বৃহস্পতিবার, ১৩ সেপ্টে ২০১৮ ১২:০৯ ঘণ্টা

সদর উপজেলায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ফাইনাল সম্পন্ন

Share Button

সদর উপজেলায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ফাইনাল সম্পন্ন

সিলেট রিপোর্ট:সিলেট সদর উপজেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (অনূর্ধ্ব-১৭) এর ফাইনাল খেলা সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার বিকেলে সদর উপজেলার শাহী ঈদগাহস্থ শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে টানটান উত্তেজনার ম্যাচে খাদিমপাড়া ইউনিয়ন ৪-৩ গোলে টুকের বাজার ইউনিয়নকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।
ফাইনালের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিলেটের জেলা প্রশাসক নুমেরী জামান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, দেশের ক্রীড়াক্ষেত্রকে এগিয়ে নিতে সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়ে কাজ করছে। সেই ধারাবাহিকতায় সরকার সারাদেশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে এ টুর্নামেন্ট আয়োজন করেছে। এর মধ্যদিয়ে মূলত সরকার তৃণমূল থেকে প্রতিভাবান খেলোয়াড় বের করে আগামী দিনের জন্য তাদের প্রস্তুত করছে। এরাই একদিন দেশের ফুটবলকে বিশ্ব দরবারে আলোকিত করবে।
সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) খালেদা আক্তারের সভাপতিত্বে ও সিলেট সদর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য সাংবাদিক মো. ওলিউর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের কার্যনির্বাহী সদস্য মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম।
অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, টুকের বাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদ আহমদ, খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আফসর আহমদ, সদর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক এইচএমএ মালিক ইমন, শাহী ঈদগাহ খেলার মাঠ কমিটির সাধারণ সম্পাদক নজমুল ইসলাম এহিয়া, ফজলুল হক, আমিনুর রহমান পাপ্পু, ফারুক আহমদ, সদর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার কোষাধ্যক্ষ ফজলুল করিম ফুল মিয়া, আব্দুল কাদির, সুহিন আহমদ চৌধুরী, ইউপি সদস্য খালেদ আহমদ, এনাম হোসেন, সদর উপজেলার এও সামসুদ্দীন, মেডিকেল অফিসার জালাল উদ্দিন, সাবেক ফুটবলার গোলাম কিবরিয়া, আব্দুল খালিক প্রমুখ।
ধারাভাষ্য প্রদান করেন জিয়াউল হক জিয়া। খেলায় ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন টুকের বাজার ইউনিয়ন দলের গোলকিপার ফাহাদ বিন সিদ্দিক, ও ম্যান অব দ্য টুর্নামেন্ট নির্বাচিত হন খাদিমপাড়ার আব্দুস সামাদ। সর্বোচ্চ গোলদাতা নির্বাচিত হন কান্দিগাঁও ইউনিয়নের গোলাম কিবরিয়া ও মোগলগাও ইউনিয়নের নোমান হোসাইন।

এই সংবাদটি 1,018 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com