শুক্রবার, ১৬ নভে ২০১৮ ০৭:১১ ঘণ্টা

আয়কর মেলা: সিলেটে ৩য় দিনে আদায় ১০ কোটি টাকা

Share Button

আয়কর মেলা: সিলেটে ৩য় দিনে আদায় ১০ কোটি টাকা

সিলেট রিপোর্ট:  সিলেটে আয়কর মেলার ৩য় দিনে ১০ কোটি ৪ লাখ ৫৫ হাজার ৬৩০ টাকা কর আদায় হয়েছে। মেলা থেকে সেবা গ্রহণ করেছেন ৩ হাজার ৪০১ জন, রিটার্ণ দাখিল করেছেন ৯৮৮ জন এবং নতুন ইটিআইএন নিয়েছেন ৬৭ জন।

একই দিনে সুনামগঞ্জ জেলায় মেলার ২য় দিনে ১৩ লাখ ৬৩ হাজার ৫২০ টাকা কর আদায় হয়েছে। সেবা নিয়েছেন ১ হাজার ৮১ জন, নতুন ইটিআইএন প্রদান করা হয় ১৬ জনকে এবং ২৮৩ জন রিটার্ন দাখিল করেন। মৌলভীবাজার জেলার মেলায় ১ম দিনে মোট ৮৪৫ জন করদাতা সেবা গ্রহণ করেন, নতুন ইটিআইএন প্রদান করা হয় ৮ জনকে এবং মোট ৬২৬ জন করদাতা রিটার্ন দাখিল করেন।
হবিগঞ্জ জেলার মেলায় ১ম দিনে ৮ লাখ ২০ হাজার ৪৫৩ টাকা কর আদায় করা হয়েছে। মেলায় সেবা নিয়েছেন ৭১২ জন,নতুন ১৫ জনকে ই-টিআইএন প্রদান করা হয় এবং ৩৪৫ জন করদাতা রিটার্ন দাখিল করেন।
বালাগঞ্জ উপলোর ভওাম্যমান কর মেলায় ১২৯ জন করদাতা সেবা গ্রহণ করেন, মোট ৯৩ জন করদাতা রিটার্ন দাখিল করেন এবং কর আদায়ের পরিমাণ ৫৭ হাজার টাকা।
গত বুধবার মেলার দ্বিতীয় দিনে দ্বিতীয় দিনে ৩ কোটি ৭৭ লাখ ২৮ হাজার ৯৮৮ টাকা কর আদায় হয়, ১ হাজার ৮৩০ জন, নতুন ইটিআইএন নিয়েছেন ৮৩ জন। এদিন মেলায় মোট ৯৯৬ জন করদাতা রিটার্ন দাখিল করেছেন।
এরআগে মঙ্গলবার মেলার উদ্বোধনী দিনে ২ কোটি ৩৫ লাখ ৭৫ হাজার ৭৫০ টাকা আদায় করা হয়েছে। মেলা প্রাঙ্গন থেকে সেবা নিয়েছেন ৯৮১ জন করদাতা, নতুন ইটিআইএনধারী হয়েছেন ৪০ জন। তিনদিনে মেলা থেকে ১৬ কোটি ৫ লাখ ৯০ হাজার ৩৬৮ টাকা কর আদায় করা হয়েছে।
বর্ণাঢ্য পরিবেশে স্থানীয় রিকাবী বাজারস্থ সিলেট স্টেডিয়ামের মোহাম্মদ আলী জিমনেসিয়ামে ১৩ নভেম্বর হতে কর অঞ্চল-সিলেট কর্তৃক আয়োজিত আয়কর মেলা শুরু হয়েছে। ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত এই কর মেলা চলবে।
সিলেট নগরী ছাড়াও ১৪ নভেম্বর সিলেট কর অঞ্চলের আওতাধীন সুনামগঞ্জ জেলায় এবং ১৫ নভেম্বর মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলায় ৪ দিন ব্যাপী আয়কর মেলা শুরু হয়েছে। এছাড়া ১৫ নভেম্বর সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলায় ভ্রাম্যমান আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এবারের আয়কর মেলাতে বিভিন্ন বুথ থেকে ই-টিআইএন রেজিষ্ট্রেশন, রি-রেজিষ্ট্রেশন, রিটার্ন গ্রহণ, অন লাইনে রিটার্ন দাখিলের জন্য আইডি ও পাসওয়ার্ড প্রদান এবং কর সংক্রান্ত প্র ্রয়োজনীয় সহায়তা ও পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে, জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এই সংবাদটি 1,012 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com