মঙ্গলবার, ১৬ অক্টো ২০১৮ ০৪:১০ ঘণ্টা

জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শুরু, দফায় দফায় আসছে গুলির শব্দ

Share Button

জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শুরু, দফায় দফায় আসছে গুলির শব্দ

নরসিংদীর শেখেরচরের ভগীরথপুরে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে কাপড় ব্যবসায়ী বিল্লাল হোসেনের পাঁচতলা বাড়িতে সোয়াত টিমের অভিযান চলছে। বাড়িটি থেকে গুলির শব্দ পাওয়া গেছে।মঙ্গলবার সকাল ১০টা ১০ মিনিটে ঢাকা থেকে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম এলে সোয়াতের টিম এ অভিযান শুরু করে।
বাড়িটি থেকে বেলা সাড়ে ১১টা থেকে প্রায় ঘণ্টাখানেক দফায় দফায় গুলির শব্দ পাওয়া গেছে।দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারী ঘটনাস্থলে যান।তখনও গুলি শব্দ শোনা যাচ্ছিল।এদিকে মাধবদী পৌরসভার গাংপাড় এলাকার আফজাল হাজীর ‘নিলুফা ভিলা’ নামে একটি ভবনও জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ঘিরে রেখেছে পুলিশ। বিল্লাল মিয়ার বাড়িতে অভিযান শেষে সেখানে অভিযান শুরু হবে বলে জানা গেছে। দুটি বাড়িতে নারী-পুরুষসহ অন্তত পাঁচ জঙ্গি রয়েছে বলে ধারণা পুলিশের।
পুলিশ বাড়ি দুটির আশপাশের বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়ার পর ৫০০ গজের মধ্যে ১৪৪ ধারা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন।মাইকিং করে কাউকে বের না হতে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট ও র‌্যাব সদস্যরা এলাকা দুটি ঘিরে রেখেছেন। দুই জায়গাতেই উপস্থিত হয়েছে ফায়ার ব্রিগেডের গাড়ি ও চিকিৎসক দল।
মনিরুল ইসলাম সকালে নরসিংদীতে পৌঁছে সাংবাদিকদের বলেন,একাধিক জঙ্গি আছে সে বিষয়ে আমরা নিশ্চিত হয়েছি।তাদের কাছে কী ধরনের অস্ত্র বা বিস্ফোরক থাকতে পারে,সে বিষয়ে আমাদের একটি ধারণা আছে।ঢাকা মহানগর পুলিশের এ অতিরিক্ত কমিশনার বলেন,সোয়াত অভিযান চালাবে। তার আগে আমরা চেষ্টা করছি নেগোশিয়েট করার,যাতে তারা আত্মসমর্পণ করে।আশপাশের লোকজনের যাতে ক্ষতি না হয়,সে বিষয়ে আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছি।
নরসিংদীর পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন বলেন,কাউন্টার টেররিজম ইউনিট ও পুলিশ সদর দফতরের ল ফুল ইন্টারসেপশন সেলের (এলআইসি) সদস্যরা সোমবার রাত ৯টার দিকে ওই বাড়ি দুটি ঘিরে ফেলেন।পরে র‌্যাব তাদের সঙ্গে যোগ দেয়। মঙ্গলবার ভোরে সোয়াত সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছেন।
এর মধ্যে মাধবদী পৌরসভার ছোট গদাইরচরের সাত তলা নিলুফা ভিলার মালিক হাজী মো. আফজাল হোসেন নামে এক ব্যক্তি।ওই ভবনের পঞ্চম তলার একটি ফ্ল্যাটে জঙ্গিরা অবস্থান করছে বলে পুলিশের ধারণা।ভবনটির প্রথম থেকে তৃতীয় তলা পর্যন্ত রয়েছে মিফতাহুল জান্নাহ মহিলা মাদ্রাসা।
আর শেখেরচরের ভগীরথপুরের পাঁচ তলা বাড়িটির মালিক বিল্লাল হোসেন নামে এক কাপড় ব্যবসায়ী।ওই ভবনের পঞ্চম তলায় এক নারীসহ দুই জঙ্গি অবস্থান করছে বলে খবর রয়েছে পুলিশের কাছে।ভবনটির ছাদেও পুলিশ সদস্যদের অবস্থান নিতে দেখা গেছে।
ভগীরথপুরের বাড়িটি ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক থেকে দুশ মিটারের মধ্যে।সেখান থেকে মোটামুটি দুই কিলোমিটার দূরত্বে ছোট গদাইরচরের বাড়িটি।দুটি বাসাই এ মাসের ৭ তারিখে ভাড়া নেয়া হয়েছে বলে বাড়ির মালিকদের পক্ষ থেকে পুলিশকে জানানো হয়েছে।
পুলিশ কর্মকর্তারা জানান,আশপাশের বাসিন্দাদের সরিয়ে নেয়ার পর দুই বাড়ির গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।ফায়ার ব্রিগেডের গাড়ি এনে রাখা হয়েছে দুই বাড়ির কাছাকাছি।সকালে বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দলের সদস্যদেরও সেখানে উপস্থিত হতে দেখা গেছে। পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি আবদুল্লাহ আল মামুন এবং নরসিংদীর সিভিল সার্জনও উপস্থিত হয়েছেন মাধবদীতে।

এই সংবাদটি 1,080 বার পড়া হয়েছে

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক।  ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী।  ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’  কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’  রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক। ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী। ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’ কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’ রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com