সুপ্রিম কোর্ট সমকামিতাকে বৈধতা দেয়ার কড়া সমালোচনা করে দেশের সর্ববৃহৎ অরাজনৈতিক ধর্মীয় সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও হাটহাজারী মাদরাসার সহযোগী পরিচালক শাইখুল হাদীস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন,বিকৃত রুচির সমকামিতা ইসলাম ও নৈতিকতা বিরুধী জঘন্যতম অপরাধ৷সমকামিতা হচ্ছে এমন এক নিকৃষ্ট, জঘন্য, ঘৃণ্য ও অশ্লীল কাজ, যা কল্পনাও করা যায় না।
৮ ই সেপ্টেম্বর শনিবার সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতি এ সব কথা বলেন তিনি৷আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন,সম্প্রতি ১৫৮ বছরের পুরনো ঔপনিবেশিক আমলের দণ্ডবিধির বিতর্কিত ৩৭৭ ধারা বাতিল ঘোষণা করে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট সমকামিতাকে বৈধতা দিয়ে ইসলাম ও নৈতিকতা বিরুধী অপরাধ করেছে৷বিকৃত রুচি ও নিকৃষ্ট মনের মানুষ ছাড়া এমন সমকামীতাকে কেহ বৈধ বলতে পারে না৷তিনি আরো বলেন,সমকামীতা বা homosexuality ইসলামের সম্পূর্ণ হারাম,কবিরা গুনাহ৷হাদীসে শরীফে রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন, যে পুরুষ পুরুষের সাথে নোংরা কাজে লিপ্ত হয়, উভয়ে জিনাকারী সাব্যস্ত হবে। তেমনি যে নারী আরেক নারীর সাথে কুকর্মে লিপ্ত হয় উভয়ে জিনাকারী(ব্যভিচারকারী)সাব্যস্ত হবে।
হাদীসের কিতাব আবূ দাউদ শরীফের ৪৪৬২ নং হাদীস উল্লেখ করে আল্লামা বাবুনগরী বলেন,হাদীস শরীফে সমকামীদের শাস্তির বিধান বর্ণিত আছে,রাসুল সা.বলেছেন, কাউকে সমকাম করতে দেখলে তোমরা উভয় সমকামীকেই হত্যা করবে’’। হিন্দুধর্ম গ্রন্থেও সমকামিদের শাস্তির বিধান রচিত আছে। মনুসংহিতায় উল্লেখ আছে-
‘যদি কোন বয়স্কা নারী অপেক্ষাকৃত কম বয়সী নারীর (কুমারীর) সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক স্থাপন করে, তাহলে বয়স্কা নারীর মস্তক মুণ্ডন করে দুটি আঙ্গুল কেটে গাধার পিঠে চড়িয়ে ঘোরানো হবে’
(Manu Smriti chapter 8, verse 370)
“যদি দুই কুমারীর মধ্যে সমকামিতার সম্পর্ক স্থাপিত হয়, তাহলে তাদের শাস্তি ছিলো দুইশত মূদ্রা জরিমানা এবং দশটি বেত্রাঘাত”
(Manu Smriti chapter 8, verse 369).
“দু’জন পুরুষ অপ্রকৃতিক কার্যে প্রবৃত্ত হলে তাদেরকে জাতিচ্যুত করা হবে”
(Manu Smriti Chapter 11, Verse 68.)

আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন,শুধু ইসালাম ধর্ম ও নীতি নৈতিকতা থেকে নয় বরং আধুনিক বিজ্ঞান ও ডাক্তারী থিওরী মতেও সমকামীতা বা homosexuality তে অনেক ক্ষতি রয়েছে৷সমকামীতার দরূন সিফিলিস,গনেরিয়া, প্রস্রাবে ইনফেকশ ও হেপাটাইটিস বি, এইডস ইত্যাদি সহ নানান রোগ হয়৷সমকামিরা হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস নামক ভয়ানক ভাইরাসে আক্রান্ত হয়।

তিনি আরো বলেন,সমকামীদের সামাজিক ও রাষ্ট্রীয়ভাবে বয়কট করতে হবে৷এদের দ্বারা সমাজ বিনষ্ট হচ্ছে৷এই বিকৃত রুচির সমকামীতা বন্ধ করতে না পারলে সমাজে সহিংসতা ও অবাধযৌনতা বৃদ্ধি পাবে৷

আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন, আধুনিক ব্যাক্তি ও সমাজ জীবনে নৈতিকতা দিন দিন অবক্ষয় হচ্ছে৷আধুনিক সমাজে মুক্ত যৌনচার সভ্য মানুষকে পশুত্বের দ্বারপ্রান্তে দাঁড় করিয়েছে। বস্তুবাদী সমাজে অশালীন ও অশ্লীল যৌনাচার,
নৈতিকতাহীনতার এক ভয়াবহ স্তরে উপনীত হয়েছে।ফলে পরিবার গঠন এবং বিবাহ পদ্ধতি প্রায় যেন বিলুপ্তির পথে। অবাধ যৌনাচারের উপর কোন ধর্মীয় এবং সামাজিক বিধিনিষেধ আরোপ যেন আজকের সমাজে অনগ্রসরতার প্রতীক! আমরা যাকে সভ্যতা বলে জাহির করতে চাচ্ছি আসলে সেটা যে নৈতিকতার বীভৎসতা, সেই উপলব্ধিটুকুও যেন আজ আমরা হারাতে বসেছি!ভারতের উচিত এই বিকৃত রুচির রায় প্রত্যাহার করা।

এই সংবাদটি 1,534 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com