মঙ্গলবার, ০২ অক্টো ২০১৮ ০১:১০ ঘণ্টা

প্রধানমন্ত্রীকে আলেমদের সংবর্ধনার সিদ্ধান্ত: ফেসবুকে ঝড়!

Share Button

প্রধানমন্ত্রীকে আলেমদের সংবর্ধনার সিদ্ধান্ত: ফেসবুকে ঝড়!

সিলেট রিপোর্ট: কওমি মাদরাসার সম্মিলিত শিক্ষাবোর্ড ‘ আল হাইআতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’ রোববার ১লা অক্টোবর এক বৈঠকে স্বীকৃতি প্রদনে করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা প্রদানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন করেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী। বৈঠকে মাওলানা আশরাফ আলীকে আহ্বায়ক করে ১৫ সদস্যের একটি সংবর্ধনা উপ কমিটি গঠন করা হয়েছে। সংবর্ধনার বিষয়টি দেখভাল কমিটিতে সদস্য হিসেবে রয়েছেন, (বেফাক থেকে) বেফাকের সহসভাপতি মুফতি ওয়াক্কাস, মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মুসলেহুদ্দীন রাজু, মাওলানা আনাস মাদানী, মহাসচিব মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, সহকারী মহাসচিব, মাওলানা মাহফুজুল হক ও মুফতি নুরুল আমিন। অন্য বোর্ড থেকে, আল্লামা আবদুল হালিম বোখারী, মুফতি রুহুল আমীন, মাওলানা আরশাদ রাহমানী, মুফতি মুহাম্মদ আলী, মাওলানা আবদুল বছির।

তবে কওমী বোর্ডের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এভাবে ঘটাওকরে সংর্বধনা প্রদানের বিপক্ষে অনেকেই। বৈঠকে সরকারের অনুগত লোকের সংখ্যা বেশী হওয়ায় অন্যরা বিরোধীতা করেননি। নামপ্রকাশ না করার শর্তে বৈঠকে উপস্থিত একজন সিলেট রিপোর্টকে জানান, কওমি স্বীকৃতি আমাদের অধিকার। আর এই অধিকার বাস্তবায়নের জন্য কাজ করায় প্রধানমন্ত্রী ধন্যবাদ পাওয়ার উপযুক্ত। সেটা একটি প্রতিনিধি দল পাঠিয়ে বা চিঠির মাধ্যমে দেয়া যেতো। কিন্তু অনুাষ্ঠানিক ভাবে সংর্বধনা দেয়ার সিদ্ধান্তটি অনেকেই স্বাভাবিক ভাবে গ্রহণ করবেননা। কারণ এখনো হাজার হাজার আলেমের বিরুদ্ধে হেফাজত ইস্যুতে মামলা ঝুলছে। অনেকেই মনে করছেন শাপলা চত্বরের ট্রাজেডি, তাবলিগ ইস্যুর ব্যাপারে কী প্রধানমন্ত্রী কোন ফায়সালা দিবেন!
এসব বিষয়নিয়ে জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে নানা জনে নানা প্রশ্ন তুলেছেন।
বৈঠকে উপস্থিত কেউ কেউ এই প্রস্তাবের বিরোধীতা করেননি হামলা মামলার ভয়ে। জানাগেছে, রোববার মুফতি ওয়াক্কাস যখন ঐবৈঠকে উপস্থিত একই সময় ঢাকায় তার পল্টনস্থ অফিস পুলিশ ঘেরাও করে রেখেছিলো বলে জানাগেছে।
এব্যাপারে মুফতি মো: ওয়াক্কাসের ঘনিষ্টজন মাওলানা ওয়ালি উল্লাহ আরমান তার ফেসবুক ট্যাটাসে উল্লেখ করেন:

Wali Ullah Arman

আজ দুপুর দুইটার দিকে ১১৬/২, পল্টন বক্সকালভার্ট রোডে অবস্থিত হাজি ম্যানশন ঘেরাও করে ডজনখানেক গাড়িতে আসা শতাধিক আর্মড পুলিশ৷ ওই বিল্ডিংয়ে মুফতী মুহাম্মদ ওয়াককাস সাহেবের নেতৃত্বাধীন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় অফিস৷ ইতোপূর্বে ২০১২ এর ফেব্রুয়ারী, ২০১৩ এর এপ্রিল, ডিসেম্বর এবং ২০১৪ সালের অক্টোবরেও সেখানে পুলিশ হানা দেয়৷ অফিস তছনছ করে, আমার পাসপোর্ট, ব্যক্তিগত কম্পিউটার এবং Redwanul Bari Siraji Tofayel Ghazali এর গুরুত্বপূর্ণ সামান জব্দ করে৷
আজ দুপুরে যখন পুলিশ বিল্ডিংয়ে ওঠে, জমিয়ত অফিসে কেন্দ্রীয় ছাত্র জমিয়ত সভাপতি তোফায়েল গাজালি এবং মহানগর সভাপতি নিজাম উদ্দিন আল আদনান অফিসেই ছিলেন৷
পুলিশি অভিযান টের পেয়ে তারা দুইজন তড়িৎ বিল্ডিং থেকে নেমে যায়৷ বিশদলভুক্ত কিংবা ভিন্ন মতাবলম্বী রাজনৈতিক দলের উপর মামলা, হুলিয়া কিংবা ভীতি ছড়িয়ে কী পতন ঠেকানো ঠেকানো যাবে? নাকি জনমত নিজের দিকে নেয়া যাবে?

এখানে কয়েকটি স্ট্যাটাস হুবহু তুলে ধরা হলো:

Lisanul Haque
·
কয়েকদিন আগে আব্দুস আবদুস সাত্তার আইনী ভাই একটি শিরোনাম দিয়েছিলেন “পরিবর্তনটা ধীরে ধীরে হবে৷” একটু আগে শিরোনামটা মনে পড়ে গেলো৷ মেমোরিতে দেখি পরিবর্তনের অনেক ইতিহাস জমা আছে৷ কিন্তু এসব লিখবো না কখনও৷ স্বীকৃতি আমাদের ন্যায্য অধিকার ছিলো৷ এজন্যে বড়রা অনেক আগে থেকেই দাবী করে এসেছেন৷ কিন্তু আমরা কি এতোই তৃষ্ণার্ত ছিলাম যে, প্রাপ্তির পর এতোটা উন্মুক্ত হয়ে যেতে হবে!? ছোট মাথা৷ বুঝি না এতোটা৷ স্বীকৃতি হাসিনার রাজনৈতিক সফলতা৷ এ এমন এক টোপ যেটা গিলিয়ে তিনি তার চরম শত্রুকে বশ করতে সক্ষম হয়েছেন৷ আমাদের মধ্যে চলছে এ নিয়ে চরম অন্তর্দ্বন্দ্ব৷ বড়দের মধ্যেও, ছোটদের মধ্যেও৷ কোনো যোগফল খুঁজে পাই না৷ আলেমের হাতে জালেম সংবর্ধিত হোক সমস্যা নেই৷ তবে বড়রা পরিষ্কার বয়ান দিয়ে আমাদের অন্তর্দ্বন্দ্ব থামিয়ে দিতে পারলে সংবর্ধনার চেয়ে সওয়াব কম হতো না বোধয়৷

এপ্রসঙ্গে
Munir Ahmed ণিখেন,
ইতিহাস পক্ষপাতিত্ব করে না। সকলের ভূমিকাই ইতিহাসে লেখা থাকবে এবং পরবর্তী প্রজন্ম এই নিয়ে অবশ্যই বিচার-বিশ্লেষণ করবেন। আর আমাদের পূর্ববর্তী আকাবিরগণের রেখে যাওয়া আমানত নিয়ে বর্তমান আকাবিরগণের যার যার ভূমিকা ও অবদান অনুপাতে পরকালে আল্লাহর কাছ থেকে প্রতিদান তো অবশ্যই পাবেন…… তিনিই উত্তম ফায়সালাকারী। আমরা গুনাহগারদের এখানে মন্তব্য বা মূল্যায়নের ক্ষমতা নেই……

জুবাইর জালালাবাদী
5 hrs ·
তাওহীদি জনতার মাথার তাজ আল্লামা আহমদ শফি (হাফিঃ) কে এভাবে হত্যা করবেন না!
.
বুদ্ধিভিত্তিক কার্যক্রমের মাধ্যমে অগ্রসর না হলে (আল্লাহ না করুন) পরবর্তী প্রজন্ম আল্লামা আহমদ শফি (হাফিঃ) কে মুনাফেক-গাদ্দার হিসেবে চিহ্নিত করবে!
*
হ্যাঁ কওমী স্বীকৃতি আমাদের প্রাপ্য এবং হেফাজতের তেরো দফার বাস্তবায়নও আমাদের প্রাপ্য। আমাদের ঈমানী দাবি।আমরা ঈমানী চেতনায় শাপলা চত্বরে জমায়েত হয়েছিলাম।
.
অতঃপর সেই ৫ ই মে রাতের অন্ধকারে বাংলার ইতিহাসে ঘটে যায় ভয়ঙ্করতম নারকীয় গনহত্যা! আমরা বিচার চেয়েছি, বিচার পাইনি! উল্টো বলা হয়েছে, আমরা রং মেখে শুয়ে ছিলাম!
.
আমরা গিয়েছিলাম আল্লাহর জন্য। কিন্তু আমাদের প্রতি অপবাদ দিয়ে বিশ্বব্যাপি প্রচার করা হয়েছে, আমরা আল্লাহর কালাম আগুনে পুড়িয়েছি।
.
আমাদের মহাসচিব আল্লামা হাফেজ জুনায়েদ বাবুনগরীকে রিমান্ডে নিয়ে পৈচাশিক নির্যাতন করা হয়েছে। হাজার হাজার আলেম উলামাকে মামলা দিয়ে হয়রানী করা হয়েছে। এখনো মামলার চাপ মাথায় নিয়ে ঘুরছেন অনেক আলেম উলামা!
.
তখনকার অবস্থা এতোটাই ভয়ানক ছিল যে, সন্তানহারা মা-বাবা মুখ ফুটে বলতে পারেনি আমার সন্তান শহীদ হয়েছে। স্বামীহারা স্ত্রী গর্ব নিয়ে বলতে পারেনি আমি শহীদের স্ত্রী। পিতাহারা সন্তান বলতে পারেনি, আমি শহীদের সন্তান।
পরিবারের কর্তা হারিয়ে অসহায় হয়ে যাওয়া পরিবারটি পায়নি সহযোগীতা-সহমর্মিতা। গাজী ভাইয়েরা চিকিৎসার অধিকার থেকেও বঞ্চিত হয়েছে। চিকিৎসা না করাতে পেরে অনেকেই পঙ্গুত্ব বরণ করতে বাধ্য হয়েছে।
.
আমাদের ডাকে সাড়া দিতে আসা শত শত পরিবার এখনো অসহায় জীবন-যাপন করছে। টাকার অভাবে অনেক গাজি চিকিৎসা করাতে পারছেনা!
.
আমরা এসবের ন্যায় বিচার তখনো পাইনি, এখনো পাইনি। এসবের ন্যায় বিচারটাও যে আমাদের প্রাপ্য….।
*
*
অনেকেই হয়তো বলবেন- “কীসের সাথে কী! পান্তা-ভাতে ঘি” কওমী স্বীকৃতি এবং হেফাজতের ঈমানী আন্দোলন ভিন্ন!
.
হ্যাঁ আসলেই উভয়টা ভিন্ন। কিন্তু ভিন্ন হলেও আমাদের নেতা তো একজনই! যে ব্যক্তির আহবানে লক্ষ লক্ষ তাওহীদি জনতা ঈমানী আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছে, হাজার হাজার তাওহীদি জনতা নিজের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছে, সেই নেতা আর কেউ নয়, তিনি জনতার নেতা আল্লামা আহমদ শফি (হাফিঃ)।
.
তাওহীদি জনতার এই অবিসংবাদিত নেতার সভাপতিত্বে যখন প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেয়া হবে তখন জনতার নেতা আল্লামা আহমদ শফি (হাফিঃ) জনতার শ্রদ্ধার আসন থেকে আস্তাকুড়ে নিক্ষেপিত হবেন। এটাই স্বাভাবিক।
.
কারন, এই সরকার ২০১৩ সালের সেই সরকার। এই প্রধানমন্ত্রী সেই ৫ই মে’র সেই প্রধানমন্ত্রী। যার নির্দেশে রাতের অন্ধকারে শাপলা চত্বরে স্বাধীন বাংলার ঘভয়ঙ্করতম নারকীয় গনহত্যা সংঘটিত হয়েছে। সো আমরা যতই বলিনা কেনো “শাপলা চত্বরের শহীদদের নজরানা আমাদের মনে আছে, আমরা ভুলিনি” তাওহীদি জনতার ক্ষত বিক্ষত হৃদয় তা বিশ্বাস করবেনা।
.
এই বিশ্বাসের বহুবচনে তাওহীদি জনতার নেতা, আস্থার প্রতিক, মাথার তাজ আল্লামা আহমদ শফি (হাফিঃ) এর ব্যক্তিত্ব ইন্তেকাল করবে। আমরা হেরে যাবো বুদ্ধিভিত্তিক খেলায়।
*
হেফাজতের ব্যানারের নেতাদেরকে স্বীকৃতির ব্যানারে একাকার করে নেয়া আমাদের প্রথম ভুল ছিল। জাতীয় সংসদে বিল পাশ হওয়ার পর মুফতি ফয়জুল্লাহ প্রমুখ আলেমদের আনন্দ মিছিল এবং প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ হয়ে লড়াইয়ের ঘোষণা আরেকটি ভুল। আর এখন যেটা হতে যাচ্ছে সেটা হবে একেবারে আত্মঘাতি ভুল। যে ভুলের মাসুল হাতে গুণে শেষ করা যাবে না।
*
সুতরাং তেল মারতে হলে মারুন, সমস্যা নেই। আনন্দ মিছিল করুন, সমস্যা নেই। প্রাইম মিনিস্টারের পক্ষ হয়ে লড়াই করতে হলে তাও করুন সমস্যা নেই। তবে একটাই অনুরোধ!
দয়া করে হেফাজতের ব্যানারের নেতাদেরকে শিক্ষা বোর্ডের ব্যানার থেকে পৃথক করুন।

Salman Bin Malik
ক্ষমা করে দিও আল্লাহ।
ক্ষমা করে দিস হে শাপলার শহিদেরা।

মাঝে মাঝে প্রয়োজনের তাগিদে ঢাকা সফর করা হয়। তবে ঐতিহাসিক ৫ ই মে ‘র পর থেকে মতিঝিল দিয়ে কখনো যাতায়াত করিনা। প্রয়োজনে কিছু দুর দিয়ে ঘুরে হলেও গন্তব্যস্থলে যাওয়ার চেষ্টা করি। কারন শাপলার স্মৃতি আমার চোখে ভাসে। শাপলার ব্যথা আমার অন্তরে প্রতিনিয়ত মোচড় দেয়। ভয় হয় ওখানে গেলে আমার শহিদ ভাইয়েরা অভিশাপ দেবে তাদের শাহাদাতের প্রতিশোধ নিতে পারি নাই বলে।
ইশ আজ সেই হায়েনাদের সাথে আমরা স্বার্থপরের মতো আতাত করছি।
সংবর্ধনা দেবো তাদেরকেই যাদের প্রত্যক্ষ নির্দেশে আমার ভাইদের শহিদ করা হয়েছে। তারা রং মেখে শুয়েছিলো বলে যারা প্রকাশ্যে তামাশা করেছে তাদেরকে।

ক্ষমা করে দিও আল্লাহ।
ক্ষমা করে দিস হে শাপলার শহিদেরা।

Abdul Aziz Mahbub হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে!

Imran Raihan ইজমার বিরুদ্ধে কথা না বলাই ভালো

Salman Bin Malik আমি ছাড়া ইজমা হয় কেমনে। আর রক্তের সাথে তামাশা করে যে ইজমা সে ইজমায় আমি নাই।

আইনুন ইবনে গোলাম রব্বানী
আইনুন ইবনে গোলাম রব্বানী সব কিছুই এখন কেমন ফাউল মনে হয়। এখন আর আবেগ কাজ করে না।

জুবাইর জালালাবাদী
29 September at 06:59 ·
গদির স্বার্থে কেউ কেউ ডুগডুগি কন্যা আর ট্যাংক ম্যানকে সাথে নিয়ে রাজনীতি করে। ভুলে যায় বাবা হারানোর নির্মম স্মৃতি!
.
ঠিক তেমনি ভাবে শাপলার বীরদের আত্মত্যাগের কথা বেমালুম ভুলে গিয়ে আক্রমনকারীদের পক্ষ নিয়ে লড়াই করার ঘোষণাও হচ্ছে!
*
“কী সেলুকাস! কী বিচিত্র আমাদের সমাজ! আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের ভালোবাসায় উজ্জীবিত হয়ে যারা রক্ত দিলো শাপলা চত্বরে, সেইসব বীরদের স্মৃতির প্রতি এ কেমন বিচার! তাদের আত্মত্যাগের কথা বেমালুম ভুলে গিয়ে আজ কেউ কেউ বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন পরস্পরের নামে। তবে কি কিছু লোক কুৎসা রটিয়ে হেফাজতকে কলঙ্কিত করে আক্রমনকারীদের নির্মমতাকে আড়াল করে দিতে চায়! দেশবাসীর সজাগ দৃষ্টিকে তারা কোন দিকে ঘুরিয়ে দিতে চায়! এভাবেই কি ইতিহাস মোছা যায়!
.
“বিশ্বাসের বহুবচন” এর ৫০ নং পৃষ্টায় উল্লেখিত
মুফতি ফয়জুল্লাহ সাহেবের এই বক্তব্যটি যথেষ্ট গুরুত্বের দাবি রাখে এবং সাম্প্রতিক বক্তব্যটাও বিশ্লেষনের দাবি রাখে।

এই সংবাদটি 3,773 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com