মঙ্গলবার, ০৯ অক্টো ২০১৮ ০৪:১০ ঘণ্টা

শহীদ মিনারে অনুষ্ঠানের অনুমতি পত্রে আরিফের দ্বিতীয় মেয়াদের প্রথম স্বাক্ষর

Share Button

শহীদ মিনারে অনুষ্ঠানের অনুমতি পত্রে আরিফের দ্বিতীয় মেয়াদের প্রথম স্বাক্ষর

দ্বিতীয় মেয়াদে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব নিয়েই শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের সরাসরি সম্প্রচারিত অনুষ্ঠানের অনুমতি পত্রে স্বাক্ষর করেছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। সোমবার বিকেল ৪টায় নগর ভবনে মেয়রের কক্ষে করপোরেশনের সচিব মো. বদরুল হকের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

পরে নগর ভবনে তার আসনে বসেই ওই অনুমতি পত্রে স্বাক্ষর করেন বলে জানিয়েছেন সিটি কর্পোরেশনের পিআরও শাহাব উদ্দিন শিহাব। এ অনুমতি পত্রে স্বাক্ষরের মধ্য দিয়েই দ্বিতীয় মেয়াদে নগর পিতা হিসেবে দাফতরিক কাজ শুরু করলেন আরিফ।

বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল ২৪-এর নিয়মিত নির্বাচনী আয়োজন ভোটের মাঠে অনুষ্ঠানটি আগামী ১২ অক্টোবর সন্ধ্যায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। এক ঘন্টার ওই অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয়পার্টির একজন করে স্থানীয় নেতা আলোচক হিসেবে থাকবেন। এছাড়া দর্শক সারীতে সিলেটের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের অন্তত ১৫জন সদস্য অংশ নেবেন। এ অনুষ্ঠান আয়োজনে শহীদ মিনার ব্যবহারের অনুমতি চেয়ে আবেদনটি করেন চ্যানেলটির সিলেট ব্যুরো প্রধান গোলজার আহমদ।

দায়িত্ব গ্রহণের পর চেয়ারে বসে এ আবেদনপত্রে স্বাক্ষরের মাধ্যমেক দাপ্তরিক কাজ শুরু করেন মেয়র আরিফুর হক চৌধুরী। এসময় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘গত মেয়াদের অসমাপ্ত কাজগুলো দ্রুত শেষ করতে চাই। এই কাজগুলো শেষ করে নির্বাচনের ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস্তবায়ন শুরু করব। এছাড়া নগরীর বিভিন্ন সমস্যাগুলো সমাধানে কাজ করা হবে।’

আরিফ বলেন- ‘নগরীর যানজট সমস্যা সমাধানে আমার মাথায় কিছু পরিকল্পনা রয়েছে। আমার নবনির্বাচিত পরিষদের সাথে বসে এসব ব্যপারে সিদ্ধান্ত নেব। আমরা চাই কম খরচে নগরবাসীর যাতায়াতের ব্যবস্থা করে দিতে।’ এক্ষেত্রে তিনি নগরবাসীর সহযোগিতাও কামনা করেন।

এদিকে, বিকেল তিনটায় নগর ভবনে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এর আগে আরিফুল হক কয়েকজন কাউন্সিলর এবং দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে হজরত শাহজালাল (রহ.)-এর মাজার জিয়ারত করেন।

প্রসঙ্গত, সিলেট সিটি করপোরেশনের পরপর দুইবারের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ৫ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় মেয়াদে শপথ গ্রহণের পর ৮ সেপ্টেম্বর সপরিবারে লন্ডনে চলে যান। সেখানে তিনি প্রায় ২৩ দিন অবস্থানের পর ২৭ শে সেপ্টেম্বর সিলেটে ফেরেন।

এই সংবাদটি 1,015 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com