সিলেট-৫: একাল সেকাল

প্রকাশিত: ৪:২০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৮

এহসানুল হক জসীম :  একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটিং ৩০ ডিসেম্বর, রবিবার। স্বাধীন বাংলাদেশে বিগত ৪৭ বছরে ইতোমধ্যে ১০টি সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমাদের এ ভূ-খণ্ডে নির্বাচনের শুরু প্রায় শত বছর আগে। ১৯১৯ সালের ভারত শাসন আইনের মধ্য দিয়ে নির্বাচন প্রবর্তিত হয়। ভারতীয় উপমহাদেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯২০ সালে। অবশ্য জনগণের অংশগ্রহণে প্রত্যক্ষ নির্বাচন শুরু হয় আরো বেশ কয়েক বছর পর। ১৯৩৭ সালে প্রথম প্রত্যক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সে হিসেবে জনগণের ভোটাভোটি শুরুর হয়ে গেছে ৮১ বছর।

এই একাশি বছরে অনুষ্ঠিত হয় মোট ১৬টি সাধারণ নির্বাচন। একটি উপনির্বাচন সহ সিলেট-৫ আসনে মোট ১৭বার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। অবশ্য, প্রাদেশিক পরিষদের দুইটি উপনির্বাচনকে আমরা আলাদাভাবে হিসেবে আনছি না। কারণ, প্রাদেশিক পরিষদের সে নির্বাচন জাতীয় পরিষদের সাথে অনেকটা একীভূত ছিল। মাঝখানের সে সময়টাতে আইয়ুব খানের বেসিক ডেমোক্র্যাসির যুগে জাতীয় পরিষদের এক আসনে একজন সদস্যের সাথে ওই আসনের দুই অংশ হতে দুই জন রানিং-ম্যাট নির্বাচিত হতেন; যারা ছিলেন প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য বা এমপিএ। আমাদের এই আসনে দুই বার প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য পদে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

আমরা এখন যেটাকে সিলেট-৫ বলছি, সব সময় এই আসনের পরিচয় `সিলেট-৫‘ ছিলনা। যাহোক, আমরা একালের সিলেট-৫ কে সেকালেও নিয়ে যাবো। তুলে ধরবো এই একাশি বছরের সংক্ষিপ্ত বয়ান। বিগত একাশি বছরে ১৭টি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ-৪ বার, জাতীয় পার্টি-৩ বার, বিএনপি-১ বার, জামায়াতে ইসলামী-১ বার, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম-১ বার, ইসলামী ঐক্যজোট/ খেলাফত মজলিস-১ বার, মুসলিম লীগ-১ বার, কংগ্রেস-১ বার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ৪ বার বিজয়ী হন। বিএনপি বার বার ক্ষমতায় এলেও সিলেট-৫ আসনে ধানের শীষ বিজয়ী হয়েছে মাত্র একবার। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারীর সেই একতরফা নির্বাচনে মাত্র চার দিনের জন্য বিএনপির প্রার্থী এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। জাতীয় পার্টি থেকে তিন বার এমপি নির্বাচিত হলেও ২০১৪ সালের ভোটারবিহীন ও ১৯৯৮ সালে এক তরফা নির্বাচনে দুই বার জাতীয় পার্টি এ আসনটি পায়। এখানকার দুই জন মন্ত্রী হয়েছিলেন। পাকিস্তান আমলে মন্ত্রী ছিলেন কানাইঘাটের আব্দুছ সালাম, আর বাংলাদেশ আমলে এরশাদ সরকারের মন্ত্রী ছিলেন জকিগঞ্জের এমএ হক। এ আসন থেকে ১৯৬৫ সালের নির্বাচনে বিজয়ী আজমল আলী চৌধুরীও মন্ত্রী ছিলেন। তখন আজমল আলী এই আসন তথা সিলেট সদরের বাসিন্দা ও নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হলেও বর্তমানে সিলেট-৫ আসনটি কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ নিয়ে গঠিত।

ইসলামী দলগুলো ভোটের রাজনীতিতে পিছিয়ে থাকলেও সিলেট-৫ আসনে সব সময়ই ভাল করেছে। ১৭টি নির্বাচন পর্যালোচনায় দেখা যায়, তিনটি নির্বাচন বিতর্কিত ছিল, চারটি নির্বাচনে সরাসরি কোন বিশিষ্ট আলেম নির্বাচিত হয়েছিলেন। সাতটি নির্বাচনে খুবই অল্প ভোটের ব্যবধানে কোন না কোন আলেম বা ইসলামী দলের প্রার্থী নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন। কয়েকটি নির্বাচনে ২য়, ৩য় ও চতুর্থ স্থান অধিকার করেন ইসলামী দলের প্রার্থী। বিভিন্ন নির্বাচনে দেখা গেছে ইসলামী দলগুলোর সম্মিলিত ভোট প্রচলিত দলগুলোর সম্মিলিত ভোটের চাইতে অনেক বেশি ছিল, যদিও এসব নির্বাচনে ইসলামী দলের নেতারা বিজয়ী হননি। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে কার গলে উঠছে বিজয়ের মালা? তার আগে আসুন জেনে নেই বিগত ৮১ বছরে ১৭টি নির্বাচনে কবে কারা বিজয়ী হয়েছিলেন সিলেট-৫ আসনে।

শুরুর দিকে এই আসনটি কানাইঘাট, জৈন্তাপুর ও গোয়াইনঘাট নিয়ে গঠিত ছিল। মানে, আজকের বৃহত্তর জৈন্তা তখন একটি আসন ছিল। এই নির্বাচনী এলাকা থেকে ১৯৩৭ সালের ১৮ ও ১৯শে জানুয়ারি তারিখে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে খুবই অল্প বয়সে ছাত্র থাকাবস্থায়ই এমপি (এমএলএ) নির্বাচিত হন মুসলিম লীগের আব্দুছ সালাম। তিনি এই এলাকা থেকে সাধারণ নির্বাচনে জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত প্রথম জনপ্রতিনিধি। আসামের ১০৮ সদস্য বিশিষ্ট আইনসভার মেয়াদ ১৯৪২ সাল পর্যন্ত ছিল। ২য় বিশ্বযুদ্ধের কারণে নির্বাচন অনুষ্ঠিত না হওয়ায় ব্রিটিশ সরকার আসাম আইন পরিষদের মেয়াদ আরও চার বছর বৃদ্ধি করে। ফলে এই প্রায় সাড়ে নয় বছর এমএলএ ছিলেন সালাম মিনিস্টার। তখন আসাম আইন পরিষদের সদস্যদের মধ্যে ভারতের সাবেক প্রেসিডেন্ট ফখর উদ্দিন আলী আহমদ এবং মজলুম জননেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীও ছিলেন। আব্দুছ সালামের আগে এখান থেকে ১৯২৪ থেকে ১৯৩৬ সাল পর্যন্ত আসাম সংসদের অনির্বাচিত সদস্য ছিলেন সিলেটের পাঠানটুলার এডভোকেট আব্দুল হামিদ। সিলেট সদর তখন এ আসনের সাথে যুক্ত ছিল।

১৯৩৭ সালের সে নির্বাচনে সালাম মিনিস্টারের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন কানাইঘাট উপজেলার রতনপুর গ্রামের হাতেম আলী নাজির। তিনি বাংলাদেশ আমলের প্রথম এমপি হাবিবুর রহমান ওরফে তোতা উকিলের পিতা ছিলেন। আব্দুছ সালাম কানাইঘাট উপজেলার সোনাপুর গ্রামে ১৯০৬ সালে জন্মগ্রহণ করেন। পুর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক সরকারের রাজস্ব ও ভূমি প্রশাসন মন্ত্রী ছিলেন বলে তাঁকে বলা হতো সালাম মিয়া মিনিস্টার। তিনি ব্যক্তিগত জীবনে খুবই ভালো মানুষ ছিলেন এবং লোভ-মোহের উদ্র্ধে ছিলেন। তাঁর সময়ে ‍বৃহত্তর জৈন্তা ও সিলেট জেলায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়। দরবস্ত- কানাইঘাট সড়কটি তাঁরই অবদান। চারখাই হতে জকিগঞ্জ পর্যন্ত রাস্তা পাকাকরণেও তাঁর অবদান ছিল। নির্লোভ ও পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ কানাইঘাটের এই কৃতিসন্তান ১৯৯৯ সালের ১০ মে ৯৩ বছর বয়সে ইন্তেকাল করেন। তাঁকে সিলেটের দরগায় সমাধিস্থ করা হয়। আগেকার রাজনীতিবিদরা যে কত পরিচ্ছন্ন ছিলেন তার প্রমাণ মিনিস্টার আব্দুছ সালাম। কারণ, তাঁর দল দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকলেও সেই ক্ষমতাকে তিনি কাজে লাগাননি অর্থ-কড়ি ও আখের গোছানোর জন্য।

১৯৪৬ সালে অনুষ্ঠিত হয় পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন। সে নির্বাচনে খেজুর গাছ প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের নেতা মাওলানা ইব্রাহীম চতুলী। তিনি কানাইঘাট উপজেলার বড়চতুল ইউনিয়নের হারাতৈল রাঙ্গারাই গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। মুসলিম লীগের প্রার্থী ছিলেন ইব্রাহীম চতুলীর প্রতিবেশি গ্রাম রতনপুরের এডভোকেট হাবিবুর রহমান (তোতা মিয়া)। তিনি জমিয়তের এই প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন। এতে বুঝা যায় যে, এই আসনে বহু আগে জমিয়তের একটা শক্ত অবস্থান ছিল। অন্যদিকে ইব্রাহীম চতুলী একজন খ্যতিমান আলেম ছিলেন। ব্রিটিশ বিরোধি আন্দোলনের অবিসংবাদিত নেতা ছিলেন। নিখিল ভারত ছাত্র ফেডারেশনের সেক্রেটারী জেনারেল হিসেবে মাওলানা ইব্রাহীম চতুলী ব্রিটিশ বিরোধি আন্দোলনে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। অনেক দিন বেঁচে ছিলেন সিলেট তথা কানাইঘাটের এই রত্নগর্ভা সন্তান। সাবেক এই এমএলএ ১৯৮০‘র দশকে মারা যান।

১৯৫৪ সালের মার্চের ৮ থেকে ১২ তারিখ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়েছিল দেশের সাধারণ নির্বাচন। ’৫৪-এর এই নির্বাচন ছিল পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর প্রথম সাধারণ নির্বাচন। সে নির্বাচনে মুসলিম লীগের বিরুদ্ধে কয়েকটি রাজনৈতিক দল ঐক্যবদ্ধ হয়। গঠন করে যুক্তফ্রন্ট। সে নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট সমর্থিত ও কংগ্রেস মনোনীত প্রার্থী মকবুল হোসেন নির্বাচিত হন। তাঁর মুল বাড়ি ছিল কানাইঘাট ইউনিয়নের বীরদল গ্রামে। পরবর্তীতে তিনি গোয়াইনঘাটের গহড়া গ্রামে বাসিন্দা হয়েছিলেন। জীবন সায়াহ্নে এসে তিনি নির্বাচিত হয়েছিলেন। মকবুল হোসেন মারা যান ১৯৫৭ সালে। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে মুসলিম লীগের প্রার্থী ছিলেন কানাইঘাটের তিনচটি গ্রামের অধ্যক্ষ মোবারক আলী। তিনি তিনচটি গ্রামের ডা. হিলালুল ইসলাম, ডা. নজরল ইসলামদের পিতা। মোবারক আলী যুক্তফ্রন্টের প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়ে রাগে-ক্ষোভে-অভিমানে এলাকা ছেড়ে শহরে চলে যান। আর এলাকায় ফেরেননি। মোবারক সাহেব ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যে উচ্চ ডিগ্রীধারী ছিলেন। মারা যান ২০০২/২০০৩ সালে।

এ আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৫৭ সালে। এই উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিজয়ী হয়েছিলেন গোয়াইনঘাটের বর্তমান ডৌবাড়ি ইউনিয়নের লংপুর নিবাসী ফয়জুল হাসান। তিনি তখন তরুণ নেতা ছিলেন। মারা যান ২০১২ সালে। তাঁর ছেলে নেহাল আহমদ নবগঠিত ডৌবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান বা প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান। ডৌবাড়ি এর আগে অবিভক্ত ফতেহপুর ইউনিয়নের সাথে ছিল। ১৯৫৭ সালে বিজয়ী ফয়জুল হাসানের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী এডভোকেট হাবিবুর রহমান (তোতা মিয়া)। আওয়ামী লীগ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান জৈন্তাপুরের দরবস্ত বাজারে হাবিবুর রহমানের পক্ষে প্রচারণায় আসলে জনসভা ভন্ডুল করে দেয়া হয়েছিল। দরবস্তের শাহী ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত নির্বাচনী জনসভা ভন্ডুল করে দেওয়ার পর উপজেলার রামপ্রসাদ গ্রামের মোহাম্মদ চৌধুরীর নেতৃত্বে এই এলাকার লোকজন ঢাকা থেকে আগত আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের গাড়ি পুড়িয়ে দেয়। মোহাম্মদ চৌধুরী হচ্ছেন জৈন্তাপুরের চারিকাটা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল এর দাদা এবং মরহুম হবই চেয়ারম্যান এর পিতা। চারিকাটা তখন অবিভক্ত নিজপাট ইউনিয়নের অন্তর্গত ছিল। মোহাম্মদ চৌধুরী অবিভক্ত নিজপাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন। হবই চেয়ারম্যানের বেলায়ও একই কথা প্রযোজ্য।

আল্লামা মুহাম্মাদ মুশাহিদ বায়মপুরী ছিলেন ঘন কৃষ্ণ বর্ণের বড় নাক বিশিষ্ট অনেকটা হাবশী গড়নের অপেক্ষাকৃত বেঁটে আকৃতির। তাঁর জ্ঞান-গরিমা ও ও বিশাল ব্যক্তিত্বের কারণে তিনি সিলেটবাসীর কাছে ‘কালোমানিক’ রূপে সমাদৃত ছিলেন। তাঁর লিখিত কয়েকটি উর্দু গ্রন্থ খুবই বিখ্যাত হয়। ইসলামের রাষ্ট্রীয় ও অর্থনৈতিক উত্তরাধিকার- নামক গ্রন্থটি তাঁর শ্রেষ্ঠ কীর্তি। অনেক উঁচু মাপের এই গ্রন্থটি বহুল প্রচারিত নয়। এই বইটি পাঠে বুঝা যায়, মুশাহিদ বায়মপুরী কত বড় মাপের মনীষী ছিলেন। ১৯৬২ সালের নির্বাচনে সারাদেশে যখন মুসলিম লীগের জয়জয়কার, তখন চেয়ার প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র এমপি বা জাতীয় পরিষদের সদস্য (এমএনএ) নির্বাচিত হন উপমহাদেশের এই প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন। আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরীর কাছে সেদিন পরাজিত হয়েছিলেন সাবেক স্পীকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর মা সিরাজুন্নেসা চৌধুরীর মত বিদূষী ও সম্ভ্রান্ত ঘরের প্রার্থী। সে সময় এই আসন সিলেট সদর পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। পুরো সিলেট জুড়ে যে মুশাহিদ বায়মপুরীর বিপুল জনপ্রিয়তা ছিল- তা বলাই বাহুল্য। সেবার নির্বাচন ছিল বেসিক ডেমোক্র্যাসির বা মৌলিক গণতন্ত্রের নির্বাচন। ফলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের ভোটের মাধ্যমে জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত করা হতো।

আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী যখন জাতীয় পরিষদে নির্বাচিত হন তখন পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন আব্দুছ সালাম। সে সময় একটি আসন থেকে একজন জাতীয় পরিষদ সদস্য এবং তার দুই জন রানিং-ম্যাট থাকতেন, মানে জাতীয় পরিষদের একটি আসন থেকে একজন এমএনএ ও দুই জন এমপিএ নির্বাচিত হতেন। আব্দুছ সালামের পাশাপাশি এখান থেকে এমপিএ নির্বাচিত হয়েছিলেন বিয়ানীবাজারের কুড়ারবাজার ইউনিয়নের আকাখাজনা গ্রামের আব্দুস সালাম। কানাইঘাটের আব্দুছ সালাম নির্বাচিত হওয়ার পর পরই তিনি প্রাদেশিক সরকারের রাজস্ব ও ভুমি মন্ত্রী নিযুক্ত হন। সে সময় কুষ্টিয়ার ব্যরিষ্টার আব্দুল হক একটি রিট মামলা করেন যাতে কেউ একই সাথে মন্ত্রী ও এমপিএ না থাকতে পারে। রায় হক সাহেবের পক্ষে যায়। ফলে আব্দুছ সালামের এমপিএ বা প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য পদ শূন্য ঘোষিত হয়। এরপর এখানে অনুষ্ঠিত হয় উপনির্বাচন। সে উপনির্বাচনে এমপিএ নির্বাচিত হন কানাইঘাটের গোসাইনপুর গ্রামের এডভোকেট আহমদ আলী।

প্রকৃতিগত দিক থেকে আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাজনৈতিক জগতের লোক ছিলেন না। প্রকৃত অর্থে তিনি ছিলেন ইলমী জগতের ‍উজ্জ্বল নক্ষত্র। তবে তাঁর ছিল প্রখর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা এবং অসাধারণ প্রতিভা। সেই মেধা ও অভিজ্ঞতা থেকে তাঁর কাছে প্রতীয়মান হয়েছিল যে, সমস্ত ইসলামী দল সম্মিলিতভাবে জোটবদ্ধ হলেও তার শক্তি রাজনীতির পট পরিবর্তনের জন্য যে শক্তি দরকার তার কাছাকাছিও নয়। ফলে মন্দের ভাল হিসেবে তিনি আইয়ুব খানের কনভেনশন মুসলিম লীগে যোগদান করেছিলেন। তিনি চেয়েছিলেন যে, এ দলের সাথে থেকেই ইসলাম ও মুসলিমদের দাবীর যৌক্তিকতা তুলে ধরবেন এবং দাবী আদায় করবেন। মুশাহিদ বায়মপুরী কানাইঘাট দারুল উলুম মাদ্রাসা ও আকুনীর মাদ্রাসার জন্য সরকার থেকে অনুদান নিয়ে অনেক উন্নয়নও সাধন করেছিলেন। আরো বিভিন্ন মাদ্রাসা তাঁর মাধ্যমে উপকৃত হয়েছিল। কিন্তু জনগণ তাঁর মুসলিম লীগে যোগদানকে সুনজরে দেখেনি। ফলে পরবর্তী নির্বাচনে তথা ১৯৬৫ সালের নির্বাচনে তিনি মুসলিম লীগের প্রার্থী হিসেবে আর নির্বাচিত হতে পারেননি। সে সময় নির্বাচিত হয়েছিলেন সিলেট সদরের আজমল আলী চৌধুরী। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর পর আজমল আলী আইয়ুব খানের মুসলিম লীগে যোগদান করেন এবং কেন্দ্রীয় শিল্প ও প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রী নিযুক্ত হন। তিনি প্রভাবশালী মন্ত্রী ছিলেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর পরই সিলেট শহরের দরগাহ এলাকায় নিজ বাসার কাছে আততায়ীর হাতে তিনি নিহত হন। আজমল আলী চৌধুরীর দুই রানিং-ম্যাট তথা প্রাদেশিক পরিষদের দুই সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন জকিগঞ্জ উপজেলার শাহবাগের আব্দুর রহমান উকিল ও গোয়াইনঘাটের মো. সাইফুল আলম। পরবর্তীতে মো. সাইফুল আলম জলীল হত্যা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হলে ১৮ মাসের মাথায় তার পদ চলে যায় এবং আসন শুন্য হয়। উপনির্বাচেন এমপিএ নির্বাচিত হন সিলেট সদরের খন্দকার জলিল। এই আব্দুল জলিল ছিলেন সিলেট-১ আসনের সাবেক এমপি খন্দকার আব্দুল মালেকের ভাই ও বর্তমান বিএনপি মনোনীত প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের চাচা।

১৯৪৭ সালের দেশ ভাগ ইস্যু ও ষাটের দশকে আইয়ুব খানের মুসলিম লীগে যোগদান ইস্যুতে আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী কিছুটা সমালোচনার মুখে পড়লেও তিনিই হচ্ছেন কানাইঘাটের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তান। তাঁর মতো এতো উঁচু মাপের আলেম আর জন্মাবে না। সমাজ সংস্কারক, লেখক ও হাদিস বিশারদ হিসেবে তিনি উপমহাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ নক্ষত্র। সিলেট আলিয়া মাদ্রাসা, গাছবাড়ী কামিল মাদ্রাসা, কানাইঘাট মাদ্রাসা সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করেছেন। ১৯০৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন। আল্লামা মুশাহিদ বায়ামপুরী ১৯৭১ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি ঈদুল আযহার রাতে ইন্তেকাল করেন।

উপমহাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও ইতিহাসের পট পরিবর্তনকারী নির্বাচন ছিল ১৯৭০ সালের নির্বাচন। পরবর্তীতে বিএনপির চেয়ারপার্সন ও দেশের রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আব্দুস সাত্তারের অধিনে অনুষ্ঠিত সে নির্বাচনের পথ ধরেই নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধ। ১৯৭০ সালের সে নির্বাচনে সিলেট-৭ আসন গঠিত ছিলো কানাইঘাট, বিয়ানীবাজার ও জকিগঞ্জ নিয়ে। নির্বাচিত হন বিয়ানীবাজারের এডভোকেট আব্দুর রহীম। তিনি সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ উপজেলার কালিদাসপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। অবশ্য তাঁর জন্ম এ গ্রামের আরেকটু পুর্ব পাশে বিয়ানীবাজার উপজেলার রাউতগ্রামে। পরবর্তীতে তারা কালিদাসপাড়ায় বসতি স্থাপন করেন। আব্দুর রহীম ন্যাপ নেতা ছিলেন। ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত ন্যাপের সিলেট জেলা কমিটির আহবায়ক ছিলেন। সত্তরের নির্বাচনের পুর্বে আওয়ামী লীগে যোগ দেন এবং নির্বাচন করে বিজয়ী হন। দেশ স্বাধীনের পর গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার নিয়ে আলাদা আসন গঠিত হলে ১৯৭৩ সালে জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে সিলেট-৬ আসন (গোলাপগঞ্জ-বিয়ানীবাজারের একাংশ) থেকে পুনরায় এমপি নির্বাচিত হন। ১৯৭৬ সালে সিলেট জেলা আওয়ামীলীগ এর সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৯০ সাল পর্যন্ত আমৃত্যু এ পদে বহাল ছিলেন।

১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিজয়ী হলেও ভোটের হিসেবে এগিয়ে ছিল ইসলামপন্থিরা। তাদের ভোট ভাগ হয়ে যাওয়ায় সেদিন তাদের কেউ পাশ করতে পারেনি। ২য় ও ৩য় অবস্থানে ছিলেন খেজুর গাছ প্রতীক নিয়ে জমিয়তের প্রার্থী আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী এবং দাঁড়িপাল্লা প্রতীক নিয়ে জামায়াতের প্রার্থী কানাইঘাটের ঝিঙ্গাবাড়ী গ্রামের শামসুল হক। তারা দুজনই ১৯৭০ এর নির্বাচনে ভালো ভোট পেয়েছিলেন। এই নির্বাচনের প্রাক্কালে মুশাহিদ বায়মপুরী জামায়াতে ইসলামী যোগদান করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তখন জামায়াতের রুকন ছাড়া কাউকে প্রার্থী দেওয়া হতো না। মুশাহিদ বায়মপুরী রুকন ছিলেন না বলে তাঁকে জামায়াত নমিনেশন দেয়নি। প্রার্থী করা হয়েছিল জামায়াতের সে সময়ের কেন্দ্রীয় নেতা ঝিংগাবাড়ী ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শামসুল হককে। সেদিন যদি জামায়াত মুশাহিদ বায়মপুরীকে প্রার্থী করতো, তিনি নিশ্চিত পাশ করতেন। কারণ, তিনি খুবই অল্প ভোটের ব্যবধানে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছিলেন। অবশ্য মরহুম শামসুল হকও খুব জনপ্রিয় ছিলেন। তিনি খুবই গ্রহণযোগ্য চেয়ারম্যান ছিলেন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে সারাদেশে সব আসনেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছিল, মাত্র দুটি আসন বাদে।

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ তারিখে। তখন কানাইঘাট, জৈন্তাপুর ও গোয়াইনঘাট উপজেলা নিয়ে গঠিত ছিল সিলেট-৫। দেশের প্রথম সংসদ নির্বাচনে এই আসনের এমপি নির্বাচিত হন কানাইঘাটের রতনপুর গ্রামের হাবিবুর রহমান (তোতা মিয়া)। তিনি সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। ১৯৭৮ সালে মৃত্যুবরণ করেন। জৈন্তাপুরের নিজপাট ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মখলিছুর রহমান দৌলা হচ্ছেন হাবিবুর রহমানের ভাতিজা এবং বর্তমান চেয়ারম্যান সম্রাট হচ্ছেন নাতি। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের মতো ১৯৭৩ সালের নির্বাচনেও জমিয়তের প্রার্থী নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন। জমিয়তের প্রার্থী ছিলেন শেখজাদা ফারুক আহমদ। তিনি মুশাহিদ বায়মপুরীর ছেলে। সাবেক এমপি ফয়জুল হাসান এই নির্বাচনে ন্যাপ (মোজাফফর) এর প্রার্থী হিসেবে কুড়ে ঘর প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছিলেন।

বৃহত্তর জৈন্তা নিয়ে গঠিত এই আসনটি পুর্ণবিন্যাস হয় ১৯৭৭ সালে। জিয়াউর রহমানের সময় জকিগঞ্জের এমএ হক সাহেবের উদ্যোগে আসনের নতুন সীমানা নির্ধারিত হয়। ফলে জৈন্তাপুর ও গোয়াইনঘাট পৃথক হয়ে যায় এই আসন থেকে। সিলেট-৫ আসন পুনর্গঠিত হয় কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ উপজেলা নিয়ে। পুনর্বিন্যাসের আগে জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজারের একাংশ ( আলীনগর, চারখাই, শেওলা ও দুবাগ ইউনিয়ন) নিয়ে একটি নির্বাচনী আসন ছিলো ১৯৭৩ সালের নির্বাচনে। সেই নির্বাচনে এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন জকিগঞ্জের খলাছড়া ইউনিয়নের গাংলাজুর গ্রামের আব্দুল লতিফ।

জিয়াউর রহমানের সময় ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারী তারিখে দেশে দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পুনর্গঠিত এই আসনে সে নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএ হক, যিনি পরবর্তী সময়ে এরশাদ সরকারের মন্ত্রী হয়েছিলেন। ১৯১৮ সালে জকিগঞ্জ উপজেলার কামালপুর গ্রামে জন্মগ্রহণকারী এমএ হক পুলিশের আইজিপি ছিলেন। চট্রগ্রামের এসপি থাকার সময় তিনি ফজলুল কাদের চৌধুরীর বোন তথা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ফুফু বেগম ফাহমিদা বেগমকে বিয়ে করেন। এমএ হক ঢাকার মৌচাক মার্কেট, পলওয়েল মার্কেট, জোনাকি সিনেমা হল, রাজারবাগ পুলিশ লাইনস স্কুল ইত্যাদির প্রতিষ্ঠাতা। তিনি ১৯৯৬ সালের ৬ এপ্রিল মারা যান। এরশাদ সরকারের আমলে মন্ত্রী থাকলেও এবং জাতীয় পার্টির নেতা হলেও, জিয়াউর রহমানের হাত ধরে বিএনপিতে যোগ দিয়েছিলেন এমএ হক। ১৯৭৯ সালের নির্বাচনে জিয়াউর রহমান তাঁকে বিএনপির নমিনেশন না দিলে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে হারিছ চৌধুরী বিরুদ্ধে নির্বাচনে দাঁড়ান। এ সময় সারাদেশে বিএনপির প্রার্থীরা একচেটিয়া পাশ করলেও হারিছ চৌধুরীর শোচনীয় পরাজয় ঘটে। ১৯৭৯ সালের সে নির্বাচেন মুসলিম লীগ প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন মিনিস্টার আব্দুছ সালাম। তিনি নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন এমএ হকের। জিয়াউর রহমানের সময় মুসলিম লীগ সহ বিভিন্ন দলের কার্যক্রম আবার শুরু হলে মিনিস্টার আব্দুছ সালাম ১৯৭৬ সালে আবার বাংলাদেশ মুসলিম লীগ সিলেট জেলা শাখার সভাপতি নির্বাচিত হন।

১৯৮৬ সালের ৭ মে তৃতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এরশাদ সরকারের আমলে সে নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে এমপি নির্বাচিত হন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাহমুদুর রহমান মজুমদার। তিনি ১৯২২ সালের ২৫ ডিসেম্বর ভারতের কাছাড় জেলার কাঠিহড়া থানার চন্ডিনগর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯ ডিসেম্বর ২০১২তারিখে ইন্তেকাল করেন। ব্রিগেডিয়ার মজুমদার ১৯৭১ সালের মার্চ মাসে চট্টগ্রামের ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট সেন্টারের কমান্ড্যান্ট (ইবিআরসি) ছিলেন। ওই সময় তিনিই পূর্ব পাকিস্তানে কর্মরতদের মধ্যে সর্ব জ্যেষ্ঠ বাঙালি অফিসার ছিলেন। সে সময় তিনি সরাসরি জিয়াউর রহমানের বস ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ শুরুর প্রাক্কালে তিনি ঐতিহাসিক অবদান রাখেন। পাকিস্তানি বাহিনী ২৫ মার্চের রাতেই ব্রিগেডিয়ার মজুমদারকে গ্রেপ্তার করে পাকিস্তানে পাঠিয়ে দেয়। দেশ স্বাধীন হলে ডিসেম্বর মাসে বন্দী অবস্থা থেকে ছাড়া পান এবং অন্যান্য বাঙালি সেনা কর্মকর্তার সঙ্গে কনসেনট্রেশন ক্যাম্পে আটক থাকেন। ১৯৭৩ সালে দেশে ফেরত আসেন। ১৯৮৬ সালের সে নির্বাচনে জনদলের প্রার্থী ও দলটির চেয়ারম্যান এমএ হক নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন। তিনি এরশাদ সরকারের ভূমি মন্ত্রী থাকলেও নির্বাচনে আগে তাঁর মন্ত্রীত্ব চলে যায়। অভিযোগ রয়েছে, এতে হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর হাত ছিল। এমএ হক বাদ পড়ার পর হুমায়ুন রশীদ এরশাদের মন্ত্রী হন। ২০০১ সালে জাতীয় পার্টির প্রার্থী রেয়াজুল হক হচ্ছেন এমএ হকের ছেলে। আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও রংপুর-৫ আসনের বর্তমান নৌকার প্রার্থী সাবেক প্রতিমন্ত্রী এনএইচ আশিকুর রহমান হলেন এমএ হকের মেয়ে রেহানা হকের স্বামী।

চতুর্থ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৮৮ সালের ৩ মার্চ। আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জামায়াত সহ দেশের প্রায় সকল রাজনৈতিক দল এই নির্বাচন বয়কট করে। সেই পাতানো নির্বাচনে বিরোধি দল হয় জাসদ এবং বিরোধি দলীয় নেতা হন জাসদের আসম রব। এরশাদ তথা গোয়েন্দা সংস্থার সরবরাহকৃত টাকায় জাসদের প্রার্থীদের সারাদেশে নির্বাচনে নামকাওয়াস্তে দাঁড় করানো হয় একটা নির্বাচন দেখানোর জন্য। একতরফা এবং বিতর্কিত সেই নির্বাচনে আবারো এমপি নির্বাচিত হন ব্রিগেডিয়ার মজুমদার। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন জাসদের প্রার্থী কানাইঘাটের মহেষপুর গ্রামের আব্দুল হামিদ। তার প্রতীক ছিল মশাল। হাতে গুণা কিছু ভোট পেয়েছিলেন আব্দুল হামিদ।

খালেদা জিয়া সরকার গঠন করেন ১৯৯১ সালে। জামায়াতের সমর্থন নিয়ে প্রথম বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন। বিচারপতি শাহাবুদ্দীন আহমদের অধিনে ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারী তারিখে অনুষ্ঠিত সে নির্বাচন দেশে বিদেশে গ্রহনযোগ্য হয়। সে সময় সারাদেশে ধানের শীষ এবং নৌকার সয়লাব হলেও এখান থেকে মিনার প্রতীক নিয়ে পাশ করেন ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী এবং খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা ওবায়দুল হক। তিনি রানাপিং মাদ্রাসার মুহাদ্দিস ছিলেন। তাঁর বাড়ি জকিগঞ্জ উপজেলার খলাছড়া ইউনিয়নের উজিরপুর গ্রামে। তিনি ১৯৩৪ সালে জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০০৮ সালের ১৭ জানুয়ারী তারিখে মারা যান। ৫ম সংসদে ইসলামী ঐক্যজোটের একটি মাত্র আসন ছিল। সেটি এই সিলেট-৫। বিএনপির প্রভাবশালী কেন্দ্রীয় নেতা হারিছ চৌধুরীও সে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। তিন চতুর্থ স্থান অধিকার করেছিলেন। ফলে অভিমান করে আর নির্বাচনে দাঁড়াননি। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবং দাঁড়িপাল্লা প্রতীক নিয়ে জামায়াতের প্রার্থী সম্মানজনক ভোট পেয়েছিলেন। উল্লেখ্য, সে নির্বাচনে হারিছ চৌধুরীর নিজ বাড়ির কেন্দ্র তথা দর্পনগর কেন্দ্রে ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী বিজয়ী হয়েছিলেন।

একটি মাত্র নির্বাচনে বিএনপির প্রাথী বিজয়ী হয়েছিলেন। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারীর সেই এক তরফা নির্বাচনে এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন কানাইঘাটের বায়মপুর গ্রামের আবুল কাহির চৌধুরী। আওয়ামী লীগ, জামায়াতে ইসলামী সহ দেশের প্রায় সকল রাজনৈতিক দল সে নির্বাচন বয়কট করে। ফলে নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত ৫ম সংসদের মেয়াদ ছিল মাত্র চার দিন। সে হিসেবে বলা চলে, আবুল কাহির চৌধুরী মাত্র চার দিনের এমপি ছিলেন। সে নির্বাচনে বর্তমান কানাইঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান দর্পনগরের আশিক উদ্দিন চৌধুরী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ডাব মার্কা নিয়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছিলেন। কানাইঘাটের চলিতাবাড়ির শাহাব উদ্দীনও স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন আম মার্কা নিয়ে।

১৫ ফেব্রুয়ারী সেই এক তরফা নির্বাচনের কিছুদিন পর ১৯৯৬ সালের ১২ই জুন অনুষ্ঠিত হয় দেশে ষষ্ঠ সংসদ নির্বাচন। হারিছ চৌধুরী কিংবা কাহির চৌধুরী কিংবা আশিক চৌধুরী সে নির্বাচনে বিএনপি থেকে প্রার্থী হতে কোনভাবেই আগ্রহী না হলে জাতীয় পার্টি থেকে বিএনপিতে যোগ দিয়ে হারিছ চৌধুরীর মামা এমএ মতিন চৌধুরী ধানের শীষের প্রার্থী হন। মতিন চৌধুরী খুবই কম ভোট পান। জামানত হারান। নির্বাচন শেষে তিনি আবার জাতীয় পার্টিতে ফিরে যান। সে নির্বাচনে বিজয়ী হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাফিজ আহমদ মজুমদার। নির্বাচনে ২য় স্থান অধিকার করেন জামায়াতের মাওলানা ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী। অবশ্য নির্বাচনের দিন পর্যন্ত ভোটে এগিয়ে ছিলেন ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী। রেডিও-টিভিতে তাঁকে বিজয়ী ঘোষণাও করা হয়েছিল। এক সপ্তাহ পরে স্থগিত হওয়া হাফিজ আহমদ মজুমদারের বাড়ির কেন্দ্রে ভোটাভোটির পর পাশ করেন ইতোমধ্যে ক্ষমতাসীন হয়ে যাওয়া আওয়ামী লীগের প্রার্থী। জকিগঞ্জ উপজেলার কসকনকপুর ইউনিয়নের বলরামের চক গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা হলেও হাফিজ আহমদ মজুমদারের জন্ম ১৯৩৩ সালের ২৯ শে মার্চ ভারতের করিমগঞ্জের নওজিস নগরে। দেশ ভাগের পর তারা বলরামের চক গ্রামে স্থায়ী হন। হাফিজ আহমদ মজুমদার হচ্ছেন মরহুম ব্রিগেডিয়ার মজুমদারের ভাতিজা। ১৯৯৬ সালের সে নির্বাচনে ইসলামী দলগুলো ভাল ভোট পায়। খেজুর গাছ নিয়ে মাওলানা আলিমুদ্দীন দুর্লভপুরী, ঘড়ি মার্কা নিয়ে ফুলতলী পীরের প্রার্থী মাওলানা হাবিবুর রহমান ৩য় ও ৪র্থ অবস্থানে ছিলেন। লাঙল প্রতীক নিয়ে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান কানাইঘাটের বড়দেশ গ্রামের এমএ রকিব খুব একটা ভোট টানতে পারেননি।

বিএনপি নেতৃত্বাধিন চারদলীয় জোট সমর্থিত ও জামায়াতে ইসলামী মনোনীত প্রার্থী মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী ২০০১ সালে এমপি নির্বাচিত হন। সে বছরের ১ অক্টোবর তারিখে অনুষ্ঠিত সে নির্বাচনের পর বিএনপির সাথে কোয়ালিশন সরকারে যোগ দেয় জামায়াতে ইসলামী। ১৯৪১ সালে জামায়াতে ইসলামী প্রতিষ্ঠার পর সিলেট বিভাগের কোন আসনে এটাই জামায়াতের প্রথম জয়লাভ। ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী কানাইঘাট উপজেলার তালবাড়ী গ্রামে ১৯৪৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মাওলানা আব্দুল হক একজন বড় আলেম ও পীর ছিলেন। তাঁর দাদাও বড় মাপের মানুষ ছিলেন। ২০০১ সালে নির্বাচনে ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী ৭৭,৭৫০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন। মোট কাস্টিং ভোটের ৪৭.০১% ভোট তিনি পেয়েছিলেন। অন্যদিকে তাঁর নিকটতম প্রার্থী আওয়ামী লীগের হাফিজ আহমদ মজুমদার পেয়েছিলেন ৫২,৮৮৫ ভোট। জাতীয় পার্টির প্রার্থী রেয়াজুল হক অল্প সংখ্যক ভোট পান। সে নির্বাচনে আরো কিছু প্রার্থী ছিল যারা কয়েক শত করে ভোট পেয়েছে।

২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারীর বাতিল হওয়া নির্বাচনে এখান থেকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ছিলেন ফুলতলী পীর সাহেবের ছেলে মাওলানা হুসামউদ্দীন চৌধুরী। ২২ জানুয়ারীর বাতিল হওয়া সেই নির্বাচনে চারদলীয় জোটের প্রার্থী ছিলেন জামায়াতের মাওলানা ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী। সেই নির্বাচনে দর্পনগরের আশিক চৌধুরী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছিলেন ফরিদ উদ্দীন চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে। ২০০১ সালের ১১ জানুয়ারী দেশে জরুরী অবস্থা জারির ফলে সে নির্বাচন বাতিল হয়ে যায়। এই ১১ জানুয়ারীতে জরুরী অবস্থা জারি হয় বলে একে বলে ওয়ান-ইলেভেন। বাতিল হওয়া ৯ম সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর। সে নির্বাচনে হুসাম উদ্দীনকে আর নৌকা প্রতীক দেয়নি আওয়ামী লীগ। অবশ্য ২০০৮ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে ফুলতলী পীরের এই ছেলে নমিনেশন দাখিল করেছিলেন। সে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন হাফিজ আহমদ মজুমদার। তিনি বিজয়ী হন। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ছিল- ১,০৯,৬৯০। তাঁর নিকটমতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন জামায়াতের মাওলানা ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী। তাঁর প্রাপ্ত ভোট ছিল- ৭৮,০৬১, যা মোট ভোটের হিসাবে ৩২% এবং কাস্টিং ভোটের হিসাবে ৩৮.২৯%।

বাংলাদেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন ও হাস্যকর এবং ১৫৪ অনির্বাচিত এমপির সে দশম সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী। সেই নির্বাচনে এখান থেকে বিনাভোটে এমপি নির্বাচিত হন বিয়ানীবাজার উপজেলার নালবহর গ্রামের সেলিম উদ্দীন। সেই নির্বাচনে জকিগঞ্জের শাব্বির আহমদ ও আওয়ামী লীগের এডভোকেট মাশুক উদ্দীন আহমদ মনোয়নপত্র দাখিল করলেও শেষ পর্যন্ত প্রত্যাহার করে নেন। নির্বাচনের নামে অনির্বাচনে এমপি হয়ে যান সেলিম উদ্দীন।

একাদশ সংসদ নির্বাচন আসছে ৩০ ডিসেম্বর তারিখে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এই নির্বাচনে বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির সেলিম উদ্দীন তাঁর দলের প্রার্থী হিসেবে মাঠে আছেন। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে সাবেক এমপি হাফিজ আহমদ মজুমদারকে। বিএনপি নেতৃত্বাধিন জোট থেকে নমিনেশন দেওয়া হয়েছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুককে। জামায়াতের মাওলানা ফরিদ উদ্দীন চৌধুরীকে নমিনেশন দেওয়ার কথা থাকলেও একেবারে শেষ সময়ে চূড়ান্ত নমিনেশন পত্র তুলে দেওয়া হয় উবায়দুল্লাহ ফারুকের হাতে। অতীতে কখনো প্রার্থী না দিলেও এবার চরমোনাই পীরের দলও এখানে প্রার্থী দিয়েছে। আরো কয়েক জন প্রার্থী থাকলেও তারা নেই আলোচনায়। ফলে এখানে ত্রিমুখী লড়াই হতে পারে নৌকা, ধানের শীষ ও লাঙলে। অবশ্য, নির্বাচনের ক্ষণ ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে লাঙলের ভোট কমে যাচ্ছে। শেষ পর্যন্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে নৌকা ও ধানের শীষে। সেলিম উদ্দীন জামানতও হারাতে পারেন।

সিলেট-৫ (কানাইঘাট-জকিগঞ্জ) আসনে জাতীয় নির্বাচনে একটু ভিন্ন হিসেব কাজ করে সব সময়। অতীতের নির্বাচনগুলোকে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে, প্রকৃত অর্থে নির্বাচন হলে এখানকার ভোটাররা স্রোতের সাথে গা ভাসিয়ে ভোট দেয় না। নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকেই ভোট দেয়। সরকার কে গঠন করবে- এমন চিন্তা থেকে এখানকার ভোটাররা ভোট দেয় না। ভোট দেয় নিজেদের ইচ্ছার প্রতিফল ঘটানোর জন্য। দেখা যাক, আসছে নির্বাচনে কার গলে উঠে বিজয় মাল্য। গুণছি অপেক্ষার প্রহর।

লেখক: সাংবাদিক ও পিএইচডি গবেষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

এই সংবাদটি 12 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com