বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসে ২০১৮ ০৪:১২ ঘণ্টা

কাদের সিদ্দিকী সংযত হোন

Share Button

কাদের সিদ্দিকী সংযত হোন

আহমদ যাকারিয়া:  আপনার হঠাৎ করেই এতো দরদ উথলে উঠলো কেন শাপলার জন্য? এর কারণ কি একটু জানতে পারি? কাদের সিদ্দিকী আপনি পাঁচ-ই মে কোথায় ছিলেন? তখন তো আপনাকে হেফাজতের বিরোধিতা করতেই দেখেছে এদেশের আপামর জনগন। অথচ এই ক’দিন ধরে দেখতেছি হেফাজতের প্রতি আপনার দরদ যেন উথলে উঠছে। এর পেছনের “রহস্য” বা “হেতু” “কিন্তু” “যদি” কী? সেটা যদি একটু খোলামেলা ভাবে জানাতেন তাহলে আমরা আমজনতা বড্ড উপকৃত হতাম। খুব বেশি আশ্চর্যান্বিত হচ্ছি আপনার এসব রহস্য নির্ভর কর্মকাণ্ড দেখে।

জাতীয় নির্বাচন উপলক্ষে গত দুই সপ্তাহ আগে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আল্লামা আহমদ শফিকে ব্যাঙ্গাত্মকভাবে কটূক্তি করার পর গতকাল সিলেটের জৈন্তায়ও আপনি আল্লামা আহমদ শফি দাঃ বাঃ কে বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন। আপনি বললেন যে, শাপলা চত্বর আহমদ শফি ভুলে যেতে পারেন কিন্তু আমরা ভুলি নাই! আপনাকে কে বলেছে যে, আহমদ শফি শাপলা চত্বরের ঘটনা ভুলে গেছেন? আপনাদের ব্যক্তিগত চরিত্রই তো হলো সময়ের পরিবর্তনে অভ্যাসের রংবদল। আর এটা যে সবসময়ই করে আসতেছেন তা তো আর বলতে হবে না। আপনাদের সব কর্মকাণ্ড ই তো এদেশের সচেতন জনগণের কাছে ফটোকপির ন্যায় পরিষ্কার করে আছে। বক্তব্যের এক পর্যায়ে আপনি বললেন যে, আহমদ শফি সাহেব শেখ হাসিনাকে “কওমি জননী” উপাধি দিয়েছেন। অথচ বারবার বিবৃতির মাধ্যমে বলা হয়েছে যে, এই বক্তব্য কওমি মাদ্রাসার বোর্ডের বক্তব্য নয়। সরকার ঘনিষ্ঠ একজন আলেমের ব্যক্তিবিশেষের বক্তব্য। তারপরও আপনি বারবার এই ইস্যুকে সামনে এনে কওমি মাদ্রাসাকে কৌশলে বিতর্কিত করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছেন।

হেফাজতের আবেগকে নির্বাচনের তরী উত্তোরনের হাতিয়ার বানানোর অপচেষ্টা করিয়েন না জনাব। হেফাজত তার জায়গায় এখনো অনড় ও অবিচল। হেফাজত মূলে যে আদর্শ লালন করতো এখনো সেই আদর্শই লালন করে। তার কর্মপদ্ধতি ও পরিকল্পনার মধ্যে সময়ের প্রয়োজনে একটু রদবদল হয়েছে এটা ঠিক কিন্তু এর অর্থ এই নয় যে, হেফাছত আদর্শচ্যুত হয়ে সরকারের কাছে আত্মসমর্পণ করে নিয়েছে।

কওমি মাদ্রাসার স্বীকৃতি প্রদান করায় সরকারকে সংবর্ধনা প্রদান করা কওমি সংশ্লিষ্টদের জন্য নৈতিক কর্তব্য বলেই তারা সংবর্ধনা প্রদান করেছে; এতে কেউ বেঈমান হয়ে যায়নি। আপাতদৃষ্টিতে এই প্রোগ্রাম সরকারের পক্ষে চলে যেতে পারে এবং জনগনের আবেগ ও ভালোবাসা ক্ষমতাসীন জোট লাভ করতে পারে এটা হয়তো বিরোধী পক্ষের লোকজন চিন্তা করতেছেন! কিন্তু কওমি মাদ্রাসার এতে দোষ কী বলেন? সংবর্ধনা দিলে বিএনপি জোট দোষারোপ করবে আর সংবর্ধনা না দিলে আওয়ামী লীগ দোষারোপ করবে এই বলে যে, কওমি মাদ্রাসার এতো বড় একটা অর্জন তাদের হাতে দেওয়ার পরেও তারা সরকারের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেনি! তো কওমি মাদ্রাসার আলেমরা কোনদিকে যাবেন? বিবেক ও সত্য যে দিকে যায় সেদিকে যাওয়াই তো তাদের কর্তব্য। আর এই কর্তব্য পালন করতেই তারা শুকরিয়া মাহফিলের আয়োজন করেছেন। বস্তুত এই মাহফিলে যারা বিতর্কিত বক্তব্য দিয়েছেন; এসব বিতর্কিত বক্তব্যের দায় কওমি মাদ্রাসার বোর্ড বহন করে না বরং এসব কথা তাদের ব্যক্তিগত বক্তব্য বলেই স্বীকার করে বোর্ড সংশ্লিষ্টরা। সরকারের পক্ষে জনগনের দৃষ্টি চলে যেতে পারে বলে আলেমরা কি হাত গুটিয়ে বসে থাকবেন? আর বিএনপি জোটের তাবেদারী করে যাবেন? আচ্ছা বিগত বিএনপি জোট কওমি মাদ্রাসার কোন উন্নতি করেছে একটু চোখে আঙুল দিয়ে দেখান তো? পারবেন বুকে হাত দিয়ে বলতে যে, এই এই কাজ ইসলাম ও মুসলমানদের স্বার্থে সংসদীয় ধারা অনুযায়ী করা হয়েছে।

দীর্ঘদিন ধরে অশিক্ষিত জনগণের খাতায় নাম লেখানো দেশের বৃহত্তম এই জনগোষ্ঠীকে শিক্ষিত জনগনের আওতাভুক্ত করায় তার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা কোন ভাবেই ধূর্তামি নয়। কী আজীব দেশ রে বাবা!! হেফাজতের আন্দোলনের সময় পরিবেশটা বিএনপির পক্ষে ছিল বলে হেফাজত তাদের চোখে নিষ্কলুষ আর আওয়ামী লীগের কাছে স্বাধীনতা বিরোধী আর এখন হেফাজত কৌশলগত কারণে নীরবতা পালন করায় বিএনপির কাছে দোষী আর আওয়ামী লীগের কাছে হয়ে গেছে শান্তিপ্রিয়। এদেশের মালিকানা কি এদেশের জনগন আওয়ামী লীগ আর বিএনপির কাছে দিয়ে দিয়েছে যে, তাদের ইচ্ছা আর অনিচ্ছার দিকে দৃষ্টিপাত করেই অন্যান্য জনগোষ্ঠীকে তাদের কর্মকাণ্ড পরিচালিত করতে হবে? কওমি মাদ্রাসার বোর্ডের নির্ধারিত কোন দায়িত্বশীল ব্যক্তি কি বলেছেন যে, আওয়ামী লীগকে ভোট দিও বা বিএনপিকে ভোট দিও না? যদি বলে না থাকেন তাহলে কেন এত জ্বালাপোড়া?

বিগত বিএনপি জোট সরকারের সাথে কওমিপন্থী রাজনৈতিক দল সমূহ তো জোট করেছিলেন কওমি মাদ্রাসাকে সরকারী স্বীকৃতি প্রদান করবে, আদালতে পাশকৃত ফতোয়া বিরোধিতা রায় প্রত্যাহার করবে, কাদীয়ানীদের অমুসলিম ঘোষণা করবে। কিন্তু কৈ একটা দাবীও কি পূরণ করেছে বিএনপি জোট সরকার? বরঞ্চ এর বিপরীতে বিএনপি জোট তখন মদের সরকারী লাইসেন্স দিয়েছে, পতিতালয়ের সরকারী লাইসেন্স দিয়েছে। তাহলে কোন ভরসায় প্রশ্নহীন মনে করব বিএনপিকে? তারেক রহমান কী পরিমাণ দুর্নীতির সাথে জড়িত ছিলো তা তো আজ দিবালোকের ন্যায় পরিষ্কার। বলবেন যে, এসব আওয়ামী লীগের ষড়যন্ত্র! তারেক রহমান নির্দোষ! আচ্ছা একটা দুইটা মামলা মনে করলাম রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য করা হয়েছে তারেকের বিরুদ্ধে তাই বলে কি সব মামলাই ভূয়া? হাওয়া ভবনের তখনকার রাষ্ট্রীয় দুর্বৃত্তায়ন সম্পর্কে কে না জানে? তারেকের ঘনিষ্ঠজন বলে পরিচিত মামুন ও গিয়াসের রাতের সহ্যাসঙ্গী হতে হতো তখনকার নামীদামি ভার্সিটির স্টুডেন্ট সহ নাইকা ও মডেলরা। এজন্য আমি আওয়ামী লীগকে নির্দোষ বলছি না। আওয়ামী লীগ তো আরো বড় বড় অপরাধ করতেছে। কেউ-ই তো দুধে ধোয়া তুলসী পাতা নয়। তবে আমার প্রশ্ন হচ্ছে যে, যারা দেশ ও জনগণের স্বার্থে সময়ের ব্যবধানে বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করতে হয় তাদেরকেই কেন সবাই কৌশলে বিতর্কিত করার অপপ্রয়াস চালায়?

কেন আজকে হেফাজতকে সব জায়গায় দোষারোপ করতেছেন? একটু বুঝতে চেষ্টা করেন! দেখেন হেফাজত মাঠ থেকে সরে গিয়ে একটু কৌশলী হয়েছে; আর এই কৌশলী পন্থা অবলম্বন করে তারা কওমি মাদ্রাসার সরকারি স্বীকৃতি আদায় করেছে, ফতোয়া বিরোধী রায় প্রত্যাহার করিয়েছে, ইসলাম বিরোধী নারী নীতিমালা স্থগিত রাখতে সক্ষম হয়েছে, ধর্ম বিরোধী শিক্ষানীতি বাতিল করিয়েছে। আর এটা কার মাধ্যমে করিয়েছে? ধর্ম নিরপেক্ষ এই আওয়ামী লীগের দ্বারাই করিয়েছে। এটা তো চাট্টিখানি বিষয় নয়। এটা কোন আঁতাত করে করা হয়নি বরং কৌশলী পন্থা অবলম্বন করে করা হয়েছে। আঁতাত করে করা হলে আজকে হেফাজতের অনেক বড় বড় নেতাই নৌকার নমিনেশন নিয়ে নৌকা প্রতিকে নির্বাচন করতেন; এরকম অনেক লোভ ও প্রলোভন উভয় মেরু থেকেই এসেছে হেফাজতের টেবিলে! কিন্তু তা ঘৃণা ভরেই প্রত্যাখ্যান করেছে হেফাজতের উর্ধমহল।

দেখেন জনাব! এদেশে হেফাজতের উত্থান না হলে ধর্ম বিরোধী নারী নীতিমালা ও ধর্ম বিরোধী শিক্ষানীতি আজকে সংসদে পাশ হয়ে আমাদের ঘারে বসত; এতে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটুক অথবা না-ই ঘটুক। শুধুমাত্র হেফাজতের উত্থানের কারণেই এর মন্দ স্রোত থেকে আমরা বাঁচতে পেরেছি। হেফাজতের উত্থান না হলে শাহবাগ কেন্দ্রীক যে ধর্ম বিরোধী শক্তির উদ্ভব ঘটেছিলো তা শাহবাগ পেরিয়ে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সব সেক্টরের পদে বসতে সক্ষম হতো। এবং পরে তারা প্রশাসনিক ক্ষমতার অপব্যবহার করে সমাজের রন্দ্রে রন্দ্রে প্রবেশ করে নিত। কিন্তু এই হেফাজতের উত্থানের কারণেই তারা উচ্চাসনে বসতে পারেনি এমনকি বামপন্থীদের অস্তিত্ব আজ বাংলাদেশে নিঃশেষিত হবার উপক্রম।

ডঃ কামাল যে কোনদিন ধর্মের পাশেও আসেনি নামাজ, রোযা যার কাছে অস্বস্তিকর। বিগত সরকারের আমলে কাদীয়ানীদেরকে অমুসলিম ঘোষণা করার জন্য উচ্চ আদালতে আল্লামা নূর হুসাইন ক্বাসেমি সাহেব দাঃ বাঃ বাদী হয়ে মামলা করেন আর এই ডঃ কামাল হুসেন-ই কাদীয়ানীদের পক্ষাবলম্বন করে আইনী লড়াই করেন। ডঃ কামালের ইহুদি পুত্র বধূ ও ইহুদি লবির সাথে সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে কে না জানে?
ডঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী সাহেবের ইজরাইলের মোসাদ ও পশ্চিমা বিশ্বের সাথে যে দহরম-মহরম রয়েছে এ বিষয়ে কে না জানে? যে আ স ম আব্দুর রব সাহেব (স্বীকার করি তিনি স্বাধীন বাংলার প্রথম পতাকা উত্তোলনকারী) নির্বাচন করে জামানত বাজেয়াপ্ত হয়ে যায় উনি এখন জাতীয় নেতাতে পরিণত হয়ে গেলেন হুট করে! তা কিভাবে? বা কার ইঙ্গিতে হলো এটা কি এদেশের জনগন ঠাহর করতে পারতেছে না? তাহলে কেন যত দোষ নন্দ ঘোষ হিসেবে সব সমস্যার দায়ভার হেফাজতের ঘাড়ে চাপিয়ে দেওয়ার অপচেষ্টা?

সুতরাং আপনি আপনার ভাষা সংযত করুন। যদি ভাষা সংযত না করেন তবে দাবার ঘুঁটি উল্টে যেতে সময় লাগবে না। আপনার তো রাজনৈতিক কোন আদর্শই নেই; আর আপনি আসছেন আরেকজনকে কলুষিত করতে। শুনেন! দেশ এখন একটা কারাগারে পরিণত হয়ে আছে। মানুষের স্বাধীন ভাবে কথা বলার অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়েছে। খুন, গুম, হত্যা, রাহাজানি, অবিচার, জবরদখল, ক্ষমতার অপব্যবহার করে দেশকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে গভীর এক অন্ধকারের দিকে। দেশের মানুষ আজ সঙ্কিত ও দ্বিধাগ্রস্ত। নির্বাচন হবে কি হবে না তা নিয়ে ই আছে সংশয়। তথাপি সবাই যখন এই কারাগার থেকে মুক্তির প্রহর গুনতেছে তখন আপনার এসব বিতর্কিত বক্তব্য সত্যিই এদেশের সচেতন মহলকে পীড়া দিচ্ছে। দয়াকরে সংযত হোন।

এই সংবাদটি 1,023 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com