সোমবার, ১০ সেপ্টে ২০১৮ ০৫:০৯ ঘণ্টা

দরগাহ মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র পরিষদ ইউকে’র কনফারেন্স অনুষ্ঠিত

Share Button

দরগাহ মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র পরিষদ ইউকে’র কনফারেন্স অনুষ্ঠিত

সিলেট রিপোর্ট: সিলেটের ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান জামেয়া কাসিমুল উলুম দরগাহ মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র পরিষদ ইউ কে এর উদ্যোগে ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং রবিবার বিকেল ৫ টায় পূর্ব লন্ডনের এশাআতুল ইসলাম ফোর্ডস্কয়ার মসজিদে ইসলাহুল মুসলিমীন কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয় । পরিষদের সভাপতি মাওলানা মাওলানা হেলাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারি মুফতি বুরহান উদ্দিন, মাওলানা সৈয়দ তামিম আহমদ এর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত কনফারেন্সে আলোচনা পেশ করেন বিশিষ্ট ইসলামী স্কলার শায়খ মুফতি সাইফুল ইসলাম,শায়খ ডক্টর আবুল হাসান হোসাইন আহমদ,মাওলানা শায়েখ ফায়জুল হক আব্দুল আজিজ,মুফতী আব্দুল মুন্তাকিম,মাওলানা মুজাহিদ আলী।অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শায়খুল হাদীস মাওলানা ইমদাদুল হক হবিগঞ্জী,শায়খ মাওলানা নুরুল ইসলাম বিশ্বনাথী, শায়খ মাওলানা আসগর হোসাইন।অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হাফিজ মাওলানা শামছুল হক, শায়খ মাওলানা জামশেদ আলী, শায়খ মাওলানা মুস্তফা আহমদ,মুফতী শাহ সদর উদ্দিন,মাওলানা সৈয়দ আশরাফ আলী,মাওলানা সৈয়দ মোশাররফ আলী,মাওলানা আব্দুল গফফার, হাফিজ হুসাইন আহমদ বিশ্বনাথী, প্রাক্তন ছাত্র পরিষদের সিনিয়র সহ সভাপতি হাফিজ মাওলানা মোবারক আলী,সহ সভাপতি মুফতি আব্দুল মালিক, জয়েন্ট সেক্রেটারি মুফতি ছালেহ আহমদ,হাফিজ সাইদুর রহমান,ট্রেজারার মাওলানা শামসুল হক ছাতকী,প্রচার সম্পাদক মাওলানা আবু সুফিয়ান, মাওলানা আব্দুল আউয়াল, মুফতি লুৎফুর রহমান বিন্নুরী, মুফতি জসিম উদ্দিন, হাফিজ সাইদুর রহমান, মাওলানা লুৎফুর রহমান, মাওলানা আব্দুল মান্নান, মাওলানা আব্দুস সামাদ,প্রমুখ।
কনফারেন্সে আলোচক বৃন্দ বলেছেন,মানুষের ইহকালীন কল্যাণ ও পরকালীন মুক্তির এক মাত্র পথ হচ্ছে সকল ক্ষেত্রে কোরআন ও সুন্নাহের প্রকৃত অনুসরণ।কারন কোরআন ও সুন্নাহের অনুসরণ ছাড়া শান্তি ও মুক্তির আর কোন পথ নেই।মুসলিম উম্মাহ বিভিন্ন কারনে আজ কঠিন সময় অতিক্রম করছে।এই অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে ক্বোরআন ও সুন্নাহ কে আকরে ধরতে হবে।মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) থেকে সাহাবায়ে কেরাম (রাঃ) সহ আইম্মায়ে মুজতাহিদদের মাধ্যমে যে দ্বীন ইসলাম আমাদের পর্যন্ত এসে পৌঁছেছে এর অনুসরণ করতে হবে।আলোচক বৃন্দ আরো বলেছেন,আমাদের পূর্বসূরিরা দ্বীন ইসলামের জন্য কত ত্যাগ ও কুরবানী করেছেন তা বর্ণনার বাহিরে।মুহাদ্দীসিন ও ফকিহগন কত পরিশ্রম করে আমাদের আমলের জন্য ইসলাম বিভিন্ন কঠিন বিষয় গুলোকে সহজ করে দিয়ে গেছেন।এ সব আমাদের উপর ওনাদের করুনা ও দয়া।এসব বিষয় জানতে ও বুঝতে হক্কনী উলামা মাশায়েখদের সংস্পর্শে সবাইকে আসতে হবে এবং তাদের কথা মেনে আল্লাহওয়ালা জীবন গড়ে তুলতে হবে।

এই সংবাদটি 1,028 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com