বৃহস্পতিবার, ০৪ অক্টো ২০১৮ ০৭:১০ ঘণ্টা

সুব্রামাণিয়ামের ‘আগ্রাসী’ বক্তব্যের নিন্দা জমিয়ত মহাসচিবের

Share Button

সুব্রামাণিয়ামের ‘আগ্রাসী’ বক্তব্যের নিন্দা জমিয়ত মহাসচিবের

সিলেট রিপোর্ট: ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সাংসদ সুব্রামানিয়াম স্বামী কর্তৃক সম্প্রতি ‘বাংলাদেশে গায়ের জোরে হিন্দুদের ধর্মান্তরিত ও মন্দির দখল করা হচ্ছে’ এমন কাল্পনিক অভিযোগ তুলে ‘বাংলাদেশ দখল করার হুমকি’ দিয়ে বক্তব্য দেওয়াকে চরম আগ্রাসনমূলক ও সন্ত্রাসবাদি বক্তব্য আখ্যা দিয়ে এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।

তিনি বলেছেন, বিজেপির এই সাংসদ শুধু কূটনৈতিক শিষ্টাচারই লঙ্ঘন করেননি, বরং বাংলাদেশে কাল্পনিক হিন্দু নির্যাতনের অভিযোগ তুলে সাম্প্রদায়িক হিংসার আগুন ছড়িয়ে দিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চেয়েছেন।

আজ (৩ অক্টোবর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে জমিয়ত মহাসচিব এসব কথা বলেন। বিবৃতিতে জমিয়ত মহাসচিব সরকারীভাবে সুব্রামাণিয়ামের আগ্রাসী বক্তব্যের কড়া প্রতিবাদ ও নিন্দা জানানোর দাবি জানান।

আল্লামা কাসেমী বলেন, বাংলাদেশের মুসলমানরা সংখ্যালঘু নাগরিকদের আর্থ-সামাজিক নিরাপত্তার প্রতি সবসময় আন্তরিক। সংখ্যালঘুদের নাগরিক অধিকারের সুরক্ষায় বাংলাদেশ সমগ্র বিশ্বের জন্য অনুকরণীয় উদাহরণ হতে পারে।

তিনি বলেন, সুব্রামানিয়ামের দেশ ভারতের মতো এই দেশে সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে কোন ধর্মীয় ও রাজনৈতিক নেতা কখনো বক্তব্য তো দেয়ই না; বরং এই দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানরা সংখ্যালঘুদের জান-মালের সুরক্ষা দেওয়াকে নিজেদের কর্তব্য বলে মনে করেন।
তিনি আরো বলেন, সুব্রানিয়ামদের দেশ ধর্মনিরপেক্ষ ভারতে আজ সংখ্যালঘু মুসলিমরা অবর্ণনীয় জুলুম-অত্যাচার, হত্যা, ধর্ষণ ও নিগ্রহের শিকার। বর্ণ-বৈষম্যের কারণে ভিন্ন ধর্মানুসারীরা স্থান-কাল-পাত্র ভেদে সমঅধিকার থেকে বঞ্চিত।

তাদের উচিত ভারতের অখন্ডতা ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখার স্বার্থে নিজ দেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন বন্ধ করে, দেশকে স্থিতিশীল রাখতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও সমান নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রতি মনোযোগ দেওয়া।

এই সংবাদটি 1,074 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com