বৃহস্পতিবার, ০১ নভে ২০১৮ ০৬:১১ ঘণ্টা

প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা ও প্রাসঙ্গিক আলোচনা

Share Button

প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা ও প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাোলানা আব্দুল মুক্বীত জালালাবাদী :
(ক) একটি হাদীস স্মরণ করিয়েই আলোচনা শুরুকরি। হযরত নবী করীম সা. ইরশাদ করেছেন, আল্লাহ তাআলা কোনো কোনো সময় ফাসিক ও ফাজির ব্যক্তিবিশেষের কাছ থেকে ইসলামের খেদমত ও সাহায্য নিয়ে থাকেন। (বুখারী শরীফ)।
(খ) আমার ব্যক্তিগত মত হিসেবে আল-হাইয়াতুল উলিয়ার সিদ্ধান্তের আগে স্বীকৃতির জন্য শুকরিয়া মিছিল এবং অভিনন্দনবার্তা পর্যন্ত পক্ষে ছিলাম এবং সংবর্ধনাকে অতিরঞ্জন ও বাড়াবাড়ি হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলাম। এরপর যখন শুকরিয়া মাহফিল ও সংবর্ধনার সিদ্ধান্ত হয়ে গেলো,তখন তা মন থেকে এই ভেবে মেনে নিলাম যে,হয়তো সেখান থেকে ইসলামের জন্য কোনো সুসংবাদ আসাটা অসম্ভব নয়। তাছাড়া বড়রা বুঝে-শুনে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। স্বীকৃতির ব্যাপারে তাঁদের উপর আস্থা রাখা গেলে এ ব্যাপারে আস্থা রাখা যাবে না কেনো?
(গ) আল-হাইয়াতুল উলিয়ার শুকরিয়া মাহফিল এবং প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনা নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে বিস্তর আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে এবং হচ্ছে। এতে অনেক সুন্দর মতামত প্রকাশিত হয়েছে। অনেকে অবস্থানের প্রতি লক্ষ্য না রেখে অনেক কুৎসিত মতামত অশালীন এবং অসাধু ভাষায় প্রকাশ করেছেন; যা বড়দের ব্যাপারে কাম্য নয়।
(ঘ))সংবর্ধনারসহ সাম্প্রতিক অন্যান্য ব্যাপারে ফেবুতে বড়দের মতামত তেমন পাওয়া যায় না। যেহেতু তাঁদের প্রায় ৯৫% অনলাইন ব্যবহার করেন না। অনেকে ব্যবহার করতে চান, কিন্তু বেআদব প্রজন্মের ভয়ে আসতে চান না। কারণ যাঁকে কাছে পেলে কদমবুসি করার কথা (বিদআতমার্কা কদমবুসি নয়), তাঁকে ফেবুতে লাথি মারা হয়। আর যাঁদের মত পাওয়া যায়, তাঁরা ফেবু ডটকম প্রজন্মের বড় বড় ইসলামী চিন্তাবিদ ও মহামনীষীদের! তাঁদের আক্রমণাত্মক ভাষা অনেক সময় বিবেকের রক্তক্ষরণ হয়। আমি হলফ করে বলতে পারি, যাঁরা ফেবুতে বড়দের নিয়ে তুলোধোনা করেন, তাঁরা বড়দের সামনে গিয়ে জি হুজুর-জি হুজুর ছাড়া কোনোদিন টুঁ শব্দও করতে পারবেন না! সামনে আদব-এহতেরাম আর পেছনে বেআদবি আর বড় বড় সমালোচনা এ কেমন দ্বিচারিতা?
তাই সমালোচনা করার আগে মনে মনে ভাবতে হবে,আমি যাঁর সমালোচনা করছি, তাঁর সামনে বসেই মতবিনিময় করছি। তাহলে আমাদের ভাষা অনেক শালীন ও মার্জিত হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ। বড় কথা, আমাদেরকে সবসময় গোনাহে জারিয়ার বিষয়টিও স্মরণে রাখতে হবে।
(ঙ) সমালোচনার বড় কারণ দুটি। একটি রাজনৈতিক এবং অপরটি শাপলাচত্বর কেন্দ্রিক। কওমিদের মধ্যে যাঁরা বিএনপি জোটভুক্ত, তাঁদের সমালোচনা রাজনৈতিক হিসেবে সমাজে বিবেচিত হয়েছে ও হচ্ছে। আর শাপলা নিয়ে যাঁরা সমালোচনা করছেন, তাঁদের সিংহভাগের মতামতকে আবেগের আয়নায় দেখা হচ্ছে। অপরদিকে জামায়াত-শিবির, বিএনপি, বিদআতি, সুন্নি-শিন্নি ও মাজারপন্থীদের সমালোচনা স্বার্থে আঘাত, অন্তর্জ্বালা ও বিদ্বেষকেন্দ্রিক।
তাই চিন্তা ও বিবেচনা করার জন্য কওমি সমাজের খেদমতে অধমের বিনীত কিছু গোযারিশ :
(১) স্বীকৃতি আর হেফাজত যেমন এক নয়, তেমনি শাপলার আন্দোলন আর স্বীকৃতির আন্দোলন এক নয়। যদিও উভয়ের নেতৃত্ব একই ব্যক্তি দিয়েছেন এবং দিচ্ছেন। আর এটাও কওমির একটা নীতি। যিনি মুহতামিম, তিনি সবকিছু! তাঁকে রাজনৈতিক বা সামাজিক সংগঠনের কোনো বড় পদের মালিক বানানো হয় এবং তাঁকেই শিক্ষাবোর্ডের দায়িত্ব দেয়া হয়। আবার তিনিই ওয়ায়েজ-বক্তা বা মাহফিলের সভাপতি ইত্যাদি। অর্থাৎ,এক ব্যক্তিকে হরফন মৌলা এবং সকল কাজের কাজী বানানো হয়। এরও অনেক কারণ আছে। এখানে বিস্তারিত বলা অপ্রাসঙ্গিকতা ছাড়া আর কিছু নয় বিধায়, কওমির এই রীতি মাথায় রাখলে শাপলা,স্বীকৃতি এবং সংবর্ধনাবিষয়ক অনেক প্রশ্নের সমাধান এমনি বেরিয়ে আসবে বলে আমার ক্ষুদ্র বিশ্বাস।
(২) হেফাজতের কর্মসূচি ছিল অবরোধ, তাহলে মধ্যখানে মিসরের তাহরীর স্কয়ার এবং থাইলেন্ডের সরকারবিরোধী লালবাহিনীর মত ধর্মপ্রাণ জনতাকে শাপলায় জমা করে অবস্থান করার এবং সরকার পতনের ডাক দেয়ার জন্য দায়ী কারা? আল্লামা শাহ আহমদ শফী বা হেফাজতের এমন কোনো ঘোষণা ছিলো না বরং হেফাজতের সবসময় পরিষ্কার বক্তব্য ছিলো এবং আছে, আমাদের আন্দোলন ঈমানী আন্দোলন, আমাদের আন্দোলন নাস্তিক-মুরতাদবিরোধী আন্দোলন, আমাদের আন্দোলন কাউকে ক্ষমতায় বসানো বা হটানোর জন্য নয়। তাই সঙ্গত কারণে বলতেই হয় যাঁরা দায়ী, তাঁরা হেফাজতভুক্ত সরকারবিরোধী কতিপয় উলামায়ে সিয়াসত (সবাই নয়)। তাঁরাতো বিএনপি ও জামায়াতের বাতাসভোগী কিছু চিহ্নিত লোক। যাঁদেরকে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী হওয়ার খুওয়াব দেখানো হয়েছে। আর যায় কোথায়? পুটি মাছের লাফালাফি শুরু! ফলে জাতি,সমাজ এবং আন্দোলনের উপস্থিত সর্বনাশ!
(৩) দিনের বেলা জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা আগুন সন্ত্রাস এবং করাত (গাছকাটা) সন্ত্রাস চালালো আর রাতের বেলা খালেদা জিয়ার দরদি আহবান! বোদ্ধামহলের দৃষ্টিতে, ইসলামীজনতাকে মার খাওয়ানোর জন্য বিএনপিনেত্রী দায়ী। তিনি রাত আটটায় ঢাকাবাসী তথা দলীয় নেতাকর্মীকে আলিমদের সাহায্যে এগিয়ে আসার আহবান জানালেন;ভালো কথা, কয়জন নেতাকর্মী বাসা থেকে বের হলো? আর কতজন সাহায্যের ঝুলি নিয়ে এগিয়ে আসলো? অথচ তাঁর ঘোষণার পর পরইতো সরকার নড়েচড়ে বসে। এটাতো হওয়ার স্বাভাবিক কথা। তখন যদি বিএনপি ক্ষমতায় থাকতো, তাহলে কি করতো? আলিমদেরকে কুলে নিয়ে বাহ বাহ দিত? তাইবলে, সরকারের এহেন ঘৃণ্য ও অক্ষমার্য্য অপরাধ কোনোদিনই সমর্থনযোগ্য নয়, এটা সরকার ও আওয়ামীলীগের জন্য একটি কুৎসিত কালো অধ্যায় হিসেবে চিরকাল ইতিহাসে ভাস্বর হয়ে থাকবে।
(৪) শাপলার ভুল বুঝতে পেরে এবং এর প্রায়শ্চিত্ত দিতে গিয়ে সরকার নিজেদের পক্ষ থেকে আলিমদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলে বারবার আমলি তাওবা করছে। যদি আলিমসমাজ গায়ে পড়ে সরকারের সাথে সম্পর্ক করতেন, তাহলে সমালোচনা করার একটা যৌক্তিকতা থাকতো। তাওবার ফল হিসেবে সরকার থেমিস মূর্তি অপসারণসহ স্কুলের পাঠ্যপুস্তক থেকে ইসলামবিরোধী বক্তব্য প্রত্যাহার করেছে। কওমিদের উপর থেকে জঙ্গিবাদের দুর্নাম অবলুপ্ত করেছে। ফতোয়াবিরোধী রায় বাতিল করেছে এবং শর্তহীনভাবে আলিমসমাজের ইচ্ছা ও চিন্তাধারার প্রতিফলন ঘটিয়ে কওমি সনদের স্বীকৃতি দেয়ার কৃতিত্ব অর্জন করে বিএনপির গায়ে চিরদিনের জন্য কালিমা লেপন করেছে।

লেখক, শিক্জাষাসচিব-জামেয়া দারুল হুদা সিলেট ।

এই সংবাদটি 1,257 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com