রবিবার, ১৬ সেপ্টে ২০১৮ ০৬:০৯ ঘণ্টা

১৫ ইসলামী দল নিয়ে নতুন জোটের আত্মপ্রকাশ

Share Button

১৫ ইসলামী দল নিয়ে নতুন জোটের আত্মপ্রকাশ

ডেস্ক রিপোর্ট: সরকারসমর্থিত অনিবন্ধিত ১৫টি ইসলামী ও সমমনা রাজনৈতিক দল মিলে গঠিত হয়েছে নতুন জোট ‘ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স (আইডিএ)’। সদ্য গঠিত জোটের উদ্দেশ্য- একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগের অধীনে ১৪দলীয় মহাজোটকে শক্তিশালী করা এবং নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ব্যাপক জনমত সৃষ্টি করা। গতকাল রাজধানীর গুলিস্তানস্থ হোটেল ইম্পেরিয়ালে এক সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে এই জোট আত্মপ্রকাশ করে।

লিখিত বক্তব্যে ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের মুখপাত্র এমএ আউয়াল বলেন, আজকের বিদ্যমান রাজনৈতিক সমস্যা, সন্ত্রাস দমন, দারিদ্র্যবিমোচন ও সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে এদেশের দেশপ্রেমিক ইসলামী ও সমমনা দলসমূহ যদি রাজনৈতিক কর্মসূচি নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে জনগণকে সংগঠিত করার চেষ্টা করে, তাহলে জনগণ অবশ্যই এটাকে সমর্থন করবে। এর মাধ্যমে এদেশে ইসলামী ও সমমনা শক্তিই তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হবে। তিনি বলেন, এই জোট প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য সুদূরপ্রসারী। অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে ঢাকায় গণসমাবেশের মাধ্যমে জোটের কর্মসূচি দেশবাসীকে জানানো হবে।

আশা করছি, এর আগেই দেশপ্রেমিক দল ও বিখ্যাত আলেম এবং ইসলামী চিন্তাবিদরা এই জোটে যোগদান করবেন। এসময় ইসলামের কল্যাণে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী নিজ উদ্যোগে ধর্মীয় নেতাদের নানাভাবে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখতে, তাদের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছেন।

দেশের ৮০ হাজার মসজিদে মসজিদভিত্তিক গণশিক্ষা ও কোরআন শিক্ষা, ২০১০টি দারুল আরকাম মাদরাসা, ইমাম প্রশিক্ষণসহ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে নানামুখী কর্মসূচির বাস্তবায়ন করেছে। ‘দেশপ্রেমিক ইসলামী ও সমমনা রাজনৈতিক দলসমূহের জোট ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের আত্মপ্রকাশ’ শীর্ষক ব্যানারে গঠিত জোটের চেয়ারম্যান হয়েছেন, বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আলহাজ মিছবাহুর চৌধুরী, কো-চেয়ারম্যান ও মুখপাত্র বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের সাবেক মহাসচিব এমএ আউয়াল ও সদস্য সচিব হয়েছেন গণতান্ত্রিক ইসলামিক মুভমেন্টের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম খান।

ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের অন্তর্ভুক্ত ১৫টি দলের মধ্যে রয়েছে আলহাজ মিছবাহুর রহমান চৌধুরীর বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোট, এমএ আউয়ালের বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন, অ্যাডভোকেট মো. নুরুল ইসলাম খানের গণতান্ত্রিক ইসলামিক মুভমেন্ট, এমএ রশিদ প্রধানের বাংলাদেশ ইসলামিক পার্টি, হাসরত খান ভাসানীর বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ ভাসানী গ্রুপ), রুমা আলীর বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট। এ ছাড়া মাওলানা শাহ মোস্তাকিম বিল্লাহ ছিদ্দিকীর বাংলাদেশ জমিয়তে দারুসসুন্নাহ, মাওলানা হারিছুল হকের বাংলাদেশ ইসলামী ডেমোক্রেটিক ফোরাম, হাকিম গোলাম মোস্তফার বাংলাদেশ গণ কাফেলা, মুফতি ফখরুল ইসলামের বাংলাদেশ জনসেবা আন্দোলন, কাজী মাসুদ আহমদের বাংলাদেশ পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টি, রেজাউল করিম চৌধুরীর বাংলাদেশ ইসলামী পেশাজীবী পরিষদ, মুফতি সৈয়দ মাহাদী হাসান বুলবুলের ইসলামী ইউনিয়ন বাংলাদেশ, খাজা মহিবুল্লাহ শান্তিপুরীর বাংলাদেশ মানবাধিকার আন্দোলন ও আবদুল্লাহ জিয়ার ন্যাশনাল লেবার পার্টি।

জোটে অন্তর্ভুক্ত দলগুলোর নিবন্ধন প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মিছবাহুর রহমান চৌধুরী জানান, জোটের অন্তর্ভুক্ত দলগুলো ইতিমধ্যে নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছে। নির্বাচনের আগে আশা করি নিবন্ধন পাবো। নির্বাচনের আগে নির্বাচন কমিশন আর কোনো দলকে নিবন্ধন দেবে না বলে জানিয়েছে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নিবন্ধন দিতে ইসিকে বাধ্য করা হবে। ইসলামিক ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের চেয়ারম্যান আলহাজ মিছবাহুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে এসময় সমমনা ১৫টি রাজনৈতিক দলের শীর্ষস্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এই সংবাদটি 1,133 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com