বৃহস্পতিবার, ০৮ নভে ২০১৮ ০৬:১১ ঘণ্টা

শিক্ষামন্ত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝাড়লেন গোলাপগঞ্জের আ.লীগ নেতাকর্মীরা

Share Button

শিক্ষামন্ত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝাড়লেন গোলাপগঞ্জের আ.লীগ নেতাকর্মীরা

ডেস্ক রিপোর্ট :
সিলেট-৬ আসনের আসনের সংসদ সদস্য শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের বিরুদ্ধে একাট্রা গোলাপগঞ্জের আওয়ামী লীগ পরিবার। উপজেলা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে সভা হচ্ছে তার বিরুদ্ধে। সর্বশেষ বুধবার উপজেলা আওয়ামী লীগের কর্মী সমাবেশে ক্ষোভ ঝাড়ের ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। সভায় তারা বলছেন, নুরুল ইসলাম নাহিদকে এমপি নির্বাচিত করেছেন দলীয় নেতাকর্মীরা। এর পর হয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। হয়েছেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য।
অথচ উপজেলা আওয়ামী লীগের কোন মূল্যায়ন নেই তার কাছে। এমনকি দেখা করতে চাইলেও সুযোগ দেয়া হয়নি। বিভিন্ন এলাকায় সরকারি সফরে এসে কর্মী সভার নাম করে তিনি সভা করেন। এসব সভায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানের ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের নিয়ে করেন এসব দলীয় সভা।অথচ এসব সভায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দাওয়াত করা হয় না।এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে প্রায় ১০ বছর যাবত উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে দলীয় নেতাকর্মীদের সম্পৃক্ত করা হয় না।উপজেলার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের কমিটিতে দেয়া হয়েছে জামাত ঘেষা লোকদের। এমনকি বাঘায় একটি সভায় জামাতের এক নেতা সভাপতিত্ব করেছেন বলেও অভিযোগ করেছেন নেতাকর্মীরা।
তারা বলেন, বর্তমানে ‘বিশেষ সহকারী, আস্থাভাজন ও হাইব্রীড’ দের কাছে জিম্মি উপজেলা ত্যাগী পরিক্ষিত দলীয় নেতাকর্মীরা। কমিটি করতে চাইলেও তারা বাধাঁ হয়ে দাডান।যার ফলে আওয়ামী লীগের কোন কমিটি নেই ১০ বছর যাবত। এছাড়া ছাত্রলীগের অবস্থা একই।সভায় বিভিন্ন ওয়ার্ডের দলীয় নেতাকর্মীরা বলেন,উপজেলা আওয়ামী লীগ এখন ধবংসের দ্বরপ্রান্তে। জননেত্রী শেখ হাসিনা তাকে বার বার মনোনয়ন দিয়েছেন।আর তাকে নির্বাচিত করেছেন দলীয় নেতাকর্মীরা। কিন্ত ফল হয়েছে উল্টো। আগামী নির্বাচনে সঠিক মাঝির হাতে নৌকা তুলে দিতে জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরুধ করেন বক্তারা।
অভিযোগ করে নেতাকর্মীরা আরও বলেন, শিক্ষামন্ত্রী কয়েকজন ব্যক্তিকে নিয়ে ঘুরে বেড়ালেও তার কাছে ভিড়তে পারেন না আওয়ামী লীগের লোকজন।শিক্ষামন্ত্রীর বিশেষ সহকারী,আস্থাভাজন ও হাইব্রীডরা লুটেপুটে খাচ্ছে। সঠিক উন্নয়নও হচ্ছে না এ উপজেলায়।তারা বলেন, নাহিদ ছাড়া নেত্রী নৌকা যাকে দিবেন তাকেই তারা ভোট দেবেন।
উপজেলার সদরে একটি কমিউনিটি সেন্টার এ সভা অনুষ্টিত হয়। আওয়ামী লীগের কর্মী সভা হলেও এতে যোগ দেন বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মী। ফলে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। সভায় সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোটে ইকবাল আহমদ চৌধুরী।

এই সংবাদটি 1,015 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com