সোমবার, ০১ অক্টো ২০১৮ ০৩:১০ ঘণ্টা

যৌতুক : সমাজ দেহের ক্যান্সার

Share Button

যৌতুক : সমাজ দেহের ক্যান্সার

আব্দুল্লাহ আল ইমরান চৌধুরী: মুসলিম সমাজে যখন অজ্ঞতা ও বিজাতির সংশ্রব একত্র হয়েছে , তখন ভিন্ন সমাজের রোগ-ব্যধি ও রীতি – রেওয়াজে আক্রান্ত হওয়া আশ্চর্যের কিছু নয়। বর্ণবাদী হিন্দু ও ভোগবাদী ইংরেজের সংশ্রব থেকে উদাসীন মুসলমানদের মাঝে একদিকে যেমন অবিশ্বাস ও পৌত্তলিকতার অনুপ্রবেশ ঘটেছে, অন্যদিকে অনাচার ও অশ্লীলতা এবং বহু নিপীড়নমূলক প্রথারও বিস্তার ঘটেছে। তাদের মধ্য অন্যতম হলো- “যৌতুক প্রথা”। যা সমাজ দেহের জন্যে এক মরণব্যধি ক্যান্সার । পারিবারিক শান্তি ও সম্প্রীতি বিনষ্টকারী। তথাপি সামাজিক শৃঙ্খলার মৃত্যদূত। এটা হিন্দু সমাজের আশীর্বাদ ।

★ সমাজ বিধ্বংসী কু-প্রথা : যৌতুক ! নিয়ে কিছু কথা বলার ইচ্ছা রাখি। এবিষয়ের মূল প্রসঙ্গে যাওয়ার আগে একটি কথা! আর তা হলো- আরবী ভাষায় একটি শব্দ আছে- ‘জাহায’ যার উর্দু অর্থ নেয়া হয় জাহীয । কেউ কেউ অগ্রপশ্চাৎ না ভেবেই এশব্দের তরজমা করেন- ‘যৌতুক’। এমন অর্থগ্রহণ সঠিক নয় । জাহায বা জাহীজ হচ্ছে- পিতার পক্ষ থেকে দেয়া কন্যাকে উপহার-উপঢৌকন । স্বামী বা শ্বশুরপক্ষের কেউ এর মালিক নয় , এর মালিক হবে কন্যা নিজেই । বিবাহিত কন্যাকে যৎসামান্য উপহার পিতা নিজের সামর্থ্য অনুসারে দিয়ে থাকেন। যদি এক্ষেত্রে কোন সমাজিক চাপ কিংবা প্রথাগত বাধ্য-বাধকতা না থাকে , তবে এই উপহার বিয়ের সময় দেওয়া সুন্নাত। মুস্তাহাব নয় । দিতে হবে এমনটি মনে করে যদি দেন তাহলে এমন উপহার দেয়া সম্পূর্ণ না জায়েজ বা হারাম। কেউ কেউ বিয়ের কন্যাকে কিছু উপহার সামগ্রি দেওয়াকে মসনূন মনে করেন । এ প্রসঙ্গে সীরাতে একটি ঘটনা আছে- রাসূল (সা.) নিজ কন্যা ফাতিমা রা. কে বিয়ের সময় কিছু জিনিস দিয়েছিলেন। যেমন- একটি ঝুলদার চাদর, একটি পানির মশক ও একটি বালিশ। যাতে ইযখির ঘাসের ছোবড়া ভরা ছিল । এই কাজ মসনূন। নবী (সা:) তাতে উৎসাহিত করতেন। তাঁর অন্য কন্যাদের বিয়েতেও এ ধরণের উপহার দিতেন । তেমনি উম্মুল মুমিনীনদেরকেও তাঁদের পিত্রালয় থেকে এমন উপহার দেওয়া হতো।

মোট কথা! কন্যার বিয়ের সময় পিতা নিজ সাধ্য অনুসারে তাকে যে গহনাগাটি বা সামানপত্র দিয়ে থাকেন তা শুধু আল্লাহর রেযামন্দীর জন্যে দিয়ে থাকেন। যাকে আরবীতে বলে “জাহায”। একে সুন্নাত বা মোবাহ যাই বলুন না কেন ! প্রচলিত যৌতুকের সাথে তার বিন্দু মাত্র সম্পর্ক নেই ।

★ যৌতুক শব্দের মূল প্রয়োগে কতটুকু ব্যাপকতা আছে তা আমার জানা নেই । তবে তার একটি পরিভাষা হলো- বিয়ের সময় বা বিয়ের আগে – পরে যে কোন সময় কনে বা কনেপক্ষের নিকট থেকে বর বা বরপক্ষের লোকরা যে সম্পদ বা সেবা গ্রহণ করে কিংবা সামাজিক প্রথায় বাধ্য হয়ে তাদেরকে যে সম্পদ দেওয়া হয় তা-ই যৌতুক। তদ্রূপ কনে বা কনেপক্ষের লোকরা মোহর বা ভরণ-পোষণের অধিক যা কিছু উসূল করে বা সামাজিক প্রথার কারণে তাদেরকে দেওয়া হয় এই সবই যৌতুকের অন্তর্ভুক্ত।

★একটি হারাম অনেক হারামের সমষ্টি : যৌতুক লেনদেন এত জঘন্য অপরাধ যে, তা শুধু হারাম বা কবিরা গুনাহ নয় , এমন অনেক গুলো হারাম ও কবীরা গুনাহর সমষ্টি । যার কোন একটাই যৌতুকের জঘন্যতা ও অবৈধতার জন্য যথেষ্ট।

★ মুশরিক সমাজের রেওয়াজ : যৌতুকের সবচেয়ে নগণ্যদিক হলো এটি একটি হিন্দুয়ানি রসম বা পৌত্তলিক সমাজের প্রথা। আর কোন মুসলিম কোন অবস্থাতেই কাফের ও মুশরিকদের রীতি-নীতির অনুসরণ করতে পারে না ।

★ জুলুম ও নির্যাতন : যৌতুক হচ্ছে একটি জুলুম। তা শুধু ব্যক্তির উপর নয় বরং গোটা পরিবার ও বংশের উপর জুলুম । যৌতুকের কারণে কনে ও তার অভিভাবকদের যে মানসিক পীড়ন ও যন্ত্রণার শিকার হতে হয়, তা কোনো ভাষায় প্রকাশ করার মত নয় । অথচ কাউকে সামান্যতম কষ্ট দেওয়া, জুলুম করাও হারাম। কবীরা গুনাহ । জালিমের ঠিকানা জাহান্নাম। মজলুমের ফরিয়াদ সরাসরি আল্লাহর দরবারে পৌঁছে যায়। যার পরিণতিতে যেকোনো মুহূর্তে আল্লাহ জালিমের উপর আযাব নাজিল করতে পারেন ।

★ পরস্ব হরণ : যৌতুক নেওয়া পরস্ব হরণের অন্তর্ভুক্ত। বিয়ে একটি পবিত্র বন্ধন। এটি ব্যবসা বা অর্থউপার্জনের উপকরণ নয়। তেমনি বর – কনেও ব্যবসার পণ্য নয় , যে তাদেরকে বিক্রয় করে পয়সা কামানো হবে। যারা বিয়ের মতো পবিত্র কাজকে ব্যবসার বস্তুতে পরিণত করে তারা আল্লাহর বিধানের অবজ্ঞাকারী ।

★ ডাকাতি ও লুটতরাজ : কে না জানে ? অন্যের সম্পদ লুট করা কবিরা গুনাহ। বড় কোনো সম্পদ নয়, যদি জোর করে কেউ কারো একটি ছোট বস্তু নিয়ে যায় সেটাও গসব ও লুন্ঠণ, যা সম্পর্ণ হারাম। আর লুন্ঠিত বস্তু অনতিবিলম্বে ফিরিয়ে দেওয়া ফরজ। যৌতুক নেওয়া কারো সামান্য জিনিস তুলে নেওয়ার মতো বিষয় নয়, বরং তা সরাসরি লুন্ঠন ও ডাকাতি । পার্থক্য শুধু এই যে, এখানে ছুরি চাকুর বদলে বাক্যবান ও চাপের অস্ত্র প্রয়োগ করা হয়। যা মজলুমের মনকে অনেক ক্ষতবিক্ষত করে তুলে। তাই ডাকাতি ও লুটতরাজের যে গুনাহ, ঠিক যৌতুক নেওয়ার গুনাহও তার চেয়ে কোন অংশে কম নেই।

★ রিশওয়াত ও ঘুষ : অাত্মসাৎ ও অবৈধ উপার্জনের যত গুলো পন্থা আছে তন্মধ্যে নিকৃষ্ঠতম ও জঘন্যতম একটি পন্থা হলো রিশওয়াত। যার বাংলা অর্থ ঘুষ ।

বিয়ের পয়গাম দেওয়া নারী-পুরুষের বৈধ অধিকার । পয়গাম কবুল হলে বিবাহ বন্ধনে অাবদ্ধ হতে পারাও নারী পুরুষের বৈধ অধিকার। বিয়ের পর স্বামী তার স্ত্রীকে পাওয়া এবং স্ত্রী তার স্বামী কে পাওয়া তাদের প্রত্যেকের হক ও অপরিহার্য অধিকার। এরপর যতদিন বিবাহ বন্ধন অটুট থাকে একে অন্যের নিকট থেকে শান্তি ও নিরাপত্তা লাভ করাও স্বামী- স্ত্রীর দাম্পত্য অধিকার । তবে এই অধিকারগুলোর কোনো একটি পাওয়ার জন্য বা প্রাপ্তি নিশ্চিত করার জন্য কোনোরূপ অর্থ বাধ্য-বাধকত করা সসম্পূর্ণ অবান্তর। সুতরাং এক্ষেত্রে কোনো অর্থ সম্পদ দাবি করা হলে কিংবা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ চাপের মাধ্যমে কোন কিছু গ্রহণ করা হলে তা হবে ঘুষ। যার লেনদেন সম্পূর্ণ হারাম। লেনদেনকরী মধ্যস্থতাকারী সবাই আল্লাহর লা’নত ও অভিশাপের উপযুক্ত।

★ লোভ লালসা ও চারিত্রিকহীনতা : যৌতুক, সন্ত্রাস, নারী নির্যাতন এবং যত ধরণের দূর্নীতি এই সমাজে প্রচলিত তা সকলই ঐ পাশবিক চরিত্রের বহি:প্রকাশ। এখন প্রত্যেকের কর্তব্য, নিজেকে নিজের অধিনস্ত সকলকে পশুত্বের হীনতা থেকে মানুষ্যত্বের মার্যাদার উন্নিত করার চেষ্টা করা। এটা এখন সময় ও সমাজের অপরিহার্য দাবি। আর এর এক মাত্র উপায় হচ্ছে আখিরাতের স্বরণ ও আল্লাহর কাছে জবাবদিহীতার অনূভূতিকে শক্তিশালী করা। এজন্য দ্বীনী শিক্ষার বিস্তার অাখলাক-চরিত্রের সংশোধন এবং নেককার বুযুর্গানেদ্বীনের জীবন ও অাদর্শ চর্চার কোন বিকল্প নেই।

★ যৌতুক মানুষকে ভিক্ষুকে পরিণত করে : রাসূল (সা.) ইরশাদ করেন – যে ব্যক্তি স্বীয় সম্পদ বৃদ্ধির লক্ষে অন্যের মাল তলব করবে, সে যেনো জাহান্নামের জলন্ত কয়লা সেচ্ছায় হাতে নিল। অন্য হাদিসে আছে- যে ভিক্ষার জন্য অন্যের নিকট হাত বাড়াবে কিয়ামতের দিবসে তার চেহারায় কোন গোস্ত থাকবে না। বর্তমানে যৌতুক হলো ভিক্ষার মত। যা জোর করে চাপ দিয়ে উদ্ধার করা হয়। উল্লেখিত হাদিস দ্বারা বুঝা গেল যে, ভিক্ষাবৃত্তি বৈধ নয়। অতএব, যৌতুক কীভাবে বৈধ হবে?

★ সুখ – শান্তির কফিন বন্দী : যৌতুকের নেশায় আজ মাতালের মতো মাথা ঘুরছে তথাকথিত কিছু পুরুষ জাতির। যৌতুক বিহীন খুব কমই বিবাহ সম্পাদিত হতে দেখা যায়। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, স্বামীর নেশায় যোগান দিতে বর্তমান গৃহবধূরা দিশেহারা হয়ে পড়ছে। তাদের হাসি- খুশি, সুখ-শান্তি, স্বাধীনতা আর নিরাপত্তা স্বামীর কাছে আজ কফিন বন্ধী। স্বামীর ঘরে তারা দূর্বিষহ জীবন যাপন করছে। ঠিক তেমনিভাবে ভীত সন্তস্ত্র অবস্থায় পিতার সংসারে কিংবা ভাইয়ের অধীনে থেকেও বিয়ের দুশ্চিন্তায় বিনিদ্র রজনী কাটাতে হচ্ছে যুবতীদের।

★ একটি ডিজিটাল চাঁদাবাজীর নাম : আজ বাংলাদেশের জনগণ দেশকে ডিজিটালরূপে দেখার পরিবর্তে ” ডিজিটাল বেহায়াপনা ” তথা গণ-ধর্ষন, হত্যা , গুম , খুন , মেয়েলী সব অশ্লীল কর্মকাণ্ড অবলোকন করছে প্রতিনিয়ত। তাই আজ আর ঐ সমস্ত পুরুষ জাতিকে উপাধিবিহীন ছেড়ে দেয়াটা খাম খেয়ালী ছাড়া আর কিছুই নয়। সুতরাং বলা যায় যে, যারা নিজ স্ত্রীর উপর নির্যাতন চালায় যৌতুক প্রাপ্তির অাশা নিয়ে, তারা হচ্ছে সন্ত্রাসীদের মতোই এক ভয়ঙ্কর গৃহ সন্ত্রাসী। তারাই হচ্ছে আজ ডিজিটাল বাংলাদেশের ডিজিটাল চাঁদাবাজি বা সন্ত্রাসী।

প্রিয় পাঠকবৃন্দ! যৌতুক সম্পর্কে অনেক লেখালেখি হয়েছে, হয়েছে অনেক চুল-চেরা বিশ্লেষণ । আসুন! এই জঘন্যতম যৌতুক প্রথাকে এখন ইসলামী দৃষ্টিকোণ থেকে একটু দেখি ।

★ কোরআন হাদীসের আলোকে যৌতুক : আল্লাহ তা’য়ালা বলেন- ‘তোমরা তোমাদের স্ত্রীদের প্রাপ্য মোহর খুশী মনে আদায় কর ‘। আজ মহান সৃষ্টিকর্তার নির্দেশ অমান্য করে উল্টো স্ত্রীর কাছে মাল-সম্পদ আদায়ের কাজে ব্যস্ত সমাজের কিছু সংখ্যক চরিত্রহীন পুরুষ। মহানবী ( সা. ) বলেন- যদি কোনো ব্যক্তি অল্প বা বেশী মহর ধার্য্য করে বিবাহ করে, এবং তার অন্তরে স্ত্রীর প্রাপ্য মোহর আদায়ের ইচ্ছা না থাকে, তাহলে বিচারের দিন আল্লাহ তা’য়ালা তাকে ব্যভিচারী হিসাবে সাব্যস্ত করবেন। মোহর হচ্ছে স্ত্রীগণের প্রাপ্য অধিকার। তাদের থেকে বা তাদের অভিভাবকদের কাছ থেকে মাল-সম্পদ নেওয়া কখনো বৈধ হবে না। কিন্তু হাল যামানার কিছু সংখ্যক লোভী পুরুষ এমন আছে, যারা স্ত্রীর মোহর আদায় করা তো দূরের কথা! উল্টো তাদের কাছ থেকে মূল্যবান উপঢৌকন চেয়ে বসে।

★ যৌতুক ও ইসলাম : যৌতুক প্রথাকে ইসলাম কঠোরভাবে নিষেধ করে আসছে। এটা হচ্ছে হিন্দুধর্ম প্রতিষ্ঠিত একটি জঘন্যতম কু-প্রথা। এটা কখনো মুসলিম জাতির সৃষ্ট কালচার হতে পারে না। রাসূল (সা:) ইরশাদ করেন- “যে কেউ অন্য সম্প্রদায়ের অনুসরণ করবে সে ঐ সম্প্রদায়ের দলভুক্ত বলে গণ্য হবে। যৌতুকের সবচেয়ে নিম্নতম ক্ষতিটি হলো, এর কারণে দাম্পত্য সম্পর্কের উদ্দেশ্যই ব্যর্থ হয়ে যায়। পরিবারে অশান্তির আগুন জ্বলতে থাকে। ঝগড়া-বিবাদ, গালি- গালাজ এমন কি মারধর পর্যন্ত হয়। যার প্রত্যেকটিই এক একটি কবীরা গুনাহ। এমনকি পরিবার ও সমাজকে ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে টেনে নেওয়ার জন্য যথেষ্ট। সন্তান মাত্রই আল্লাহর রহমত। তবে কন্যাসন্তান আল্লাহর বিশেষ রহমত। কিন্তু যৌতুকে কারণে অনেক পিতা-মাতা কন্যার প্রতি বিরূপ মনোভাব পোষন করেন। যা চরম মূর্খতা ও অজ্ঞাতার নামান্তর।

আরো বেদনার বিষয় হলো, বরের মা-বোনেরাও নববধুর কাছে যৌতুক দাবি করতে পিছপা হয় না। নারী হয়েও তারা নারীর যন্ত্রণা বোঝেনা। তার প্রতি সহমর্মী হয় না । অনেক ক্ষেত্রে তো জা-ননদ শাশুড়িই হয়ে উটে নব বধুর সবচেয়ে বড় দুশমন ।

★ পরিশেষে এই অভিশপ্ত ব্যধি থেকে আল্লাহ আমাদের সমাজকে পবিত্র করেন। সকল কুফুরী ও শিরকী কর্মকাণ্ড থেকে আমাদেরকে রক্ষা করেন এবং একমাত্র তারই সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে এই সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে সম্মলিত প্রতিরোধ গড়ে তোলার তাওফিক দান করেন । আমীন !!!

লেখক : আব্দুল্লাহ আল ইমরান চৌধুরী

শিক্ষার্থী : ফজিলত ২য় বর্ষ , জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর , বিয়ানিবাজার , সিলেট ।

আলিম ২য় বর্ষ , ফুলবাড়ি ফাজিল ( ডিগ্রি ) মাদ্রাসা , গোলাপগঞ্জ , সিলেট ।

এই সংবাদটি 1,976 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com