মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টে ২০১৮ ০৪:০৯ ঘণ্টা

সরকারকে কৃতজ্ঞতা জানাতে গিয়ে অতি উচ্ছ্বাস উচিত নয়: শরীফ মুহাম্মদ

Share Button

সরকারকে কৃতজ্ঞতা জানাতে গিয়ে অতি উচ্ছ্বাস উচিত নয়: শরীফ মুহাম্মদ

ওমর ফারুক:

বহু আশা, প্রত্যাশা, মত -ভিন্নমত কাটিয়ে দীর্ঘ অপেক্ষার পর স্বকীয়তা বজায় রেখে ও স্বমহিমায় সরকারি স্বীকৃতি পেল দেশের অন্যতম দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কওমি মাদরাসার সনদ। ইতিহাসের পাতায় স্থান পেল দিনটি। স্বপ্ন পূরণ হলো দেশের লাখো লাখো আলেম -ওলামা ও কওমি শিক্ষার্থীদের। যাদের শিক্ষার মূল্যায়ণ স্রষ্টার কাছে থাকলেও স্বীকৃত ছিল না রাষ্ট্রের কাছে। ফলে কওমি আলেমদের এ অর্জন খুব একটা ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। আবার বাড়াবাড়িরও সুযোগ নেই। কওমি স্বীকৃতির ভবিষ্যত নিয়ে আশঙ্কার কথাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না। কেন এই আশঙ্কা? কওমি স্বীকৃতির লাভটাই বা কি? কোনপথে ব্যবহার হবে এ স্বীকৃতি? স্বাভাবিকভাবেই এসব প্রশ্ন উঁকিঝুঁকি মারছে কৌতূহলীদের মনে। এসব প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন ইসলামি চিন্তাবিদ ও লেখক শরীফ মুহাম্মদ।

কওমি শিক্ষার্থীদের জন্য এ স্বীকৃতির তাৎপর্য কী? এমন প্রশ্নে শরীফ মুহাম্মদ বলেন, এতোদিন কওমি মাদরাসার সনদের সরকারি কোনো স্বীকৃতি ছিল না। তারা যে শিক্ষিত, এটাই মনে করা হতো না, ধরা হতো না। আদম শুমারিতেও ধরা হতো না। রাজনীতি ও প্রশাসনসহ নানান ক্ষেত্রে কওমি মাদরাসার শিক্ষাপ্রাপ্ত মানুষকে কীভাবে চিহ্নিত করবে, এসএসসি পাশ? শিক্ষিত? নাকি অর্ধশিক্ষিত অথবা স্বশিক্ষিত? এসব বিষয়গুলো ছিল ধোয়াশাপূর্ণ ।

‘এ স্বীকৃতির জন্য আশির দশকের পর থেকেই দাবিদাওয়া শুরু হয়েছিল। প্রথমদিকে বিষয়টি প্রস্তাবনা আকারে ছিল। গত বিএনপি আমলে (২০০১-২০০৬) এ আন্দোলন খুব জোরালো হয়েছে। কিছু কথাবার্তা হয়েছে। উলামায়ে কেরাম বিভিন্ন পর্যায়ে কাজ করেছেন।। শাইখুল হাদীস সাহেব মুক্তাঙ্গনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন। ওই সময় বিএনপি একটি গেজেট প্রকাশ করেছে। সেটি পরে চূড়ান্ত কোনো আকার ধারণ করেনি। এই সরকারের আমলে এসে এটি বাস্তবায়ন হয়েছে। কওমিওয়ালাদের একটি প্রাপ্তি এসেছে।’

‘তবে এ স্বীকৃতি কওমিদের জন্য অন্তর্নিহিত বড় কোনো ঘটনা নয়। বাহ্যিকভাবে এটি একটি ঘটনা। জগতে বাহ্যিকতারও একটি মূল্য রয়েছে। কওমি শিক্ষার্থীদের শিক্ষিত হিসেবে ধরা হয়েছে, এটিও একটি মূল্য। আর এটিকে অন্তর্নিহিতভাবে বড় কোনো ঘটনা হিসেবে ধরা ব্যাপকভাবে কওমি মাদরাসাগুলোর জন্য উচিতও নয়। কারণ, কওমি মাদরাসা ভেতরগত একটি চেতনা লালন করে। এটিকে রক্ষা করার সঙ্গে ইলমি দ্বীনি ও রুহানি অনেক ফায়দা জড়িত। তবে এ স্বীকৃতি আসার মাধ্যমে কওমি মাদরাসার মৌলিকত্বে কোনো আঁচড় পড়ে কি না এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই এটিকে একটি বাহ্যিক প্রাপ্তি বা বাহ্যিক অর্জন মনে করাই ভালো। এটিকে কওমি মাদরাসার জীবন বা ইতিহাসের বড় কোনো ঘটনা মনে করা কওমি মহলের লোকদের জন্য উচিত হবে না।’

শেষ পর্যন্ত এ স্বীকৃতি দেওয়া না হলে কী হতো কওমি মাদরাসাগুলোর? এমন প্রশ্নে শরীফ মুহাম্মদ বলেন, এ স্বীকৃতি কোনো কারণে না হলে করমি মাদরাসাগুলোর খুব বড় কোনো ক্ষতি হয়ে যেত এমন না। তবে যেহেতু দেওয়া হয়েছে এখন সতর্কতা প্রয়োজন। কওমি সনদের এ স্বীকৃতির বিলে মাদরাসার মূলনীতি, চেতনা অক্ষুণ্ন রাখার কথা বলা হয়েছে, কিন্তু সরকার যদি চায় নানাভাবে নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতিতে যেতে, এটা সরকারের পক্ষে সম্ভব। এজন্য মৌলিক জায়গা থেকে, আদর্শিক জায়গা থেকে বিচ্চুত না হওয়া এবং এ স্বীকৃতির কোনো অপব্যবহার যেন না হয় সেদিকেও মুরুব্বীদের লক্ষ রাখতে হবে। স্বীকৃতি পাওয়ার পর মূল আদর্শকে রক্ষা করা এটাই এখন বড় বিষয়। কোথাও যেন সাংস্কৃতিক, ঐতিহ্যগত বিষয়ে কোনো অশোভন চাপ না আসে এবং আত্মসমর্পণের মেজাজ তৈরি না হয় এটা কঠোরভাবে রক্ষা করা দরকার। কারণ এ স্বীকৃতির মাধ্যমে একটি মুক্ত অবস্থা চলে আসবে। প্রাপ্তি প্রাপ্তি , প্রতিযোগিতা, জাতে ওঠা ওঠা ভাবও চলে আসতে পারে বিশাল একটি শ্রেণির মাঝে। এজন্য সতর্ক থাকা প্রয়োজন। প্রাপ্তির সঙ্গে সতর্কতাই এখন মুখ্য। এ সতর্কতা ছেড়ে দিলে হবে না। প্রাপ্তির পর সতর্কতা বড় একটি বিষয়।

এ স্বীকৃতি কওমি শিক্ষার্থীদের জন্য কাজ ও প্রতিষ্ঠার ময়দানে কী ধরণের ভূমিকা রাখতে পারে – এ বিষয়ে তিনি বলেন, এ কারণে বড় ধরণের ঝুঁকি চলে আসতে পারে। শিক্ষার্থীদের অনেকের মাঝে এ স্বৃীকৃতির মাধ্যমে বিসিএস -এ যাওয়া, যে কোনো ধরনের সরকারি চাকরি ও অন্যান্য পদে যাওয়ার প্রবণতা চলে আসতে পারে। এমন হলে ভুল হবে। আসলে এসব বড় কোনো প্রত্যাশা না রেখে এটাকে শুধু স্বীকৃতি হিসেবেই দেখতে হবে। এর মাধ্যমে বেশি কিছু আদায়ের চেষ্টা না করাই ভালো। এর মাধ্যমে ডিসি হতে চাইলে, এসপি হতে চাইলে তখনই সিলেবাস চেইঞ্জ হওয়ার প্রয়োজন পড়বে। তাদের সীমাবদ্ধ করে রাখা হয়েছে এমন কথাও যেন না বলাবলি হয়। কারণ কওমি মাদরাসার মূল সিলেবাসে স্বভাবিক চাহিদার ভিত্তিতে যদি মাদরাসার কর্তৃপক্ষ মনে করেন জাগতিক আরও কিছু বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা প্রয়োজন তাহলে সেটা তারা করতে পারেন। যেমন, ইংরেজি ভাষা, সমাজ বিজ্ঞান, পৌরনীতি, ইতিহাস, ভূগোল। এগুলো যদি মাদরাসাওয়ালারা প্রয়োজন মনে করেন সহযোগী সিলেবাস হিসেবেও করতে পারেন। কিন্তু কোনো অবস্থাতেই যেন সরকারি সিলেবাসের মতো সংযোজন ও বিয়োজনের কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত মাধ্যমে না যেতে হয় এটা লক্ষ্য রাখতে হবে।

‘এজন্য এ সনদের স্বীকৃতিকে কেন্দ্র করে অতি উচ্ছ্বাস, প্রতিযোগিতা, আরও বড় জায়গায় যাওয়ার মানসিকতা পরিহার করাই যুক্তিযুক্ত। এটাকে শুধু শিক্ষার একটি স্বীকৃতি হিসেবেই নেওয়াটাই মঙ্গলজনক। মনে করতে হবে, এর দ্বারা আমরা বড় কোনো প্রতিযোগিতায় যেতে পারবো না, কিন্তু আমাদের শিক্ষকতা, ইমামতি, ইসলামি শিক্ষকতা, ইসলামী অর্থব্যবস্থা, ইসলামি প্রচারকেন্দ্রিক যতগুলো বিষয় আছে অথবা সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে ইসলামকেন্দ্রিক কাজের জন্য সনদের যে বাধাটি ছিল এগুলোর ক্ষেত্রে এটিকে ব্যবহার করলেই হবে। এখানেই সীমাবদ্ধ থাকার মানসিকতা লালন করতে হবে। এখানে শিক্ষার মূল্যায়ণটাই হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ। আর এটিই এ স্বীকৃতির বড় অর্জন ।’

এ স্বীকৃতি সরকারের সঙ্গে আলেমদের সম্পর্ক কোন দিকে গড়িয়ে নিয়ে যাবে বলে আপনি মনে করেন? এ বিষয়ে তিনি বলেন, এখানে আলেমদের বুদ্ধিমত্তাপূর্ণ কৌশলী ভূমিকা রাখতে হবে। সরকার এর মাধ্যমে অনেক ফায়দা নিতে চাইতেই পারে। আদর্শিক, রাজনৈতিক ফায়দা নিতে চাইতে পারে। আর আমাদের কর্তব্য হচ্ছে, এটিকে পাওনা মনে করে সরকারকে সাধারণ সৌজন্যপূর্ণ কৃতজ্ঞতার সালাম দেওয়া। এর চেয়ে বেশি আনুগত্য, বেশি কৃতজ্ঞতা, বেশি আত্মসমর্পনের দিকে যাওয়া ঠিক হবে না। অতিশয় উচ্ছ্বাস আমাদের জন্য অনেক ক্ষতির কারণ হতে পারে । যেহেুতু এটি ধারাবাহিক একটি প্রসেস ছিল, আবার এ সরকার দিয়েছে, এতে আমরা খুশি এবং আনন্দিত। এজন্য তাদের শুকরিয়া জানাতে পারি। তারা একটি প্রয়োজন পূরণ করেছে ও তাদের সদিচ্ছা প্রকাশ করেছে । কিন্তু এ শুকরিয়ার প্রসেসটা যেন লম্বা থেকে লম্বা হতে না থাকে। এতে যেন কৃতজ্ঞতা প্রকাশের নানা ধরনের মঞ্চ বা ধাপ তৈরি না হয়। এটি হলে একটা ভুল কাজ হবে। কারণ, এর মাধ্যমে রাজনৈতিকভাবে বিচ্চুত হওয়া, আদর্শিকভাবে পদচ্চুত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এগুলো থেকে বাঁচার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা থাকতে হবে।

–ফাতেহ২৪

এই সংবাদটি 1,429 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com