রবিবার, ০৯ সেপ্টে ২০১৮ ০৮:০৯ ঘণ্টা

কাকরাইল মসজিদে সাদ পন্থীদের গভীর রাতে হানা, সংঘর্ষ

Share Button

কাকরাইল মসজিদে সাদ পন্থীদের গভীর রাতে হানা, সংঘর্ষ

সিলেট রিপোর্ট: বাংলাদেশের তাবলিগ জামাতের মারকাজ (কাকরাইল) মসজিদ দখল করতে ভারতের মৌলানা সাদের অনুসারীরা কাকরাইল মসজিদে হামলা চালানোর খবর পাওয়াগেছে। এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। তাতে কয়েকজন আহতও হন বলে জানা যায়। গতকাল (৮ সেপ্টম্বর) রাতে ন্যক্কার জনক এই ঘটনাও ঘটে। এখনো উজ্জেনা বিরাজ করছে। শনিবার রাতে মাওলানা সাদ ও নেজামুদ্দিনের অনুসারীরা কাকরাইল মারকাজে প্রবেশ করতে চাইলে এ ঘটনার সূত্রপাত হয়। তবে ঘটনার কিছুক্ষণ পর পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে বলে জানা যায়।
মৌলানা সাদের অনুসারী ও কাকরাইল শুরা সদস্য সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামও এবার হজ সফরে ছিলেন। হজ্বের সফর শেষে ওয়াসিফ পন্থীরা কাকরাইল দখলের জন্য পরিকল্পনা নেয় বলে মুসল্লীরা জানান।
প্রত্যক্ষদশিরা জানান, মাওলানা মুনীর বিন ইউসুফ ও মুহাম্মদুল্লাহ হজ থেকে ফিরে কাকরাইল মারকাজে ঢুকেন এশারের পর। এ সময় নেজামুদ্দিনপন্থী বহু সাথী কাকরাইলের গেটে অবস্থান নেয় মারকাজে প্রবেশের জন্য। তারা নানারকম স্লোগানও দেয় বাইরে। ফলে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
অপর এক সুত্রমতে হজ থেকে ফেরা দুই সাথী কাকরাইলে ঢুকতে চাইলে তাদের প্রথম বাধা দেয়া হয়। এরপরই ঝামেলার সৃষ্টি হয়।ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া কয়েকটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, কাকরাইল মারকাজ মসজিদের বাইরে নেজামুদ্দিনের অনুসারী বহু লোক অবস্থান করছেন। তারা বলছেন, মাওলানা যোবায়ের সাহেবরা মারকাজ দখলে রেখেছেন। আমরা হাজার হাজার লোক রয়েছি নেজামুদ্দিনের অনুসারী। আমরা সবর করে যাচ্ছি।

উল্লেখ্য, শুরা পদ্ধতিতে তাবলিগ জামাতের প্রচলন থাকলেও মাওলানা সাদ কান্ধলভী নিজেকে আমির দাবি করলে তাবলিগ জামাদের চলমান এ দ্বন্দ্বের সূত্রপাত।
এরপর দিল্লির নেজামুদ্দিনের দায়িত্বশীল মাওলানা সা’দ কান্দালভির বেশকিছু বিতর্কিত বক্তব্য ছড়িয়ে পড়লে দিন দিন পরিস্থিতি খারাপ হতে থাকে। বক্তব্যগুলো থেকে ফিরে আসতে দারুল উলুম দেওবন্দসহ আলেম উলামাগণ তাকে বারবার অনুরোধ করলেও তিনি সেই রীতি মেনে রুজু করেননি।
তবে মাওলানা সাদ পন্থীদের দাবি তিনি সঠিক পন্থায়ই রুজু করেছেন এবং তা মানছে না আলেম উলামাগণ।

এই সংবাদটি 2,584 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com