শুক্রবার, ১৬ নভে ২০১৮ ০৮:১১ ঘণ্টা

বি-বাড়ীয়া-২ আসনে আমিনীপুত্র হাসনাত ও জুনায়েদ হাবীবের লড়াই

Share Button

বি-বাড়ীয়া-২ আসনে আমিনীপুত্র হাসনাত ও জুনায়েদ হাবীবের লড়াই

সিলেট রিপোর্ট: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে আসতে পারে নতুন চমক। জোট-মহাজোটের হিসেব নিকেশে বড় দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপির কোন প্রার্থী এখানে মনোনয়ন নাও পেতে পারেন। পরিস্থিতি বিবেচনায় দুই জোটেরই দুটি শরীক ইসলামী দলের প্রার্থী এবার এ আসনে মনোনয়ন পেতে পারেন বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে আওয়ামীলীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশের দলের ভাইস চেয়ারম্যান মুফতি মাওলানা আবুল হাসনাত আমিনী এবং বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২৩ দলীয় জোট-ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীবের নাম শোনা যাচ্ছে।
মুফতি মাওলানা আবুল হাসনাত আমিনীর পিতা মরহুম মুফতি মাওলানা ফজলুল হক আমিনী এই আসনের বিএনপি নেতৃত্বাধীন ৪দলীয় জোট সরকারের এমপি ছিলেন। বিগত ২০১৪ সালের নির্বাচনে তিনিও এ আসন থেকে বিএনপি-জামায়াত জোটের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত জোট নির্বাচনে না আসায় সেটি হয়নি। এবার কওমীপন্থি কিছু ওলামার রাজনৈতিক মেরুকরণের ফলে আওয়ামী জোটের মনোনয়ন নিয়ে এ আসনে নির্বাচন করতে চান আবুল হাসনাত আমিনী। সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশের ইসলামী মূল্যবোধের সেন্টিমেন্টকে মোটিভেট করতে যে কোন ধরনের ছাড় দিয়ে আলেম ওলামার একাংশের সাথে ঐক্য ধরে রাখার কৌশল নিয়েছে আওয়ামী জোট। সে প্রেক্ষিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একটি আসন আওয়ামী জোটের অর্ন্তভূক্ত ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশের দাবি অগ্রাধিকার পাচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইসলামী ঐক্যজোট (একাংশ) সূত্র জানায় প্রথমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া -৩ আসন দাবি করা হলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে মহাজোট মুফতি মাওলানা আবুল হাসনাত আমিনীর মনোনয়ন প্রায় চূড়ান্ত; শুধু আনুষ্ঠানিক ঘোষণার বাকী। গত ২/১দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আওয়ামীলীগের কিছু কিছু প্রার্থীর সমর্থকরা বহিরাগত বর্জনের দাবি করছে। এতে অন্য কিছু একটা ঘটতে যাচ্ছে এমনটাই আঁচ করা যায় বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের দাবি।

এদিকে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২৩ দলীয় জোট-ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হতে চান জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব।
জমিয়তের মহাসচিব শায়খুল হাদীস আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী জানান, তারা জোটের কাছে যেকটি আসন চান এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনটি অগ্রাধিকার পাবে ।
বিগত ২০০১ ও ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে তৎকালীন জোট প্রার্থী মুফতি ফজলুল হক আমিনীর (রহ.) চীফ ইলেকশন এজেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন জুনায়েদ আল-হাবীব। ২০০১ সালের নির্বাচনে মুফতি আমিনী (রহ.) এ আসনে এমপি নির্বাচিত হবার পিছনে তার যথেষ্ট ভূমিকা ছিল। স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, আলেম ওলামা অধ্যুষিত জেলা ব্রাহ্মণবাড়িয়া। সম্প্রতি কয়েকটি ইসলামী দলের নেতাদের আওয়ামীলীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের পক্ষে অবস্থান নেয়ায় এখানকার ইসলামী মূল্যবোধের ভোটের উপর প্রভাব ফেলার চেষ্টা হতে পারে। সে ক্ষেত্রে জুনায়েদ আল-হাবীবের মতো একজন আলেমে দীনকে এ আসনে ২০ দলীয় জোটের মনোনয়ন দেয়া হলে এ আসনসহ জেলার সবকটি আসনের ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বসী সেন্টিমেন্টকে বিভ্রান্তি থেকে রক্ষা করতে সহায়ক হবে।
শাপলা চত্বরের ট্রাজেডির সময় তিনি পরের দিন লন্ডন সফরে যাওয়াকে নিয়ে অনেকের অভিযোগ তিনি ‘পলায়ন করেন’ । যদিও তিনি তা অস্বীকার করেন।
সব মিলিয়ে তিনি একজন ইসলামীক আলোচক হিসেবে এলাকার সর্বস্তরের মানুষের নিকট তার ব্যাপক পরিচিতি ও গ্রহনযোগ্যতাও রয়েছে। সূত্র জানায় এমন চিন্তা থেকে এ আসন থেকে জুনাযেদ আল-হাবীবকে বিএনপি-জামায়াত জোট ও ঐক্যফন্টের মনোনয়ন দেয়া হতে পারে।
জুনায়েদ আল-হাবীব জানান, আমরা মুফতি আমিনী (রহ.) এর স্মৃতিবিজরিত এ আসনটি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জোটের নিকট দাবি করেছি। আশা করি আমি জোটের মনোনয়ন পাব এবং জনগণের ভালবাসা ও সমর্থনে আসনটি পূণরুদ্ধার করতে সক্ষম হবো ইনশাআল্লাহ। ‘

এই সংবাদটি 1,410 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com