মঙ্গলবার, ০৯ অক্টো ২০১৮ ০২:১০ ঘণ্টা

পাল্টে যাচ্ছে দৃষ্টিভঙ্গি : “তোর কারণেই আমি মাইর খাইছি”

Share Button

পাল্টে যাচ্ছে দৃষ্টিভঙ্গি : “তোর কারণেই আমি মাইর খাইছি”

সৈয়দ শামছুল হুদা:
জামাত, বিএনপি, মাহমুদুর রহমানদের বিরুদ্ধে হেফাজতকে দাঁড় করানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। একসময় যারা হেফাজত, জামাত ও বিএনপিকে এক পাল্লায় মাপতো, তারা এখন পেছন থেকে বাহবা কুড়াচ্ছে। হেফাজতকে নতুন ঠিকানায় দাঁড় করাচ্ছে। আমরাও খুশি খুশি এসব কাজে সাড়া দিচ্ছি। ৩০ বছর আগে হাটহাজারীতে যে ছাত্র সংঘর্ষ হয়েছিল, সেটাকে এমনভাবে প্রকাশ করা হচ্ছে, মনে হচ্ছে, এইতো গতরাতে হাটহাজারীতে জামাত শিবির হামলে পড়েছে। এখন দেশবাসীকে তা রুখে দাঁড়াতে হবে। লেখার শিরোণাম, কভার ফটো দেখে এমনটাই ধারণা হবে পা্ঠকের।এসব করে কার ক্ষতি করা হচ্ছে সেটা বুঝার ক্ষমতাও অনেকের নেই।

মনে রাখতে হবে হেফাজতের মহা উত্থানে দেশের সকল ইসলামপন্থীর সমর্থন ছিল। তাদের সহযোগিতা ছিল। শাপলার গণজাগরণ শুধূমাত্র আল্লামা আহমদ শফী দা.বা. এর একক কৃতিত্ব ছিল না। আল্লাহ তায়ালা হুজুরকে কবুল করেছেন বলে তিনি রাহবারী করেছেন। সামনের কাতারে উনাকে দাঁড় করিয়েছেন। হেফাজতের জাগরণে ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী যাদেরকে আমরা খুব খারাপ দৃষ্টিতে দেখি তাদেরও ভুমিকা ছিল। জামাতের ছির। বিএনপির ছিল। জাতীয়পার্টির ছিল। দ্বীনদার সকল মানুষের ছিল । কিন্তু হেফাজতের সংকটটা শুধু বিএনপি বা জামাতের সমর্থন দানের কারণে ছিল না। এর সাথে যোগ হয়েছিল আমাদের কিছু দায়িত্বশীল ভাইদের সাথে সরকারের গোয়েন্দা সংস্থার গভীর যোগসাজস। সেদিন শাপলা চত্বরকে সেভাবেই সাজানো হয়েছিল। আলেম-উলামাদের একটি কঠিন শিক্ষা দেওয়ার গভীর দূরভিসন্ধির কারণেই শাপলার ক্ষত তৈরী হয়েছিল।

সরকারের শিখানো বুলির মতো আমরাও আওড়াচ্ছি, বেগম জিয়া সেদিন ঢাকাবাসীকে রাস্তায় নামবার আহবান জানানোর কারণেই বুঝি শাপলায় গণহত্যা বৈধ হয়ে গিয়েছিল। পল্টনের কিছু গাছ কাটার কারণেই বুঝি সেদিন শাপলার রক্তঝরা বৈধ হয়েছিল। আসলে এটা একটা রাজনৈতিক কৌশল। মূলত তৌহিদবাদী শক্তিটাকে দমন করাই ছিল উদ্দেশ্য। এককভাবে এর জন্য কাউকে দায়ী করা ঠিক নয়। কিন্তু আমরা একে অপরকে দায়ী করছি।

‘তোর জন্য আমি মাইর খাইছি’ টাইপের ঘটনা আমরা এখন দেখতে পাচ্ছি। এগুলো করে আমরা যে একটি অপরাজেয় শক্তি ছিলাম তা শেষ করে দিচ্ছি। ঐক্য, বন্ধন খানখান হয়ে যাচ্ছে। পরস্পরে আস্থাহীনতা তৈরী হচ্ছে। একবার এই পরিবেশ তৈরী হলে যে ক্ষতিটা আমাদের হবে তা আমরা কোনভাবেই মোকাবেলা করতে পারবো না।

আমরা কওমী অঙ্গনের কেউ কেউ মনে করি, হেফাজত এককভাবে আমাদের মহাজাগরণ। এটা ভুল। এদেশের সকল ইসলামপন্থীর সমর্থন ছাড়া এমন মহাজাগরণ কোনদিন সম্ভব ছিল না। আগামীতে ও কিছু করতে হলে সবাইকে নিয়েই চিন্তা করতে হবে। এখন যদি মাহমুদুর রহমানকে গর্তে ফালান, জামাতকে এককভাবে সেদিনের জন্য দায়ী করেন, বেগম জিয়ার আহবানকে এককভাবে দায়ী করেন, অমুক আলেম, তমুক আলেমকে দোষারূপ করেন তাহলে ক্ষতিটা আমাদেরই হবে।

পরিশেষে বলতে চাই,অন্যের ওপর দোষ চাপিয়ে ব্যর্থতা ঢেকে রাখার কৌশল নিলে ভবিষ্যতে আর ভালো কিছু আশা করতে পারি না। কিছু দোষ ছিল, সিদ্ধান্তগত অপরিপক্ষতা ছিল, সমন্বয়ের অভাব ছিল, প্রতিপক্ষের পরিকল্পনা সম্পর্কে আমাদের অজ্ঞতা ছিল বলেই আমরা সেদিন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। তারচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবো , এখন যদি এগুলোকে উল্টোভাবে বিশ্লেষণ করা হয়।
০৮.১০.২০১৮

এই সংবাদটি 3,186 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com