রবিবার, ৩০ ডিসে ২০১৮ ০৫:১২ ঘণ্টা

৪৭ বছরের ইতিহাসে এবারের নির্বাচন সংঘাতহীন: আ. লীগ

Share Button

৪৭ বছরের ইতিহাসে এবারের নির্বাচন সংঘাতহীন: আ. লীগ

ডেস্ক রিপোর্ট: আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, বাংলাদেশের গত ৪৭ বছরের ইতিহাসে এবারের নির্বাচন সংঘাতহীন হয়েছে। যদিও কিছু কিছু জায়গায় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে, তকে সেগুলো খুবই নগণ্য। তৃতীয় বিশ্বের যেকোনও দেশে সাধারণ নির্বাচনে এর চেয়ে অনেক বেশি সংঘাত হয়। হতাহতের সংখ্যা অনেক বেশি থাকে। রবিবার (৩০ ডিসেম্বর) ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক জরুরি ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

 জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, আমরা মনে করি এবারের নির্বাচন যেকোনও সময়ের চেয়ে শান্তিপূর্ণ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক হয়েছে। যে ১০ জনের প্রাণ গেছে তারা সবাই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী। আমরা এটা অনেক আগে থেকেই আশঙ্কা করেছিলাম যে, বিএনপি-জামায়াত তাদের শেষরক্ষার জন্য যেকোনও ধরনের অপতৎপরতা চালাতে পারে। আমরা এজন্য দেশবাসীকে বারবার সতর্ক করেছি। দেশবাসী এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতার কারণে তারা বড় ধরনের কোনও নাশকতা চালাতে পারেনি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ভোটের উৎসব ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার জন্য অত্যন্ত ধৈর্য সহকারে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে। সকাল আটটা থেকে সারা দেশে অত্যন্ত উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ চলছে। ইতোমধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে প্রায় ৬ ঘণ্টা ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। আমরা সর্বত্রই ভোটারদের সরব উপস্থিতি দেখতে পাচ্ছি। আশা করছি, ভোটগ্রহণের শেষ সময় পর্যন্ত আনন্দঘন পরিবেশে মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। অতীতের যেকোনও নির্বাচনে থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সহিংসতা কম হচ্ছে।

জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, বিএনপি-জামায়াতের নিশ্চিত পরাজয় জেনে ভোটের আগের রাত থেকেই আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। তারা সারাদেশে বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে সহিংসতা অব্যাহত রেখেছে। প্রতি মুহূর্তেই সারা বাংলাদেশের বিভিন্ন নির্বাচনি এলাকা থেকে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর হামলার খবর পাওয়া যাচ্ছে। সহিংসতা যা ঘটছে তার মধ্যে শুধু এখন পর্যন্ত ১০ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী নিহত হয়েছে, ৫৫ জন আহত হয়েছে। ছয়টি জায়গায় বোমা হামলা চালানো হয়েছে, ১০টি যানবাহনে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। সাতজন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আহত হয়েছেন। বেশ কয়েকটি ভোটকেন্দ্রে হামলা চালিয়ে ভোটগ্রহণ বন্ধ করে দিয়েছে। নোয়াখালী-২ আসনে দায়িত্বপ্রাপ্ত জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসানের গাড়িবহরে হামলা করা হয়েছে। চাঁদপুরের ম্যাজিস্ট্রেট হাসানের গাড়ি ভাঙচুর করেছে।

তিনি বলেন, ঢাকা-১ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী সালমা ইসলাম, যাকে বিএনপি সমর্থন দিয়েছে, তার পক্ষে ভোট কেনার সময় ২৩ জন আটক হয়েছে। নেত্রকোনা ৪ আসনে ভোট কেনার সময় জেলা বিএনপির সদস্য ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আটক হয়েছে। এভাবে সারা দেশে তারা সহিংসতা ও সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করার অপচেষ্টা চালিয়ে জনগণের ভোটাধিকার প্রয়োগের পথ অবরুদ্ধ করেছে।

পরাজয় নিশ্চিত জেনে বিএনপি-জামায়াত নির্বাচন বর্জনের নাটক শুরু করেছে বলে দাবি করেন নানক। তিনি বলেন, তাদের অনেকেরই জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেই ভয় থেকেই তারা ভোট বর্জনের খেলা শুরু করেছে। বিএনপি-জামায়াতের নীতি হলো নির্বাচনে জিতলে আছি, হারলে নাই। এখন পর্যন্ত বিদেশি পর্যবেক্ষকরা নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছে। সার্কভিত্তিক পর্যবেক্ষক এবং নির্বাচন কমিশন সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে।

নানক বলেন, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার পুরনো কৌশল বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মিথ্যা অপবাদ দেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশে ভোট ডাকাতির ইতিহাস সৃষ্টিকারী বিএনপি নির্বাচনে পরাজয়ের সম্ভাবনা দেখলেই ভোট কারচুপির অভিযোগ করে। এখন ড. কামাল হোসেন নিজেদের ব্যর্থতা আড়াল করতে নির্বাচন কমিশন ঘেরাওয়ের নামে জনগণের রায় ডাকাতির ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। আমরা হুঁশিয়ার করে বলে দিতে চাই, জনগণের ভোট ডাকাতির অধিকার কারও নেই। জনগণের রায় নিয়ে কাউকে রাজনীতি করতে দেওয়া হবে না।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের আরেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বিএম মোজাম্মেল হক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ-দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য গোলাম রব্বানী চিনু এবং সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

এই সংবাদটি 1,183 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com