বুধবার, ১৬ জানু ২০১৯ ০৮:০১ ঘণ্টা

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান পদে তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী প্রস্তুত

Share Button

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান পদে তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী প্রস্তুত

সিলেট রিপোর্ট:  দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটিরসদস্য ও সুনামগঞ্জ জেলা সাধারণ সম্পাদক জননেতা মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরীকে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিশদলীয় জোটের পক্ষ থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে প্রার্থী করার জোর দাবি জানিয়েছেন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধিরা। বিগত উপজেলা নির্বাচনে ১ম বারের মত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়ে চমক সৃষ্টি করা মাওলানাকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী করা হলে অনায়াসে বিজয়ী হতে পারবেন বলে তারা মনে করছেন। বিগত নির্বাচনে তিনি বিএনপি ও আওয়ামী লীগ এবং জামাতের প্রার্থীদের সাথে পাল্লা দিয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়লাভ করেন। বাংলাদেশে জমিয়তের ইতিহাসে প্রথম ভাইস চেয়ারম্যান হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেন তিনি। দলীয়ভাবে তিনি বিশদলীয় জোটের অন্যতম শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সাথে সম্পৃক্ত ছাত্র জমানা থেকে। একজন মেধাবী ছাত্র হিসেবে তিনি ছাত্র জমিয়তের তৃণমূল থেকে নিয়ে কেন্দ্র পর্যন্ত বিভিন্ন দায়িত্ব সফলতার সাথে অাঞ্জাম দিয়েছেন। পরপর দুবার সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে যুব সংগঠনের কাণ্ডারি হিসেবে জেলা যুব জমিয়তের সভাপতির দায়িত্ব পান। সর্বশেষ যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহসভাপতির দায়িত্ব পালনকালে তৃণমূল নেতাকর্মীদের অাহবানে মূল সংগঠন জমিয়তের দায়িত্বে চলে আসেন। প্রথম সেশনে সুনামগঞ্জ জেলা সহ সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে গত ১৪ জুলাই জেলা জমিয়তের সর্বশেষ কাউন্সিলে বিপুল ভোটে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। শিক্ষকতা ও রাজনীতির পাশাপাশি তিনি সাহিত্য সংস্কৃতির সাথে অতপ্রোতভাবে জড়িত। সাহিত্য সাময়িকীতে লেখালেখির সাথে তার সম্পাদনায় একাধিক স্মারকগ্রন্থ বের হয়েছে। সিলেটের জনপ্রিয় মাসিক ম্যাগাজিন তৌহিদী পরিক্রমার সহসম্পাদক তিনি। ইসলামি শিক্ষা ও সংস্কৃতির বিকাশে সুনামগঞ্জ উন্নয়ন ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করে ছাত্রছাত্রীদের মাঝে মেধাবৃত্তি চালু করেছেন। মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী বিগত ৫ বছর ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে সীমাবদ্ধতার দরুন তার যোগ্যতা ও মেধাকে কাজে লাগাতে পারেননি। তবে উপজেলা পরিষদে সক্রিয় অংশ গ্রহণের মাধ্যমে যে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছেন তাকে কাজে লাগাতে তিনি চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে চান। দল ও জোট যদি নির্বাচনে আসে তাহলে নির্বাচন করার জন্য তিনি প্রস্তুত অাছেন বলে রিপোর্টারকে জানিয়েছেন। সদ্য সমাপ্ত জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনিত প্রার্থী মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরীর নির্বাচনী সমন্বয়কারী হিসেবে তিনি পুরো উপজেলা চষে বেড়িয়েছে। এখনো প্রতিদিন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার মাধ্যমে পুরোদমে মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন। মাঠ পর্যায়ে জরিপ চালিয়ে জানা গেছে একজন ভদ্র, সুশিক্ষিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে এলাকার তাঁর যতেষ্ট সুনাম সুখ্যাতি রয়েছে। বিগত বছরের ভাইস চেয়ারম্যানের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে একটি শান্তিপূর্ণ, দুর্ণীতিমুক্ত উপজেলা গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবেন বলে সচেতন ভোটারদের ধারণা। বিশেষ করে সুদ, ঘুষ ও দুর্ণীতির বিরুদ্ধে তাঁর শক্ত অবস্থান সাধারণ জনগণের নিকট ব্যাপক সমাদৃত হয়েছে।

সচেতন ভোটারদের মতে অাসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী সর্বাধিক বিবেচনায় একজন যোগ্য প্রার্থী। তিনি রানিং ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব সফলতার সাথে পালনের পাশাপাশি একজন সুদক্ষ মুহাদ্দিস, বিদগ্ধ লেখক, সু সাহিত্যিক ও সমাজসেবী হিসেবে অবদান রেখে যাচ্ছেন। সময়োপযোগি নেতৃত্বের মাধ্যমে সুনামগঞ্জ উন্নয়ন ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করে জেলার ছাত্রছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে যাচ্ছেন। প্রতি বছর শিক্ষা মুলক প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণীর মাধ্যমে শিক্ষা বিস্তারের পাশাপাশি অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে তিনি সোচ্চার ভূমিকা পালন করে আসছেন। তারমত একজন সৎ, খোদাভীরু ও সুশিক্ষিত কাণ্ডারি পেলে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা একটি মডেল ও শান্তিপ্রিয় উপজেলায় রূপান্তরিত হবে। আমরা তরুণ প্রজন্মের পক্ষ থেকে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের বর্তমান সফল ভাইস চেয়ারম্যান, জননেতা মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরীকে উপজেলা “চেয়ারম্যান” হিসেবে দেখতে চাই। ‘ মর্মে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। এব্যাপারে তৈয়্যিবুর রহমান চেৌধুরী সিলেট রিপোর্টকে জানান, আমি এখনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। যদি এলাকাবাসী ও দলীয় ভাবে সিদ্ধান্ত হয় তাহলে আমি জনগনের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত রাখতে সদা প্রস্তুত আছি।’

এই সংবাদটি 1,052 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com