মঙ্গলবার, ১১ সেপ্টে ২০১৮ ০৯:০৯ ঘণ্টা

খালেদার মুক্তিসহ তাফসিলের আগে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নির্বাচনের দাবি জমিয়তের

Share Button

খালেদার মুক্তিসহ তাফসিলের আগে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নির্বাচনের দাবি জমিয়তের

সিলেট রিপোর্ট: খালেদা জিয়ার নি:শর্তমুক্তি এবং তাফসিলের আগে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ । সংগঠনের মহাসচিব আল্লামা নূর হোছাইন কাসেমী বলেছেন, ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারীর জাতীয় নির্বাচনটি ছিল প্রতিদ্বন্দ্বিতাবিহীন একটি পাতানো নির্বাচন। প্রধানমন্ত্রীর ভাষায় উক্ত বিতর্কিত নির্বাচনটি ছিল নিয়ম রক্ষার নির্বাচন। সময়মত গ্রহণযোগ্য আরেকটি নির্বাচনেরপ্রতিশ্রুতিও তিনি তখন দিয়েছিলেন কিন্তু দুর্ভাগ্য যে, তিনি তাঁর সেই প্রতিশ্রুতিও রক্ষা করেন নি। ফলশ্রুতিতে পরিণতি যা হওয়ার তাই হয়েছে। আইন, বিচার ও প্রশাসনসহ দেশের কোন প্রতিষ্ঠানে আজ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নেই। গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাসহ হেন অপকর্ম নেই যা বর্তমান সরকার করেনি। সর্বত্র দুর্নীতি আর দুর্নীতি। ব্যাংক লুট, রিজার্ভে থাকা স্বর্ণ লুট, কয়লা লুট, পাথর লুটসহ সব অপকর্মই হয়েছে। এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না।
তিনি আজ মঙ্গলবার (১১ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে ভিআইপি লাউঞ্জে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের পক্ষ থেকে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আল্লামা কাসেমী এসব কথা বলেন। কাসেমী বলেন, এক তরফাভাবে গায়ের জোরে বহু আন্দোলন ও সংগ্রামের ফসল “তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা” সরকার বাতিল করে দিয়েছে। ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করার মানসিকতা আজ দেশের মধ্যে গভীর সংকট সৃষ্টি করেছে। এই মানসিকতা পরিহার করা না হলে দেশে গৃহযুদ্ধ অবধারিত। দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব হয়ে পড়বে অনিরাপদ। তাই কোন প্রকার টালবাহানা না করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একাদশ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা সরকারকে করতে হবে। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন ছাড়া জনমত প্রতিফলিত হয় না। তাই প্রত্যেক ভোটার যেন নির্ভয়ে ও স্বাধীন ভাবে কেন্দ্রে গিয়ে নিজের ভোট নিজে দিতে পারে সে পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। নির্বাচনী প্রচারণায় সকল রাজনৈতিক দলকে সমান সুযোগ দিতে হবে। এ দাবীগুলো এখন আর কোন এক নির্দিষ্ট দলের দাবী নয়। এগুলো জাতীয় দাবীতে পরিণত হয়েছে।

সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন দলের সহ-সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব, মাওলানা ওউবায়দুল্লাহ ফারুক, যুগ্ম মহাসবিচ মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী, মুফতী মুনীর হোছাইন কাসেমী, অর্থ সম্পাদক মাওলানা জাকির হোছাইন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতী নাসিরুদ্দীন খান, দফতর সম্পাদক মাওলানা আব্দুল গাফ্ফার ছয়ঘরি, সাবেক যুব বিষয়ক সম্পাদক শরফুদ্দীন ইয়াহইয়া কাসেমী, মাওলানা বশীরুল হাসান খাদিমানী, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, মাওলানা নূর মোহাম্মাদ ও মাওলানা ওমর আলী প্রমূখ।

সংবাদ সম্মেলনে প্রদত্ত লিখিত বক্তব্য সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো:

নাহ মাদুহু ওয়ানুসাল্লী আ’লা রাসূলিহিল কারীম

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
দেশ ও জাতির এক ক্রান্তিকালে আমরা আপনাদেরকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। আমাদের আমন্ত্রণে সাড়াা দেওয়ার জন্য আপনাদের সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আপনারা নিশ্চয়ই অবগত আছেন যে, ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারীর জাতীয় নির্বাচনটি ছিল প্রতিদ্বন্দ্বিতাবিহীন একটি পাতানো নির্বাচন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভাষায় উক্ত বিতর্কিত নির্বাচনটি ছিল নিয়ম রক্ষার নির্বাচন। সময়মত গ্রহণযোগ্য আরেকটি নির্বাচনের প্রতিশ্র“তিও তিনি তখন দিয়েছিলেন কিন্তু দুর্ভাগ্য যে, তিনি তাঁর সেই প্রতিশ্র“তি রক্ষাা করেন নি। ফলশ্র“তিতে পরিণতি যা হওয়ার তাই হয়েছে। আইন, বিচার ও প্রশাসনসহ দেশের কোন প্রতিষ্ঠানে আজ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নেই। গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাসহ হেন অপকর্ম নেই যা বর্তমান সরকার করেনি। সর্বত্র দূর্ণীতি আর দূর্ণীতি। ব্যাংক লুট, রিজার্ভে থাকা স্বর্ণ লুট, কয়লা লুট, পাথর লুটসহ সব অপকর্মই হয়েছে। এভাবে একটি দেশ চলতে পারে না।

প্রিয় সাংবাদিক ভাই ও বোনেরা!
রাজনৈতিক সহনশীলতা এবং সুস্থ রাজনীতির চর্চার অভাব প্রকট হয়েছে। এক তরফাভাবে গায়ের জোরে বহু আন্দোলন ও সংগ্রামের ফসল “তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা” সরকার বাতিল করে দিয়েছে। ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করার মানসিকতা আজ দেশের মধ্যে গভীর সংকট সৃষ্টি করেছে। এই মানসিকতা পরিহার করা না হলে দেশে গৃহযুদ্ধ অবধারিত। দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব হয়ে পড়বে অনিরাপদ। তাই কোন প্রকার টালবাহানা না করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একাদশ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা সরকারকে করতে হবে। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন ছাড়া জনমত প্রতিফলিত হয় না। তাই প্রত্যেক ভোটার যেন নির্ভয়ে ও স্বাধীন ভাবে কেন্দ্রে গিয়ে নিজের ভোট নিজে দিতে পারে সে পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। নির্বাচনী প্রচারণায় সকল রাজনৈতিক দলকে সমান সুযোগ দিতে হবে। এ দাবীগুলো এখন আর কোন এক নির্দিষ্ট দলের দাবী নয়। এগুলো জাতীয় দাবীতে পরিণত হয়েছে।

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
আপনারা লক্ষ্য করেছেন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে অনুষ্ঠিত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনগুলোতে কী রকম নজিরবিহীন অনিয়ম হয়েছে। সকাল ১১ টায় মেয়র প্রার্থীর ব্যালট পেপার শেষ হয়ে যাওয়া, সীল মারা ব্যালট পেপার পড়ে থাকা, কেন্দ্র দখল করাসহ নানা রকম প্রকাশ্য অনিয়মে ভরা এ সকল নির্বাচন দেখার পর এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে আর কোন গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হতে পারে না। সরকারকে খুশী করাই যেন তাদের কাজ। সরকারের আজ্ঞাবহ এমন মেরুদণ্ড বিহীন এই নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হয়েছে। ব্যর্থ হয়েছে জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে। সুতরাং সকল দলের কাছে গ্রহণযোগ্য ও সমাদৃত এমন ব্যক্তিদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করে সেই কমিশনের অধীনে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কার্যকর ব্যবস্থা করতে হবে। তৎসঙ্গে নির্বাচনের দিনসহ নির্বাচনের আগে পরে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে সেনাবাহিনী নিয়োগ করতে হবে।

জাতির বিবেক সাংবাদিক বন্ধুগণ!
সংসদ বহাল রেখে সংসদ নির্বাচন হলে সে নির্বাচন কখনোই সুষ্ঠু হতে পারে না। সংসদ বহাল রেখে নির্বাচন করার সিদ্ধান্তের পেছনে সরকারের অসৎ উদ্দেশ্য সম্পর্কে সবাই অবগত। এটা এক প্রকার তামাশা এবং হঠকারি সিদ্ধান্ত। এ ধরণের সিদ্ধান্ত অপরিণামদর্শিতাও বটে। দেশের মানুষ সংসদ রেখে সংসদ নির্বাচন মানতে রাজী নয়। তাই হঠকারিতা না করে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পূর্বে বর্তমান সংসদ ভেঙ্গে দিতে হবে এবং সরকারকে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করতে হবে। এর জন্য প্রয়োজনে সংবিধান সংশোধনসহ যে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

সাংবাদিক ভাই ও বন্ধুগণ!
যেখানে নির্বাচন ইস্যূতেই সরকারের সাথে সরকারের বাইরে থাকা অন্যান্যদের রাজনৈতিক বিরোধ তুঙ্গে সেখানে আগুনে ঘি ঢেলে দিয়েছে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের হঠকারী সিদ্ধান্ত। সরকারের বাইরে থাকা প্রায় সব রাজনৈতিক দলই ইভিএম ব্যবহারের বিরোধিতা করেছে। প্রযুক্তির অপব্যবহারের মাধ্যমে ভোটের ফলাফল পাল্টে দেওয়ার অশুভ চক্রান্ত এখানে লুকিয়ে আছে। তাই আমাদের দাবী হচ্ছে-আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা যাবে না এবং দেশের মানুষ তা মানবেও না।

সাংবাদিক ভাই ও বন্ধুগণ!
বিএনপি চেয়ারপার্সন ও ২০ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খাদেজা জিয়াকে ৭ মাসেরও অধিক সময় ধরে পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারের একটি পরিত্যক্ত ভবনে অন্যায়ভাবে আটকে রাখা হয়েছে। তিন তিন বারের একজন প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসা সেবার মত মৌলিক অধিকার টুকু থেকেও আজ বঞ্চিত। সর্বশেষ তার অন্য একটি মামলা পরিচালনার জন্য আলিয়া মাঠের বিশেষ আদালত পুরাতন কারাগারের একটি ভবনে স্থানান্তর করার মত ঘটনাও ঘটেছে। এসব কর্মকান্ড একদিকে যেমন রাজনৈতিক প্রতিহিংসা, অপরদিকে অমানবিক আচরণও বটে। তাই আমরা অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবী করছি এবং তাঁর পছন্দমত হাসপাতালে তাঁর সু-চিকিৎসা নিশ্চিত করার জোর দাবী জানাচ্ছি। সেই সাথে সকল রাজনৈতিক মামলা প্রত্যাহার ও গ্রেফতারকৃত নেতা-কর্মীদের মুক্তি দিতে হবে।
আমরা আশা করি সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে। দেশ ও জাতির বৃহত্তর স্বার্থে সরকার একগুঁয়েমি পরিহার করে এসব দাবী দাওয়া মেনে নিবে। অন্যথায় যে কোন পরিস্থিতির জন্য সরকারকেই দায়ী থাকতে হবে।
পরিশেষে বিভিন্ন দল, ফোরাম ও সুশীল সমাজ থেকে যে সকল প্রবীণ রাজনীতিবিদ, বুদ্ধিজীবী, আইনজীবী, লেখক ও গবেষক জাতির এহেন ক্রান্তিকালে উল্লেখিত দাবী-দাওয়া নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নেমেছেন তাদের সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে আজকের মত এখানে শেষ করছি।

নূর হোছাইন কাসেমী
মহাসচিব
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ

এই সংবাদটি 1,022 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com