সোমবার, ২৯ অক্টো ২০১৮ ০২:১০ ঘণ্টা

প্রিন্সিপাল হাবীবুর রহমান সম্পর্কে উবায়দুল্লাহ ফারুক যা বললেন

Share Button

প্রিন্সিপাল হাবীবুর রহমান সম্পর্কে উবায়দুল্লাহ ফারুক যা বললেন

শ্রুতলিখন, মাওলানা ইমরান হুসাইন চৌধুরী, সিলেট রিপোর্ট:
নাহমাদুহু ওয়ানুসাল্লি আলা রাসুলিহিল কারিম। আম্মা বাআদ। আজকের সভার সভাপতি ও সম্মানিত উপস্থিতি, আল্লাহ জাল্লা জালালুহু আম্মা নাওয়ালুহুর অসংখ্য ফজল আর অনুগ্রহের বদৌলতে আজ আমরা এই দোয়া মাহফিলে উপস্থিত হয়েছি । দোয়া মাহফিল আবার যে কারো নয়, একজন সাহসী হস্তির।
যার সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রেখেগেলেন মাও. শাহ মমশাদ সাহেব ও আমার মাওলানা মুখলিসুর রহমান। আমি মাও. হাবীবুর রহমান সম্পর্কে কী বলব! তিনি ছিলেন একজন সাহসী ইনসান। আমার সাথী। আমরা ছাত্র জামানায় একসঙ্গে কাজ করেছি। তখনও তিনি লেকচার দিতে পারতেন খুব। বক্তৃতার ক্ষেত্রে আমাদের থেকে তিনি অনেক উপরের দরজার। ছাত্র জামানায় যখন মাও. হাবীবুর রহমান সাহেবের দাড়িও গজায় নি তখনও তিনি বড়দের সঙ্গে কাজ করতেন। আমার আজও মনে পড়ে। সত্তরের আগে সিলেট আলীয়া মাঠে আওয়ামীলীগ একবার সমাবেশ করেছিল। মানুষ প্রচুর হয়েছিল। তখন সমাবেশ শেষে সিলেটের ব্যবসায়ীরা বলাবলি শুরু করল, দেখা যাবে আমাদের আলেমদের মাহফিলের কাছে ভিড়তে পারে নি তাদের সমাবেশ। কারণ তখন আলেমদের একমাত্র দল ছিল জমিয়ত। এর কিছুদিন পর মুফতি মাহমুদ রহ. ও আব্দুল্লাহ দরখাতি রহ. সিলেট এলেন।জমিয়তের পক্ষ থেকে তিনদিন ব্যাপী নেযামে ইসলাম কনফারেন্সের ডাক দেওয়া হল। মাও. হাবীবুর রহমান ছাত্রদের নেতা ছিলেন। আমরা তখন তার নেতৃত্বে মাহফিল সফলের লক্ষ্যে মুরব্বীদের ডাকে সাড়া দিতাম। কনফারেন্সের স্থান ছিল শহী ঈদগাহ। লোকে লোকারণ্য হল মাহফিলস্থল। সেই মাহফিলটির সফল ছাত্রনেতা ছিলেন তিনি। তিনি তখন বেবী টেক্সিতে মাইক লাগিয়ে প্রচার বুলেটিন করতেন। আমরাও সাথে থাকতাম। বলতেন, নেযামে ইসলাম কনফারেন্স, যোগদিন সফল করুন। যেন আজও আমার কর্ণকুহরে সেই মিছিল ও সমাবেশের শব্দগুলো ভাসছে। আমি তখন জাহেল ছিলাম। বড়রা কি বক্তব্য দিতেন তা বুঝতাম না। সেদিন আল্লামা বায়ম্পুরী যে ভাষণ দিয়ে ছিলেন যদি বুঝতাম, তাহলে আজ আমাদের রাষ্ট্রীয় জীবন সফল হত। ঘোটা বিশ্বের কাছে তা আলোচিত হয়ে থাকত।

মাও. হাবীবুর রহমান সম্ভবত ফাজিল পড়েছেন ফুলবাড়ী আলিয়াতে। আর কামিল পড়েছেন সিলেট আলিয়া মাদ্রাসায়। তখন মজলিস ছিলনা। সবাই ছিলেন জমিয়তি। এমনকি অঘোষিতভাবে সিলেটের সকল কওমী মাদ্রাসা ছিল জমিয়তের অফিস। শায়খে কৌড়িয়া ও শায়খে বাঘা রহ. মিটিং এর ডাক দিতেন। সকল উলামায়ে কেরাম তাদের ডাকে সাড়া দিতেন।
আমরা ছাত্র সংঠনে কাজ করতাম। জমিয়তে তালাবায়ে ইসলাম ছিল ছাত্রদের সংগঠন। জমিয়তের যেকোনো কাজে তিনি ফুলবাড়ী থেকে আর আমি আকুনি মাদ্রাসা থেকে যোগ দিতাম। নয়াসড়ক মাদ্রাসায় ছোট্ট একটি অফিস ছিল। তরবিয়াতি মাহফিল ও বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হত। মাও. হাবীবুর রহমান তখন অগ্রণী ভূমিকাপালন করতেন। লেকচার দিতেন। জযবাতি বক্তব্য দিতেন। খুব জোশে কথা বলে মাহফিল গরম করে ফেলতেন।
মহান আল্লাহ তা’লা খুব কম সময়ে তাঁর থেকে অনেক কাম নিয়েছেন । যেকোনো কাজ খুব সাহসীকতার সঙ্গে আঞ্জাম দিতেন। প্রশাসনের তওয়াক্কা করতেন না। বিপদে পড়েবন কি না এরও তওক্কা করতেন না। কেউ আসবে কি না তারও চিন্তা করতেন না। অনেক সময় বাতিলের বিরুদ্ধে একাই গর্জে উঠতেন। আল্লাহর রহমতে তার এখলাসের বদৌলতে পরবর্তীতে সবাই চলে আসতো। তাকে সহায়তা করত।

অনেকদিন আমরা জমিয়তে ছিলাম। হাফিজ্জী হুজুর নাউওয়ারাল্লাহু মারকাদাহু এর নির্বাচনের সময়ে জমিয়তিরা নিজেদের কার্যক্রম স্থগিত করে পলিটেকেল নেতৃত্বকে হাফিজ্জী হুজুর রহ. এর হাতে সোপর্দ করল। এবং জমিয়ত হয়েগেল নন পলিটিকেল সংগঠন। হাফেজ্জী হুজুর তখন এতদিন রাজনীতির সঙ্গে জড়িত না থাকায় তাওবাত ডাক দিয়েছিলেন।

পাকিস্তান আমলে বাইরের কেউ কেউ মাদানী থানবী বলে ফিৎনা ছড়াত। তখন হযরত শায়খে কৌড়িয়া আর মামরখানী রহ. সকল উলামায়ে কেরাম বললেন, আমরা হাফিজ্জি হুজুরের নেতৃত্বে এক হয়ে দেখিয়ে দিই আমরা এক ঘরের সন্তান। সবাই এক হয়েগেলেন। নির্বাচন করলেন। আর এই নির্বাচনে মূল কাজ আঞ্জাম দেন আল্লামা শামসুদ্দীন কাসেমী রহ.
অনেকে বলতে পারেন যে, মাও. হাবীবুর রহমান ও অন্যান্য উলামায়ে কেরাম জমিয়ত ভেঙ্গে খেলাফত মজলিস করেছেন। কিন্তু তা ভুল। বরং জমিয়ত তার কার্যক্রম বন্ধ করে হাফিজ্জী হুজুর রহ. এর নেতৃতে মেনে নিল। কিছুদিন পর বিভিন্ন কারণে জমিয়ত সরে এলো।
এই আসার সময় জমিয়তের অনেক এসেছেন আবার অনেকেই থেকেগেছেন। বড়দের মধ্যে কৌড়িয়া, মামরখানী, শায়খুল হাদীস রহ. এবং কমবয়সীদের মধ্যে মাও. হাবীবুর রহমানসহ অসংখ্য জমিয়তি থেকেগেছেন। পরবর্তীতে শায়খুল হাদীস সাহেবও চলে এলেন। বুঝা গেল জমিয়ত ভেঙ্গে খেলাফত মজলিস বা অন্যান্য দল হয় নি। জমিয়তের যারা রয়ে গিয়েছিলেন তাদের কেউ কেউ এখনও আছেন। আবার অনেকেই জমিয়তে চলে এসেছেন।

আমরা সময়ের ব্যবধানে বিভিন্ন রাজনৈতিক পরিচয়ে পরিচিত হলেও আমরা একঘরের সন্তান। একই মসলক, একই মক্তবে ফিকর ও একই তরবিয়াত ইয়াফতাহ।
কখনও ইসলামী বিরোধী শক্তিরোধে আমরা ভিন্ন থাকে নি। একই কাতারে দাঁড়াতে আমরা কখনও পিছিয়ে ছিলাম না। যোগপথ আন্দোলনে আমরা এক এবং অভিন্ন আছি এবং থাকব।

মাও. হাবীবুর রহমান রহ. যেকোনো বাতিলের সঙ্গে আপোষহীন। তার শক্তি ছিলেন শায়খ আব্দুল্লাহ হরিপুরী রহ.। তাসলিমা বিরোধী আন্দোলন, দাউদ হায়দার ও সালমান রুশদি বিরোধী আন্দোলনে তিনি ছিলেন অগ্রসৈনিক।
ড. ফজলুর রহমান বিরোধী আন্দোলনে তিনি ছিলেন এক অপ্রতিরোধ্য যুবক। আমার স্মরণ হয়, আমি তখন রাণাপিং মাদ্রাসায় ছিলাম। মিছিল হল মাওলানার নেতৃত্বে। রাণাপিং থেকে সুরমা ডাইক হয়ে কারখান বাজার পর্যন্ত পুরো রাস্তা ভরে গিয়েছিল মানুষের উপস্থিতিতে।

সময়ের ব্যবধানে মাওলানা মজলিসের নেতৃত্ব পেলেন। একপর্যায়ে দলের আমীরও হলেন। যেমন তেমন কোন নেতা ছিলেন না। খুব পাওয়ারফুল নেতা ছিলেন। অনেক সময় এমন হয়েছে যে, মাহফিলে অধিকাংশ মতের উলটো তিনি মতামত দিতেন। সবাই মেনে নিত। আবার এর ফলাফলও ভালো হত।
তিনি দ্বীনের নানাবিধ খেদমত করেছেন। জামিয়া মাদানিয়া তার অন্যতম।

সম্মানিত উপস্থিতি, আমরা যারা প্রিন্সিপালের জীবনী শোনলাম এখানেই কী আমাদের দায়িত্ব শেষ? আমরা তাঁর জীবন থেকে শিক্ষা নিতে হবে। তিনি যেভাবে আমল বিল মারুফ এর সঙ্গে জড়িত ছিলেন আমরাও জড়িত হতে হবে। নাহি আনিল মুনকার এর ক্ষেত্রে তার মতো আপোষহীন হতে হবে।
একটা কথা না বললে নয়, আমাদের জানা দরকার আমরা রাজনীতি না করলে এর বিরোধীতা করব না। যার রাজনীতি ভালো লাগে না তিনি অন্তত ছাত্রদের পথ দেখিয়ে দিন যে, এই এই সংগঠন আমাদের। এগুলোর নজরিয়া ভালো। আকীদা ভালো।
আল্লাহ জাল্লা জালালুহু আম্মা নাওয়ালুহু মরহুম প্রিন্সিপাল রহ.সহ আমাদের আকাবিরদের ক্ষমা করত জান্নাতের উঁচু আসনে সমাসীন করুন। আমীন ।

(গত ২৬-১০-১৮ ইসায়ি শুক্রবার দারুল হাদীস রাজাগঞ্জ মাদ্রাসা মাঠ প্রিন্সিপাল হাবীবুর রহমান রহ. এর জীবন কর্মশীর্ষক আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে তিনি এই বয়ান প্রদান করেন। )

এই সংবাদটি 1,171 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com