সোমবার, ০৩ ডিসে ২০১৮ ০৭:১২ ঘণ্টা

প্রত্যক্ষদর্শীর জবানবন্দী : বেফাকের নির্দেশেই ইজতেমা ময়দান পাহারা

Share Button

প্রত্যক্ষদর্শীর জবানবন্দী : বেফাকের নির্দেশেই ইজতেমা ময়দান পাহারা

আব্দুল্লাহ মায়মূন : ২৭ নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে হঠাৎ করে খবর আসলো, কেন্দ্রীয় বেফাকের নির্দেশ-সাদপন্থীর হাত থেকে ইজতেমার মাঠকে রক্ষা করার জন্যে ময়দান পাহারায় যেতে হবে। বুধ-বৃহ ও শুক্রবার রাত্রিযাপন করে শনিবার বাদ ফজর মাদরাসায় ফিরতে হবে।
যাক, টঙ্গী ময়দানে গেলাম। উস্তাদ-ছাত্রসহ ১১০ জন। বাটা গেটের দিকে প্রবেশ করে ২৮ নম্বর টয়লেটের পাশে অবস্থান করলাম।
রাতে পাহারা দেওয়ার জন্যে ছাত্রদেরকে কয়েকটি গ্রুপে বিভক্ত করলাম। প্রথম দিন এভাবেই চললো।
দ্বিতীয় দিন ছিল বৃহস্পতিবার, ২৯ নভেম্বর। এতাআতিদের ঘোষিত জোড়ের আগের দিন। তাই এই রাত পাহারা শক্তভাবে দিতে হবে। শক্তভাবে পাহারা দেওয়ার লক্ষে আমরা সারা রাত সজাগ থাকার সিদ্ধান্ত নিলাম। হলো তাই। ওই সময় মাঠের চতুর্দিকে সাথী ভাইরা শীতের প্রচণ্ড প্রকোপ উপেক্ষা পাহারা দিতে লাগলেন, দশজনের মতো ভাই মোটর সাইকেল নিয়ে পুরো মাঠ প্রদক্ষিণ দেওয়া শুরু করেন, মাঝেমধ্যে প্রাইভেট কার দিয়ে মাঠ প্রদক্ষিণ করা হয়। দফায় দফায় মাঠের সার্বিক অবস্থা নিয়ে মশওয়ারা হয়। নাহ, এ রাতেও এতাআতিরা আসেনি। তবে তাদের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধমকি আসছিল। এভাবেই বুধ ও বৃহস্পতিবার চলে গিয়ে শুক্রবার আসলো।

ওই দিন মাঠের বিভিন্ন ধরনের দুর্বলতা ধরা পড়ল।
জানা গেলো,
১- মশওয়ারার মধ্যেই এতাআতিদের চর বিদ্যমান, সে মওশয়ারার সব বিষয় এতাআতিদের নেতাদের কাছে পাচার করে। মাঠের সব ধরনের অবস্থা এতাআতিদের কাছে পৌঁছে দেয়।
২- মোটরসাইকেল দিয়ে পাহারাদের মধ্যেও এতাআতি চর বিদ্যমান। কিন্তু তাদেরকে নির্ণয় করা যাচ্ছে না।
৩- ছদ্মবেশে বগুড়ার প্রায় ২৫০ এতাআতি ময়দানে ঢুকে পড়ছে। কিন্তু তাদেরকে বের করা যাচ্ছে না।
৪- ‘সাদপন্থীরা ভয় পাইছে, তারা হামলা করবে না’, এই ধারণায় অনেকে ময়দান ছেড়ে চলে যান।
৫- বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে, এতাআতিরা টঙ্গীর আশপাশের মসজিদে রাত্রিযাপন করছে। কিন্তু এরপরেও ময়দানে আমাদের সাথী বাড়ানো হচ্ছে না।
যে জায়গায় পুর্বের দু’দিন প্রায় লক্ষাধিক সাথী পাহারারত ছিলো, আজ হঠাৎ করে এদের সংখ্যা পনের হাজারে পৌঁছে যায়।
এসব জানতে জানতে শুক্রবার রাত দশটা অতিক্রম করে, কিন্তু তখন কিছুই করার ছিল না, একমাত্র আল্লাহর উপর তাওয়াক্কুল করে উপস্থিত সাথীদের উপর নির্ভর করা ছাড়া।
তাই এই রাতেও পাহারা মজবুত করা হলো।

প্রতিটি হালকা নিজ নিজ সাথীদেরকে দু’ভাগে বিভক্ত করে, একদল রাত ২টা পর্যন্ত পাহারা দিবে, অন্যদল রাত ২টা থেকে ফজর পর্যন্ত পাহারা দিবে।
আমি রাত ২টা পর্যন্ত পাহারা দেই। এরপর অন্য সাথীদেরকে জাগিয়ে শুয়ে পড়ি।
তো ভোর রাতে যখন অযু করে ফজরের নামাযে দাঁড়ানোর জন্যে জড়ো হতে যাবো, তখনই খবর আসে, এতাআতিরা চতুর্দিকে ঘেরাও করা শুরু করেছে। তাই ফজরের নামায ছোট কেরাত দিয়ে পড়ে সাথীদেরকে পাহারায় যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।
এভাবে প্রায় সাথী খালি পেটে অর্ধঘুমো চোখে পাহারা দিতে চলে যায়।
আমি প্রথমে আব্দুল্লাহপুরের দিকে যাই, এরপর যাই বাটা গেটের দিকে। গিয়ে দেখি এতাআতিরা গেটের বাহিরে জড়ো হয়ে গেছে। গেটের ভেতরে বয়স্ক-পুরাতন সাথীরা সামনের সারিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন, দোয়া পড়ছেন, যিকির চলছে, চলছে সুরা ইয়াসিন পাঠ। অপরদিকে এতিআতিরাও এসব আমল করছে। তারা তাদের সাথীদেরকে সংঘবদ্ধ করার জন্যে হ্যান্ডমাইক ব্যবহার করছে। গেটের বাহিরের পুলিশের সাথে ভেতরে ঢোকার দাবি জানাচ্ছে। পুলিশ নিরব দাঁড়িয়ে আছে।
এদিকে ভেতরে আমাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ডাক্তার মামুন, তিনি হ্যান্ডমাইক নিয়ে দাঁড়ালেন, কিন্তু মাইকের ব্যাটারির ক্যাপাসিটি কম থাকায় খালি গলায় কথা বলেন, তখন অন্য আওয়াজের তালে সে কথাও হারিয়ে যায়।
যাক, এই হচ্ছে তাদের আর আমাদের মধ্যে পার্থক্য। উভয়পক্ষ থেকে মাঝেমধ্যে উচ্চ আওয়াজ হয়। তখন আমাদের মামুন ভাইসহ অন্যান্য মুরব্বি সাথীরা জানান যে, টঙ্গীর জিম্মাদার ডাক্তার আসগর সাহেবের সাথে কথা হয়েছে, তিনি ওসি সাহেবের সাথে কথা বলেছেন, ওসি সাহেব বলেছেন, ‘ঘন্টাখানেক সবর করতে, কিছুক্ষণ পর দাঙ্গা পুলিশ আসবে, এরপর এদেরকে তাড়িয়ে দিবে’। তাই আমাদের ভয় পাওয়ার কিছু নেই। সবর করা দরকার, কিছুক্ষণ পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

এদিকে আমাদের সাথীদেরকে বারবার সতর্ক করা হচ্ছে, কোনো ধরনের সংঘর্ষে না জড়াতে, কারণ এটা এতাআতিদের একটি চক্রান্ত। তারা চাচ্ছে কোনো একটি ঝামেলা সৃষ্টি করে ইজতেমা মাঠে ১৪৪ ধারা জারি করতে, যাতে করে সরকার সবাইকে মাঠ থেকে বের করে দেয়। তাদের ভাষ্য অনেকটা এরকম, তোমরা আমাদেরকে ৩০ তারিখ থেকে ৪ তারিখ পর্যন্ত জোড় করতে দাওনি, আমরাও তোমাদেরকে ৭ তারিখের জোড় করতে দিবো না। নিজের নাক কেটে অন্যের যাত্রা ভঙ্গ করার ব্যাপারের মত।

মোটকথা, এতাআতিদের লক্ষ্য শুধু ঝামেলা করে মাঠ সরকারের হাতে তুলে দেওয়া, আর আমাদের লক্ষ্য ঝামেলা এড়িয়ে মাঠের দখল বজায় রেখে ৭ তারিখের জোড় সফল করা। তাই আমাদের উচিৎ তাদের সাথে সংঘাতে না যাওয়া।
যাইহোক, এভাবে বাটা গেটে প্রায় ঘন্টাখানেক থাকার পর ভাবলাম, নাস্তাটা সেরে নেই। এ লক্ষ্যে শামিয়ানায় ফিরলাম। তখন শুনি, কামারগেটের অবস্থা খুব নাজুক, আমাদেরকে সেখানে চলে যেতে হবে। নাস্তা আর করা হল না। এরপর কামারগেটের উদ্দেশে রওয়ানা হলাম, সেখানে কবরস্থান গেট, ফরেন গেট ইত্যাদি অতিক্রম করে কামারপাড়া ব্রিজের নিচে চলে আসলাম। সেখানে আমার মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষকের উপস্থিতি বেশি। এভাবে কয়েকটি গেট আমার পর্যবেক্ষণের সুযোগ হলো। সবকটি গেটে সবর করার কঠিন নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। নিয়ন্ত্রণের চরম উদাসীনতা, কোনো গেটেই দায়িত্বশীল জিম্মাদার পুরাতন সাথী নেই, সবাই যার যার মত করে পাহারা দিচ্ছে, যে যখন যেদিকে ইচ্ছা সেদিকে যেতে পারছে। কোনো ধরনের জবাবদিহিতা নেই। এক গেটের সাথে অন্য গেটের পারস্পরিক যোগাযোগ নেই। এক গেটে বসে অন্য গেটের অবস্থা বোঝা অসম্ভব।
এর বিপরীতে এতাআতিরা তাদের মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগ মজবুত করে এগুচ্ছে। সেদিন সতর্কভাবে তাদের নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থাও শক্তিশালী ছিলো।

মূলতঃ আমাদের দুর্বল নেতৃত্ব ছিলো সেদিন চোখে পড়ার মতো।

এই সংবাদটি 1,025 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com