মঙ্গলবার, ৩০ অক্টো ২০১৮ ১২:১০ ঘণ্টা

বর্তমানে অনেক ‘হাদিয়া’ ঘুষে পরিণত হয়ে গেছে : আল্লামা বাবুনগরী

Share Button

বর্তমানে অনেক ‘হাদিয়া’ ঘুষে পরিণত হয়ে গেছে :  আল্লামা বাবুনগরী

হাটহাজারী প্রতিনিধি: হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও হাটহাজারী মাদরাসার সহযোগী পরিচালক আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, বর্তমান পরিস্থিতি খুবই নাজুক। সবকিছুতেই আজ প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে হারামের সংমিশ্রন দেখা যাচ্ছে৷ হালাল গ্রহণ করে হারামের সংমিশ্রন থেকে আমাদের বাঁচতে হবে৷ বর্তমান সময়ে যেসব হাদিয়ার কথা বলা হয়, মূলত: সেগুলো হাদিয়া নয়। অনেক হাদিয়াও এখন ঘুষে পরিণত হয়ে গেছে। হাদিয়ার নামে ঘুষের লেনাদেনা হয়৷ তাই এখন হাদিয়া গ্রহণেও সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।
গতকাল (২৮ অক্টোবর) রবিবার বাদ মাগরিব দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার দারুল হাদীস মিলনায়তনে সর্বোচ্চ হাদীসগ্রন্থ ‘বোখারী শরীফে’র পাঠদানকালে ৫১৬৪নং হাদীসের ব্যাখ্যায় “হালাল গ্রহণ” সংক্রান্ত আলোচনায় তিনি এসব কথা বলেন।
আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন, বর্তমানে অনেকেই হালাল-হারামের কোন তোয়াক্কা করেন না৷ অথচ পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তা’য়ালা হালাল গ্রহণ এবং হারাম থেকে বেঁচে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন৷ তাই মুসলমান হিসেবে সর্বক্ষেত্রে আমাদের হালাল হারামের বাছ-বিচার করে চলতে হবে৷ হালাল-হারাম সু-স্পষ্ট৷ আর দু’য়ের মধ্যবর্তি হলো ‘মুশতাবাহা’ বা সন্দেহজনক। তাই হালাল গ্রহণ করে হারাম এবং সন্দেহযুক্ত জিনিস বর্জন করতে হবে৷
তিনি আরো বলেন, পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তা’য়ালা বলেছেন, তোমরা হালাল ভক্ষণ করো এবং নেক আ’মাল করো৷ বর্তমানে আমাদের খাদ্যে ভেজাল৷ আমাদের খাবারে আজ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ হারামের সংমিশ্রণ মিলে। যে কারণে দেখা যায়, আপদ-বিপদ ও ক্ষতিকর পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পেতে অনেক দোয়া-মুনাজাত করা হয়, কিন্তু তা কবুল হওয়ার কোন আলামত আমরা দেখতে পাই না৷
তিনি বলেন, মনে রাখতে হবে- আমালে ছালেহা বা নেক আমল কবূল হওয়ার পূর্বশর্ত হলো হালাল ভক্ষণ করা এবং হারাম থেকে বেঁচে থাকা৷ খাবারে হারামের উপস্থিতি থাকলে যত দোয়াই করা হোক, দোয়া কবুল হবে না।
আল্লামা বাবুনগরী বলেন, খাদ্য গ্রহণে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। হাদীস শরীফে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, হারাম ভক্ষণকারীর শরীর জান্নাতে প্রবেশ করবে না৷ তাই খুব যাচাই বাছাই করে খাদ্য ভক্ষণ করতে হবে এবং সর্বক্ষেত্রে বাছ-বিচার করে চলতে হবে৷
প্রখ্যাত মুহাদ্দিস বাবুনগরী ব্যাখ্যার শেষ পর্যায়ে আরো বলেন, হাদিয়া দেয়া-নেয়া সুন্নাত৷ হাদীয়া আদান প্রদানে মুহাব্বাত বাড়ে৷ তবে বর্তমানে অনেক হাদিয়া ঘুষে পরিণত হয়ে গেছে৷ বর্তমানে স্বার্থ হাসিলের জন্য হাদিয়া প্রদান করা হয়৷ হাদিয়ার মাধ্যমে বশে আনার চেষ্টা করা হয়, হাদিয়া দিয়ে অনৈতিক কাজে জড়িত করানো হয়৷ তাই আমাদেরকে যেই সেই হাদিয়া গ্রহণ এবং হালাল-হারামের ব্যপারে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

এই সংবাদটি 2,078 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com