মঙ্গলবার, ০১ জানু ২০১৯ ১১:০১ ঘণ্টা

স্বাগত ২০১৯, নতুন বছরে শান্তি ও সমৃদ্ধি আসুক

Share Button

স্বাগত ২০১৯, নতুন বছরে শান্তি ও সমৃদ্ধি আসুক

ডেস্ক রিপোর্ট:

স্বাগত ২০১৯। বিদায় ২০১৮। বিশ্ববাসীর সঙ্গে বাংলাদেশের মানুষও এই খ্রিষ্টীয় বছরকে বরণ করবে নতুন আশা, স্বপ্ন ও উদ্দীপনা নিয়ে।নতুন বছরে বাংলাদেশে শান্তি ও সমৃদ্ধি আসুক। সরকারের যেকোনো কর্মপরিকল্পনায় নাগরিক নিরাপত্তা অগ্রাধিকার পাক, এটাই প্রত্যাশা। আমাদের সব পাঠক, লেখক ও শুভানুধ্যায়ীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাই। কালের পরিক্রমায় একটি বছর হয়তো খুব বেশি সময় নয়। তারপরও স্বীকার করতে হবে যে ব্যক্তি ও রাষ্ট্রীয় জীবনের সাফল্য-ব্যর্থতা পরিমাপ করার ক্ষেত্রে বছরের হিসাব-নিকাশটি গুরুত্বপূর্ণ। নদীর স্রোত ও সময় কখনো স্থির থাকে না। বিগত বছরে আমরা কী করতে পেরেছি, কী করতে পারিনি, তার নির্মোহ বিচার-বিশ্লেষণ জরুরি সামনের পথ সুগম করার জন্যই।

বিগত বছরটিতে আর্থসামাজিক, রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হয়েছে। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ফেরত নেওয়ার অঙ্গীকার করেও মিয়ানমার ফেরত নেয়নি। ফলে আগের ৩ লাখসহ ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীর ভার বহন করতে হচ্ছে সমস্যাসংকুল এই বাংলাদেশকে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এ ব্যাপারে কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়েছে। বিশেষ করে, চীন ও রাশিয়ার ভূমিকা মিয়ানমারের চণ্ডনীতিকেই উৎসাহিত করেছে। আমরা আশা করব, নতুন বছরে এ বিষয়ে বিশ্বসম্প্রদায় এগিয়ে আসবে এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দেশে ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে বাধ্য করাবে।

গত বছর আলোচিত ঘটনাগুলোর মধ্যে ছিল কোটা সংস্কার ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত ও শান্তিপূর্ণ আন্দোলন, যা আমাদের সবার জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হতে পারত। কিন্তু তরুণদের এই স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনে সরকারের যেভাবে সাড়া দেওয়ার কথা, সেভাবে তারা দেয়নি বা দিতে পারেনি। সরকার সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা বাতিল করার ঘোষণা দিলেও ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও প্রতিবন্ধীদের বিশেষ সুবিধা পাওয়ার বিষয়টি অমীমাংসিতই থেকে গেছে। অন্যদিকে শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন গড়ে তুললেও যাত্রীসাধারণের নিরাপত্তায় কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারেনি সরকার। আন্দোলনের মুখে তারা সড়ক নিরাপত্তা আইন পাস করলেও সেই আইনের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন সড়ক পরিবহন মালিক ও শ্রমিকেরা। এটি দুঃখজনক। সড়ক নিরাপদ হলে যাত্রীসাধারণের সঙ্গে পরিবহনশ্রমিকেরাও নিরাপদ থাকবেন।

তবে ২০১৮ সালের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচন। প্রথম প্রশ্ন ছিল নির্বাচনটি অংশগ্রহণমূলক হবে কি না? বিরোধী দল শুরু থেকে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি করে এসেছে এবং এই দাবিতে ২০১৪ সালের নির্বাচন বর্জন করেছিল। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দল বলে আসছে, সংবিধানের বাইরে তারা যাবে না। এই বাদানুবাদ সত্ত্বেও বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বহুল আলোচিত সংলাপের পরিপ্রেক্ষিতে ৩০ ডিসেম্বর সব দলের অংশগ্রহণে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয়েছে। কিন্তু নির্বাচন নিয়ে বিতর্কের অবসান হয়নি। সরকারি দল বলেছে, নির্বাচনটি সুষ্ঠু ও অবাধ হয়েছে। অন্যদিকে বিরোধী দল ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করেছে। বছর শেষের এই রাজনৈতিক বিরোধ নতুন বছরে যাতে বড় ধরনের বিপত্তি তৈরি না করে, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।

নির্বাচন যেভাবেই হোক না কেন, নতুন বছরে বাংলাদেশ নতুন একটি সরকার পেতে যাচ্ছে। এই সরকারের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ হবে পদ্মা সেতুসহ চলমান প্রকল্পগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন করা। অর্থনৈতিক ও ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ধারাবাহিক সাফল্য থাকলেও দুটি ক্ষেত্রে দেশ এখন নাজুক অবস্থায় আছে। ব্যাংকিং খাতের দুর্নীতি-অনিয়ম এবং কর্মসংস্থানের অভাব। নতুন বছরে সমস্যা দুটি সমাধানে সরকার দৃঢ় ও টেকসই ব্যবস্থা নেবে, এই প্রত্যাশা করা নিশ্চয়ই অযৌক্তিক হবে না।

নতুন বছরে বাংলাদেশে শান্তি ও সমৃদ্ধি আসুক। সরকারের যেকোনো কর্মপরিকল্পনায় নাগরিক নিরাপত্তা অগ্রাধিকার পাক, এটাই প্রত্যাশা। আমাদের সব পাঠক, লেখক ও শুভানুধ্যায়ীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাই।

এই সংবাদটি 1,022 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com