বুধবার, ০৩ অক্টো ২০১৮ ০৪:১০ ঘণ্টা

গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ,গননা চলছে

Share Button

গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ,গননা চলছে

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি: গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। আজ বুধবার সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোট গ্রহণ শেষে এখন
গননা চলছে। পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডের ৯টি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হচ্ছেন-বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী, উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক, সাবেক মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী সিলেট জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মহিউস সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস (নারিকেল গাছ), পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহিন (মোবাইল) এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী, যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রাবেল (জগ)।

নির্বাচনে নিরাপত্তা বিধানের জন্য পুলিশের ৩টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, একটি মোবাইল টিম, ৩ প্লাটুন বিজিবি এবং র‌্যাব সদস্যের ৪টি চৌকস দল মাঠে সার্বক্ষণিক নিয়োজিত রয়েছে। পাশাপাশি আনসার সদস্যরাও দায়িত্ব পালন করবেন। এছাড়া, ৪ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে কাজ করবেন। যে কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে এরই মধ্যে পুরো পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ড গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। পৌর এলাকায় গত রাত ১২টা থেকে আজ রাত ১২টা পর্যন্ত সব ধরণের যান্ত্রিক যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা ২১ হাজার ৬শত ৩২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১০ হাজার ৯শ’ ৫৮ জন ও মহিলা ভোটার সংখ্যা ১০ হাজার ৬শ’ ৭৪ জন। নির্বাচনে ৯ জন প্রিসাইডিং অফিসার, ৫৯ জন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ও ১১৮ জন পোলিং অফিসার দায়িত্ব পালন করছেন।

গোলাপগঞ্জ থানার ওসি (অপারেশন) মো: দেলওয়ার হোসেন পুরো পৌর এলাকাকে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে। সেখানে মঙ্গলবার রাত থেকে বিজিবি, পুলিশ ও র‌্যাব সহ নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। নির্বাচনের সামগ্রিক পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ রয়েছে বলে জানান তিনি।

গত ৩১মে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পৌর মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরীর মৃত্যু জনিত কারণে এ পৌরসভায় উপনির্বাচন হচ্ছে।

এই সংবাদটি 1,038 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com