বৃহস্পতিবার, ১৩ সেপ্টে ২০১৮ ০২:০৯ ঘণ্টা

নেত্রকোনায় ৫ টি আসনে জমিয়ত প্রার্থীদের প্রস্তুতি

Share Button

নেত্রকোনায় ৫ টি আসনে জমিয়ত প্রার্থীদের প্রস্তুতি

বিশেষ প্রতিনিধি: আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নেত্রকোনার ৫টি নির্বাচনী আসনেই প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন স্থানীয় জমিয়ত নেতারা। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ২০ দলীয় জোটের শরিক থাকা সত্তেও জেলার প্রতিনি আসনেদেলীয় প্রার্থী তালিকা কেন্দ্রে জমাদিয়েছেন। এব্যাপারে জেলা সেক্রেটারী মাওলানা মুফিজুর রহমান এই প্রতিবেদককে জানান, জমিয়ত মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ও ইসলামী আর্দশে উজ্জিবিত একটি নিবন্ধিত রাজনৈতিক সংগঠন। সঙ্গত কারনেই আমরা নির্বাচনমুখি দল। আসন্ন জাতয়ি সংসদ নির্বাচনে দেশের প্রতিটি জেলায় আমাদের যোগ্যতা সম্পন্ন প্রার্থী রয়েছেন। জোটগত ভাবে নেত্রকোনায় আমাদেরকে যে কোন দুটি আসন দিতে হবে। দলের কেন্দ্রীয় হাই কমান্ডের কাছে আমাদের ৫টি আসনে দলীয় প্রার্থী তালিকা দেয়া হয়েছে। নেত্রকোনার ১০টি উপজেলায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নিজ নিজ এলাকায় মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন জমিয়ত থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। তারা হলেন,
নেত্রকোনা-১ (দূর্গাপুর-কলমাকান্দা) আসনে থেকে মননোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকায় রয়েছেন মাওলানা আনোয়ার তাহের কাসেমী ও আলহাজ্ব হাফিজ মাওলানা রইছ উদ্দীন।
নেত্রকোনা-২ (সদর-বারহাট্র) আসনে মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম ও আবুল বাশার ফরাজী।
নেত্রকোনা-৩ (আটপাড়া-কেন্দুয়া) আসনে মাওলানা মুফিজুর রহমান ও মাওলানা হারুনুর রশীদ।
নেত্রকোনা- ৪ (মদন-মোহনগঞ্জ-খালিয়াজুড়ী) আসনে ছাত্র জমিয়তের সাবেক নেতা ডা: মাওলানা মুজিবুর রহমান ও যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী। নেত্রকোনা-৫ (পূর্বধলা) আসনে মাওলানা হোসাইন আহমদ পীর সাহেব সেওলা ও ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি হাফিজ মাওলানা আব্দুর ওহহাব হামিদী।
স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লষকদের অভিমত নেত্রকোনার ৫ টি আসনে ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নতুনদের অবস্থান পূরোনোদের চেয়ে ভাল। অপর দিকে জেলার অধিকাংশ হেফাজত কর্মী জমিয়তের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হওয়ায় বিএনপির চেয়ে জমিয়তের কর্মতৎপরতা লক্ষনীয়। সার্বিক বিবেচনায় নেত্রকোনা-৫ (পুর্বধলা) আসনটি শরিক দল জমিয়তকে ছাড় দিতে পারে বিএনপি। মাওলানা আব্দুল ওহহাব হামিদী্এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। দলীয় সবুজ সংক্ষেত পেয়ে তিনি সক্রিয় ভাবে কাজ করছেন।

এই সংবাদটি 1,093 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com