সোমবার, ০৩ ডিসে ২০১৮ ০৭:১২ ঘণ্টা

দেওবন্দ মাওলানা সাদকে সতর্ক করেছে মাত্র : মাসঊদ

Share Button

দেওবন্দ মাওলানা সাদকে সতর্ক করেছে মাত্র : মাসঊদ

ডেস্করিপোর্ট:  মাওলানা সাদ কান্ধলবীর বিরুদ্ধে দেওবন্দ ফতওয়া দেয়নি বরং সতর্কতা জারি করেছে জানিয়ে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান, শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম, শাইখুল হাদীস আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেছেন, মাওলানা সাদ কান্ধলবী আহলে সুন্নত ওয়াল জামাত থেকে খারেজ হয়ে গেছেন বা তিনি কাফের হয়ে গেছেন বলে ফতওয়া দেয়নি দারুল উলুম দেওবন্দ। দেওবন্দ মাওলানা সাদকে সতর্ক করে বলেছে, তোমার বক্তব্যে অনেক ভুল আছে, তুমি ওই ভুল গুলো থেকে রুজু করবে এবং এই এসকল বিষয়ে সতর্ক থাকবে।

আল্লামা মাসঊদ বলেন, ভারতের উত্তর প্রদেশের প্রখ্যাত ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলূম দেওবন্দ মাওলানা সাদ কান্ধলবীকে ভালোবাসে। দেওবন্দ মাওলানা সাদ-এর বিরুদ্ধে কোন ফতওয়া দেয়নি বরং তাকে সতর্ক করেছে। দাওয়াতের ক্ষেত্রে মাওলানা সাদ কান্ধলবী মাগলুবুল হাল উল্লেখ করে আল্লামা মাসঊদ বলেন, মানসুর হাল্লাজ যেমন মারিফতের ক্ষেত্রে মাগলুবুল হাল ছিলেন মাওলানা সাদ কান্ধলবী তেমনি ভাবে দাওয়াতের ক্ষেত্রে মাগলুবুল হাল ছিলেন। আর যারা মাগলুবুল হাল হয় তাদের কিছু ভুলত্রুটি হয়ে থাকে। যেমন মানসুর হাল্লাজ ‘আনাল হক, আনাল্লাহ’ বলেছেন।

দাওয়াত ও তাবলীগ জামাতের ক্ষেত্রে মাওলানা সাদ কান্ধলবীর অবদান অনিস্বীকার্য দাবি করে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামার চেয়ারম্যান বলেন, আল্লাহ তাআলা মাওলানা সাদকে জাযায়ে খায়ের দান করুন। দাওয়াত ও তাবলীগ জামাতের ক্ষেত্রে তাঁর অবদান অস্বিকারের সুযোগ নেই। তবে জোসের কারণে অনেক সময় তাঁর অনেক ভুল হয়েছে। আল্লাহ তাআলা মাওলানা সাদকে তাঁর এসব ভুলগুলো থেকে রুজু করার তাওফিক দান করুণ।

৩০ নভেম্বর শুক্রবার রাজধানীর খিলগাঁও ইকরা বাংলাদেশ জামে মসজিদ কমপ্লেক্সে জুমার বয়ানে সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রহ.এর খলীফা আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ এসব কথা বলেন।

মসজিদে মসজিদে মারামারি করার জন্যে মাওলানা ইলিয়াস রহ. তাবলীগ জামাত প্রতিষ্ঠা করেননি মন্তব্য করে আল্লামা মাসঊদ বলেন, মসজিদ আল্লাহর ঘর, মসজিদ মুসলমানদের আশ্রয়স্থল। কিন্তু আমরা এখন ইতাআতী-ওজাহাতীতে বিভক্ত হয়ে মসজিদে মসজিদে মারামারি করছি। মসজিদ থেকে মুসলানদের বের করে দিচ্ছি।

আল্লামা ফরীদ উদ্দিন মাসঊদ বলেন, হযরত আদম আ. থেকে শুরু করে হযরত ঈসা আ. পর্যন্ত সকল নবী-রাসূল যেসব হাল ও পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছেন আমাদের নবী করীম সা. একাই এইসব হাল ও পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছেন। আর এই জন্যেই কুরআন শরীফে আল্লাহ তাআলা রাসূল সা.-কে একেক বার একেক হালে সম্বোধন করে বলেছেন, ইয়া আইয়ুহাল মুজাম্মিল, ইয়া সিন, ইয়া আইয়ুহাল মুদ্দাসির ইত্যাদি।

পূর্ববর্তী নবীদের উম্মতগণ যেসব হাল ও পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছেন, এই উম্মত এই সব হাল ও পরিস্থিতি সম্মুখীন হবে উল্লেখ্য করে শোলাকিয়ার গ্র্যান্ড ইমাম বলেন, কিয়ামত পর্যন্ত এই উম্মত অনেক হাল ও পরিস্থিতি সম্মুখীন হবে। এবং কীভাবে এই হালের মোকাবিলা করবে, এই থেকে মুক্তি পাবে তাঁর পূর্ববর্তী নবীগণের দিকে লক্ষ্য করলে পাবে। কারণ এই হাল নতুন কোন হাল নয়, বরং পূর্ববর্তী নবীদের উম্মতগণ যেসব হাল ও পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছেন, এই উম্মত এই সব হাল ও পরিস্থিতি সম্মুখীন হবে।

সাহাবায়ে কেরাম পূর্ববতী নবীদের নমুনা মন্তব্য করে আল্লামা মাসঊদ বলেন, রাসূল সা. বলেছেন, যদি তোমরা হযরত ঈবরাহিম আ.-কে দেখতে চাও, তাহলে আবু বকরকে দেখা নাও। যদি তোমরা হযরত মূসা আ.-কে দেখতে চাও, তাহলে হযরত ওমরকে দেখে নাও। যদি তোমরা ঈসা আ.-কে দেখতে চাও তাহলে আবু যর গিফারীকে দেখে নাও।

শরীয়তে ইতাআতী-ওজাহাতী বলে কোন ইস্তেলাহ নেই দাবি করে আল্লামা মাসঊদ বলেন, আমরা এখন ইতাআতী-ওজাহাতীর হাল অতিক্রম করছি। তবে শরীয়তে ইতাআতী-ওজাহাতী বলে কোন ইস্তেলাহ নেই, এই দুইটা শব্দই বিদআত। সাহাবায়ে কেরাম দাওয়াতের ক্ষেত্রে অনেক বিপদ-আপদের সম্মুখীন হয়েছেন, কিন্তু তারা তো দলে দলে বিভক্ত হয়ে যাননি, তবে আমরা ইতাআতী-ওজাহাতীতে বিভক্ত হয়ে গেছি। সাহাবায়ে কেরামদের আদর্শ অনুসরণ করি নাই। দাওয়াতে ক্ষেত্রে বিপদ-আপদের সময় তারা কি করেছেন সেগুলো লক্ষ্য করিনি।

বাংলাদেশ অধিকাংশ উলামায়ে কেরামই প্রকৃত আলেম ও ওয়ারিসে নবী নয় উল্লেখ্য করে আল্লামা মাসঊদ বলেন, প্রকৃত আলেম ও ওয়ারিসে নবী হওয়ার জন্য শর্ত তিনটি। ১. ইলম। ২. মারিফতে ইলাহী। ৩. আমল ও তাকওয়া। এই তিনটির কোন একটি যদি কোন মাওলানা মধ্যে না পাওয়া যায়, তাহলে তাকে প্রকৃত আলেম ও ওয়ারিসে নবী বলা যাবে না। আন এই তিনটি একসাথে খুব কম সংখ্যাক মাওলানার মাঝে পাওয়া যায়।

পাথেয় 

 

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com