শুক্রবার, ২৮ সেপ্টে ২০১৮ ১১:০৯ ঘণ্টা

নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অভিমত

Share Button

নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অভিমত

ডেস্ক রিপোর্ট: নিউইয়র্ক সফরকালে জাতিসংঘ সদর দফতরে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র ও কমনওয়েলথবিষয়ক মন্ত্রী জেরেমি হান্টের সঙ্গে বৈঠকে সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে আগামী সংসদ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যকে আমরা সাধুবাদ জানাই। তার এ মনোভাব এমন এক সময়ে প্রকাশ পেল, যখন আগামী নির্বাচন কোন্ পরিবেশে ও কীভাবে অনুষ্ঠিত হবে- এ ব্যাপারে রাজনৈতিক দলগুলো মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। রাজনীতিতে মতভিন্নতা অস্বাভাবিক নয়।

আমরা মনে করি, মতবৈচিত্র্যই গণতন্ত্রের সৌন্দর্য। তবে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে নির্বাচন কমিশন, রাজনৈতিক দল, প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সব অংশীজনের নিরপেক্ষ ভূমিকা প্রয়োজন।

রাজনৈতিক দলসহ সব অংশীজনের ইতিবাচক ভূমিকা ও অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচন পূর্ণতা পাবে না- এ কথা যেমন সত্য, তেমনি নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে তাদের আস্থা অর্জনও জরুরি। মূলত এটি একটি চ্যালেঞ্জ। প্রশ্ন হল, এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সংশ্লিষ্টরা কতটা সক্ষম হবে?

রাজনৈতিকভাবে অসহিষ্ণু এ দেশটিতে নির্বাচন, বিশেষ করে জাতীয় নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণ জরুরি, যা প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যেও পরিষ্কার হয়েছে। বলার অপেক্ষা রাখে না, জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশে সহিংস পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে কেবল সাধারণ মানুষ নিরাপত্তাহীনতা ও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে না, অস্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম ছাড়াও দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগসহ সরকারের রাজস্ব আয়ের ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

বিরূপ রাজনৈতিক পরিবেশের নেতিবাচক প্রভাব পড়বে শেয়ারবাজারেও। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন বিনিয়োগকারীরা। তাছাড়া সহিংস রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বিভিন্ন উৎপাদনশীল খাত ও রফতানিমুখী শিল্প ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ায় এসব শিল্পের ওপর নির্ভরশীল হাজার হাজার শ্রমিকের ভাগ্যও হয়ে পড়বে অনিশ্চিত। সবচেয়ে বড় কথা, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় না থাকলে জনগণের বহু কষ্টে অর্জিত গণতন্ত্র হতে পারে বিপন্ন। এজন্যই জাতীয় নির্বাচনের প্রশ্নে রাজনৈতিক অঙ্গীকার ও মতৈক্য জরুরি।

একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে এককভাবে নির্বাচন কমিশনের দিকে তাকিয়ে থাকলে হবে না। আমরা সবাই যার যার মতো চলব, আর নির্বাচন কমিশন আমাদের নির্বাচন করে দেবে এবং সেই নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ- এটা ভাবা ঠিক নয়।

দায়িত্ব রয়েছে নির্বাচনসংশ্লিষ্ট সব অংশীজনেরই। তবে বড় দায়িত্বটি সরকারকেই পালন করতে হবে। সর্বত্র যদি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, পরমতসহিষ্ণুতা, আইনের শাসন, প্রশাসনের নিরপেক্ষতা ইত্যাদি অনুপস্থিত থাকে, তাহলে নির্বাচন কমিশনের মাত্র চার-পাঁচজন ব্যক্তির পক্ষে কি ভালো কিছু করা সম্ভব?

স্বাধীন প্রশাসনিক ব্যবস্থার পাশাপাশি যোগ্য ও ন্যায়নিষ্ঠ নির্বাচন কমিশন, রুচিশীল ও পরিচ্ছন্ন মনমানসিকতার ধারক-বাহক রাজনৈতিক দল এবং সংবেদনশীল নাগরিক সমাজ যদি যূথবদ্ধভাবে কাজ করার সক্ষমতা অর্জন করে, তবে প্রধানমন্ত্রী সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে আগামী সংসদ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে বলে যে অভিমত ব্যক্ত করেছেন, তা বাস্তবে রূপ নেবে বলেই আমাদের বিশ্বাস।

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com