বুধবার, ০৫ ডিসে ২০১৮ ০৭:১২ ঘণ্টা

আয় নেই সুলতানের, পত্রিকা বিক্রি করে ২৫ লাখ পান শাহীন

Share Button

আয় নেই সুলতানের, পত্রিকা বিক্রি করে ২৫ লাখ পান শাহীন

ডেস্করিপোট: পত্রিকা বিক্রির টাকাই একমাত্র আয়ের উৎস মৌলভীবাজার-২ আসনে বিকল্পধারার প্রেসিডিয়াম সদস্য মহাজোটের প্রার্থী এমএম শাহীনের। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরে সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘ঠিকানা’ প্রকাশনা ও বিক্রি করে বছরে তিনি ২৫ লাখ টাকা আয় করেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য মনোনয়নের সঙ্গে জমা দেয়া হলফনামায় এসব তথ্য উল্লেখ করেন তিনি। তবে এর সঙ্গে ১২.৮৩ বিঘা জমি থেকে আসা যৌথ আয় পরিবারে খরচ করা হয় বলে উল্লেখ করলেও টাকার পরিমাণ উল্লেখ করেননি তিনি।

এসএসসি পাস এমএম শাহীন হলফনামায় আরও উল্লেখ করেন, তার কাছে নগদ টাকা আছে ৪ লাখ ৫ হাজার ৩৫৪ টাকা, অস্থাবর সম্পদের মূল্য ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৫৪৪ টাকা, স্ত্রীর নামে আছে ৫০ তোলা স্বর্ণ; যার মূল্য ২০ লাখ টাকা। তবে ২০০৮ সালের নির্বাচনী হলফনামায় শাহীনের নামে ৫০ তোলা স্বর্ণ ছিল, এবার সেটি নেই।

পাশাপাশি তার নামে একটি গাড়ি আছে, যার মূল্য ৮ লাখ টাকা। স্থাবর সম্পদ রয়েছে ১ কোটি ৩০ লাখ টাকার। এর মধ্যে যৌথ মালিকানায় ১ কোটি ১০ লাখ টাকা। জমি বিক্রির বায়না হিসেবে ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা গ্রহণ করেছেন শাহীন।

এমএম শাহীন ২০০৮ সালে স্বতন্ত্র পদে নির্বাচন করে এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। পরে তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। তবে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে তিনি বিএনপি ছেড়ে বিকল্পধারায় যোগ দিয়েছেন।

এ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগ ত্যাগী সুলতান মোহাম্মদ মনসুর। তার ছয় একর কৃষিজমি আছে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায়। তবে সেই জমি থেকে তাঁর কোনো আয়-উপার্জন নেই। হলফনামায় পেশা হিসেবে ‘সমাজকর্মী’ উল্লেখ করেছেন তিনি।

হলফনামায় তিনি বলেছেন, কৃষি, বাড়িভাড়া, ব্যবসা, সঞ্চয়পত্র বা ব্যাংক আমানত, চাকরি বা অন্য কোনো খাত থেকে তাঁর কোনো আয় নেই। তবে তাঁর ওপর নির্ভরশীলদের আয় ৬ লাখ ৬২ হাজার ৪০০ টাকা। এই আয় বছরে, নাকি মাসে তা হলফনামায় দেওয়া তথ্য থেকে স্পষ্ট হওয়া যায় না।

সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদের নগদ টাকা আছে ৫৫ লাখ। একই পরিমাণ টাকার সেভিংস সার্টিফিকেটসহ বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্রে বা স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগ আছে তাঁর। আর যে আসবাব আছে, তার আর্থিক মূল্য দুই লাখ টাকা মাত্র।

সুলতান মোহাম্মদ মনসুরের পরিবারে একটি টয়োটা গাড়ি আছে। গাড়িটির মূল্য ২০ লাখ টাকা। তবে গাড়ির মালিক  তার স্ত্রী। স্ত্রীর সঞ্চয়পত্রে বা স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগ আছে ২৫ লাখ টাকা। পরিবারে লাখ টাকা মূল্যের যে ইলেকট্রনিক সামগ্রী আছে, তাও স্ত্রীর নামে। স্ত্রীর আর আছে সাত শতক জমি আর ২০ ভরি স্বর্ণ। এই স্বর্ণ তিনি পেয়েছিলেন বিয়ের দান হিসেবে।

গাড়ি যেমন স্ত্রীর, একটি বাড়ি আছে, সেটির মালিকও স্ত্রী। বাড়িটির আর্থিক মূল্য ৩০ লাখ টাকা। তবে তিনটি দালানের ৯ দশমিক ৫ অংশের মালিক সুলতান মোহাম্মদ মনসুর। এর আর্থিক মূল্য ২ লাখ ৬৩ হাজার ১৫৭ টাকা।

এই সংবাদটি 1,040 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com