সোমবার, ২১ জানু ২০১৯ ০৯:০১ ঘণ্টা

হাওরাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী ঘাটুগান বা ঘেঁটুগান

Share Button

হাওরাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী ঘাটুগান বা ঘেঁটুগান

 

উত্তমকুমার রায়:

হাজার বছরের বাঙালি-সংস্কৃতির পথপরিক্রমায় আমাদের বাঙালি-সংস্কৃতির উন্মেষ, অনুশীলন ও বিকাশ । সেই হাজার বছর আগে চর্যাগীতির গীতলতার পথ বেয়ে বাংলা-গান আজ আজকের পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে । মা-মাটি-মানুষ থেকে উঠে আসা আমাদের সংস্কৃতি, আমাদের গান । একসময় নদ-নদী, খাল-বিল, হাওর-বাওর-বেষ্ঠিত বাংলাদেশের হাওরাঞ্চলে ঘাটুগানের উন্মেষ ঘটে । গ্রামবাংলার মানুষ বর্ষার জলবন্দি সময়টুকুতে বিনোদন হিসেবে ঘাটুগানকে অন্তরে স্থান দেয় । এই ঘাটুগানের ভেতর দিয়ে চিত্রিত হতো রাধাকৃষ্ণের প্রেমলীলা, মানুষের জীবনযাত্রার নানাবিধ ছবি । বাঙালি-সংস্কৃতির বিবর্তনধারায় ঘাটুগানের রয়েছে এক সুসংহত অবস্থান । কিন্তু হাওর-বাওর তথা ভাটিবাংলার এই জনপ্রিয় লোকসঙ্গীত আজ বিলুপ্তির পথে ।

ঘাটুগান বা ঘেঁটুগান

নদ-নদী, খাল-বিল, হাওর-বাওর অঞ্চল তথা ভাটিবাংলায় নৃত্যসহকারে প্রেম-বিরহের গানকে ঘাটুগান বলা হয় । লোকজ এ গানকে গাটুগান বা ঘেঁটুগানও বলা হয় । নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ ও সিলেট জেলার কোথাও কোথাও গাডুগান হিসেবে এর পরিচিতি রয়েছে । বর্ষার মৌসুমে হাওরাঞ্চল জলে টইটম্বুর থাকলে নৌকো ছাড়া কোথাও যাতায়াত করা যায় না । একধরনের বড়ো নৌকোয় করে ঘাটে ঘাটে সেই নৌকো ভিড়িয়ে পাটাতনে বা ঘাটের সুবিধেজনক স্থানে নৃত্যসহকারে এ-গান পরিবেশিত হতো বলে একে ঘাটুগান বলা হয় । ঘাট শব্দের অপভ্রংশ হিসেবে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ, সুনামগঞ্জের ধর্মপাশাসহ বেশকিছু অঞ্চলে ‘গাডু’ শব্দ প্রচলিত আছে ।

আভিধানিক অর্থ

বাংলাদেশের আঞ্চলিক ভাষার অভিধান অনুসারে বিশেষ ধরনের পেশাদার গাইয়ে ও নাচিয়ে ছেলেকে ঘাটু বলা হয় ।

ঘাটুশব্দে উচ্চারণভেদ

অঞ্চলবিশেষে ঘাটুশব্দের উচ্চারণ ভিন্ন ভিন্ন দেখা যায় । সাধারণত ঘাটু, ঘেঁটু, গাটু, গাডু, ঘাডু, গেন্টু, গাড়ু ইত্যাদি শব্দে বিভিন্ন অঞ্চলে ঘাটুকে নির্দেশ করা হচ্ছে । তবে শিক্ষিতমহলে ঘাটু হিসেবেই সমধিক প্রচলিত ।

সিরাজউদ্দিন কাসেমপুরীর মতে

আঞ্চলিক ভাষার গবেষক সিরাজউদ্দিন কাসেমপুরীর মতে, “গান্টু নামে বালকদের নৃত্য-সংবলিত একপ্রকার গান বৃন্দাবন মথুরা থেকে গঙ্গার তীর ধরে রাজমহল পর্যন্ত প্রচলিত ছিল; সে বিচারে গানগুলোর নাম ‘ঘাটু’ হওয়াই স্বাভাবিক ।”
গান + টু > গান্টু > ঘাটু, ঘাট + উ > ঘাটু ।

প্রবর্তক

ঘাটুগানের প্রবর্তক নিয়ে মতভেদ রয়েছে । তবে উদয় আচার্য ঘাটুগান প্রথম প্রবর্তন করেন বলে জানা যায় । তাঁর মৃত্যুর পরে ঘাটুগানের মূল ধরন হারিয়ে যেতে থাকে ।

উৎপত্তি

ঘাটুগানের উৎপত্তি নিয়ে রয়েছে মতভেদ । কেউ কেউ বলেন সিলেটের সুনামগঞ্জ (হবিগঞ্জ) অঞ্চলের জলসুখা গ্রামের বাউল-আখড়াতে প্রথম ঘাটুগান গাওয়া হয় । এ বিষয়ে সিরাজউদ্দিন কাসেমপুরীর মতই সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য । তাঁর মতে , ষোলো শতকের শুরুর দিকে শ্রীহট্টের আজমিরিগঞ্জের জনৈক বৈষ্ণবাচার্য শ্রীকৃষ্ণের প্রেমে বিবাগী হয়ে বিরহিণী রাধাবেশে কৃষ্ণকে পাবার আশায় অপেক্ষা করতেন । তাঁর কৃষ্ণপ্রেমভক্তি দেখে বহু মানুষ তাঁর শিষ্যত্ব বরণ করেন । শিষ্যদের মধ্যে কিশোর-বয়সী বালকদের রাধার সখী সাজিয়ে নেচে নেচে রাধার বিরহসঙ্গীত গাইতে হতো । এই কিশোর-বালকরা মূলত বাঁশির সুরের সাথে তাদের নাচ-গান চালাত । নাচে-গানে পারদর্শী এই কিশোর-বালকেরাই ‘ঘাটু’ নামে পরিচিতি লাভ করে । তাদের পরিবেশনাকে বলা হতো ‘ঘাটুগান’ । একটি ঘাটুগানে রাই বলছে তার শ্যামকে –

ওরে তুই আমারে চিনলি নারে
আমি রসের ভমরা
বন্ধুর বাড়ি আমার বাড়ি মধ্যে জলের বেড়া ।।
আমি রসের কমলা গো
তুমি আমার ভমরা ।

শ্যাম বলছে রাইকে –

নারী ত বেঈমানের জাত গো
তর বাড়ি আর যাইমু না ।

আবার উত্তরে রাই বলছে শ্যামকে –

পুরুষ ত বেঈমানের জাত গো
আসবার চাইয়া আর আইলা না
হায়রে পয়সার কথাও কইয়ারে
প্রেম করিল শুইয়া-বইসা পয়সা দিল নারে ।।

বিস্তৃতি

ভাটিবাংলার হাওরাঞ্চল বিশেষ করে হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ, নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ, মদন, খালিয়াজুরী এবং ধর্মপাশা, সুনামগঞ্জ, শাল্লা, দিরাইয়ে এ গানের চর্চা হতো । পরবর্তীকালে বৃহত্তর ময়মনসিংহের বারহাট্টা, আটপাড়া, কেন্দুয়া, পূর্বধলা, কিশোরগঞ্জ, ঈশ্বরগঞ্জ, নান্দাইল, করিমগঞ্জ, গৌরীপুর, ভালুকা, মুক্তাগাছা, ধোবাউড়া, ইটনা, নিকলী, পাকুন্দিয়া, তাড়াইল, ভৈরব, বেলাবো ( নরসিংদী), কুমিল্লায় এ গানের বিস্তার ঘটে । মানুষের জীবনযাত্রায় ঘাটুগান এক বিশেষ স্থান দখল করে নেয় ।

ঘাটুগানের বিষয়

ঘাটুগান মূলত রাধাকৃষ্ণের প্রেমলীলা-সঙ্গীত । বন্দনা দিয়ে ঘটে এর সূচনা । এতে প্রেম, প্রেমতত্ত্ব, মান, অভিমান, মিলন, বিচ্ছেদ ও সন্ন্যাস দিয়ে ঘটে সমাপন । আদিরসাত্মক কথাবার্তা, প্রেমবিষয়ক কথাবার্তা প্রাধান্য পায় । হিন্দুধর্মের রাধাকৃষ্ণের প্রেমলীলা ঘাটুগানের প্রধান বিষয় হলেও একসময় ইসলামধর্মের বিভিন্ন বিষয়ও এতে স্থান পায় । কারণ এ গানের শ্রোতা ছিল উভয় ধর্মেরই লোকজন । ইসলামধর্মের বিভিন্ন কাহিনি অবলম্বনে রচিত ঘাটুগানগুলো অনেক স্থানে ‘লেটোগান’ নামে পরিচিতি ছিল । বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম লেটোগানের দলের ঘাটু বা লেটো ছিলেন । তিনি লেটোচরিত্রে বিভিন্ন স্থানে ঘাটুগান ও ঘাটুনাচ পরিবেশন করেছেন ।

ঘাটু-বালক সংগ্রহ

সাধারণত দূর-দূরান্ত থেকেই কিশোর-বালক যার বয়স ১৪-১৮-এর মধ্যে, দেখতে সুন্দর তাকে নির্বাচন করা হতো । সাধারণত গরিব-নিম্নবিত্ত পরিবারের বালকদের চাকরির কথা বলে একাজে যুক্ত করা হতো । কাজে যোগদানের সাথে সাথেই আকর্ষণীয় মাসিক বেতনসহ নানাবিধ সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হতো ।

ঘাটুর রূপসৌন্দর্য

ঘাটু মূলত ১8 থেকে ১৮ বছরের সুন্দর কিশোর-বালক । সুদর্শন এ-কিশোর-বালকের মাথায় থাকত মেয়েদের মতো লম্বা ধরনের চুল । আর চুলে থাকতো বেণী ও খোঁপা বাধা । পোশাক থাকত প্রথমদিকে সাধারণ ধুতি আর হাতকাটা ব্লাউজ । শেষদিকে শাড়ি-ব্লাউজ এবং আরো পরে আকর্ষণীয় পোশাক থাকত নর্তকীদের মতো । মেয়েদের মতো অলঙ্কার পড়ত । পায়ে থাকত নর্তকীদের মতো ঘুঙুর । কিশোর-বালকটিকে দেখতে যুবতীসুন্দরী কিশোরী-মেয়ে বলে ভ্রম হতো । সুরেলা কণ্ঠস্বর, মেয়েদের মতো অঙ্গভঙ্গি-নাচ সব মিলিয়ে দর্শক-শ্রোতাদের কাছে আকর্ষণীয় হয়ে উঠত । আসলে ঘাটুগানের প্রধান চরিত্র হলো নারীবেশে এই সুদর্শন কিশোর । এই কিশোর-বালকের রূপসৌন্দর্যে তথা নাচ-গান-সংলাপে পারদর্শীকে ঘিরে গ্রামে গ্রামে হৈ-হোল্লোড় পড়ে যেত ।

ব্যবহৃত বাদ্যযন্ত্র

ঘাটুগানের মূলবাদ্যযন্ত্র হলো বাঁশি, হারমোনিয়াম, তবলা, ঢোল, বেহালা, সারিন্দা, মন্দিরা-করতাল, দোতারা ইত্যাদি ।

শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের সাথে মিল

ঘাটুগানের বিলম্বিত সঙ্গীতাংশের সাথে শাস্ত্রীয় ধ্রুপদ সঙ্গীতের সাজুয্য মেলে । কারণ দুটো গানের ভাষা এক, দুটো গানই চিরাচরিত গ্রামবাংলার গান । আর দুটো গানের সুরই মাটি থেকে উঠে আসা সুর ।

প্রখ্যাত বাউল শাহ আব্দুল করিমের গানেও প্রতিধ্বনি শোনা যায় ঘাটুগানের –

আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম !
আমরা আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম !
গ্রামের নওজোয়ান হিন্দু-মুসলমান
মিলিয়া বাউলা-গান আর ঘাটুগান গাইতাম ।

হিন্দু বাড়িতে যাত্রাগান হইত
নিমন্ত্রণ দিত আমরা যাইতাম
জারিগান, বাউল-গান
আনন্দের তুফান
গাইয়া সারিগান নৌকা দৌড়াইতাম ।

বর্ষা যখন হইত,
গাজির গান আইত,
রঙ্গে ঢঙ্গে গাইত
আনন্দ পাইতাম
কে হবে মেম্বার,
কে হবে গ্রাম-সরকার
আমরা কি তার খবরও লইতাম ?
হায়রে আমরা কি তার খবরও লইতাম ?
আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম !

করি যে ভাবনা
সেইদিন আর পাব নাহ্
ছিল বাসনা সুখী হইতাম
দিন হইতে দিন
আসে যে কঠিন
করিম দীনহীন কোন্ পথে যাইতাম
আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম ! …

– শাহ আব্দুল করিম

গানটি শুনতে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন –

https://youtu.be/BhNFmWh4Ook

আরো একটি ঘাটুগানে রাধার বিরহকাতরতা ফুটে উঠেছে –

এক বালিশে দুইটি মাথা
ছোট কইরা কেনো কওনা গো কথা
ঘুমাইলা ঘুমাইলা রে বন্ধু
পান খাইলা না ।।

গাঙ্গের কুলে সরষের ফুলে
জাত-কুল-মান গেলোরে
ছাড়ো ছাড়ো বন্ধু
বান্ধি মাথার চুলোরে
হইলো একী প্রাণসখা ।
দুইজন তবু লাগে একা
প্রেমের নেশায় মনের বাগান
উঠে মাতিয়া ।।

সুখে ছিলাম ভালোই ছিলাম
বাপ ও মায়ের ঘরেতে
বড় আশায় দিছি গো মালা
আমি তোমার গলেতে ।

শুন ওগো প্রাণবন্ধুয়া
সুখের নহর যায় গো হিয়া
সোনার ফসল আবাদ করি
পরান ভরিয়া ।।

এই ঘাটুগানটি শুনতে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন –

https://youtu.be/D1Zf6LT8804

ঘাটুগানে অপসংস্কৃতির ছোবল

নাচে-গানে-সংলাপে পারদর্শী নারীরূপী সুদর্শন কিশোর-বালককে দেখে তৎকালীন গ্রামবাংলায় হৈ-হুল্লোড় পড়ে যেত । গ্রামবাংলার সাধারণ মানুষ তথা আবালবৃদ্ধবণিতা ঘাটুর নাচ-গান দেখে প্রাণ ফিরে পেত । ঘাটুকে যে গ্রামে রাখা হতো সে গ্রামের নাম দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ত । কিন্তু একশ্রেণির বিকৃত রুচির জোতদার, মহাজন, জমিদার তথা বিত্তবান ব্যক্তি অর্থ ও ক্ষমতার দ্বারা ঘাটুকে কিনে নিয়ে নির্দিষ্ট একটি সময় পর্যন্ত সমকামে লিপ্ত হতো । আর তার ফলেই ঘাটুগান তার জৈলুস-ঐতিহ্য-জনপ্রিয়তা হারাতে বসে । সেইসময় সমাজে ঘাটুকে ঘিরে সমকামিতা ছিল প্রকাশ্যগোপনকথা । একসময় তা স্বীকৃতিও পেয়ে যায় । ঘাটু কিনতে গিয়ে অনেক পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে । সমকামিতার জন্য অনেক পরিবারও তখন ভেঙে গেছে । ঘাটুকে মহাজন-জোতদারদের স্ত্রীরা সতীন হিসেবেই দেখত । ঘাটু কেনাবেচা ক্রীতদাসপ্রথার মতোই ছিল ভয়ঙ্কর । এখন ‘ঘাটু’ শব্দটি একটি গালি হিসেবে গ্রামবাংলায় স্থান পেয়েছে ।

ঘাটুগান ও চলচ্চিত্র

বাংলাদেশের জনপ্রিয় কথাশিল্পী, চলচ্চিত্র-পরিচালক হুমায়ূন আহমদের অন্তরে নাড়া দিয়েছে ঘাটুশিল্পীর জীবনের করুণ পরিণতি । তিনি তাঁর নির্মিত চলচ্চিত্র ‘ঘেঁটুপুত্র কমলা’তে ঘাটুবালকের জীবন ও করুণ পরিণতি তুলে ধরেছেন ।

হুমায়ূন আহমদের পূর্ণদৈর্ঘ্য বাংলা-ছায়াছবি ‘ঘেঁটুপুত্র কমলা’ দেখতে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন –

https://youtu.be/gVvcblDXEwk

ঘাটুগান সংগ্রহে বাউলবাড়ি

বাউলবাড়ি ঘাটুগান সংগ্রহের জন্য হাওরাঞ্চলে কাজ করছে বলে শোনা যাচ্ছে ।

মূল্যায়ন

গ্রামবাংলার জনপ্রিয় লোকসঙ্গীত ঘাটুগান আজ বিলুপ্তির পথে । অপসংস্কৃতিতে আচ্ছন্ন একশ্রেণির স্বার্থান্বেষী মহলের ব্যক্তিগত মূল্যবোধের অবক্ষয়ের কারণে ভাটিবাংলার ঐতিহ্যবাহী লোকসঙ্গীত ঘাটুগানে অশ্লীলতার কালিমার ছোঁয়া লাগে । বর্তমানে শিক্ষিত, জ্ঞানী ব্যক্তিদের অধিকাংশই এ গানকে অশ্লীল গান হিসেবে দেখে থাকে । কিন্তু আমাদের সংস্কৃতিতে ঘাটুগানকে কোনোভাবেই অবহেলা বা ঘৃণার চোখে দেখা ঠিক হবে না । কোনোভাবেই একে খাটো করে দেখা যাবে না । কারণ এ গানের মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে গ্রামবাংলার সাধারণ মানুষের জীবনজীবিকার কথা, আনন্দ-বেদনার কথা, প্রেম-বিরহের কথা, অবসর বিনোদনের কথা । কারণ তখন এখনকার মতো সিনেমা, নাটক, টেলিভিশন, কম্পিউটার, মোবাইল, লেপটপ প্রভৃতি ছিল না । গ্রামের অশিক্ষিত, স্বল্পশিক্ষিত মানুষেরা অধীর অগ্রহে অপেক্ষা করত বিশেষ করে বর্ষার জলবন্দি তিনটে মাস ঘাটুগানের জন্য । লোকসংস্কৃতির এই ঘাটুগানকে বিলুপ্ত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করতে পারলে, সুস্থধারায় ফিরিয়ে আনতে পারলে আমাদের সংস্কৃতি যে সমৃদ্ধ হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই । সংস্কৃতিসেবীদের দায়িত্ব সংস্কৃতির খারাপ দিকটি বর্জন করে অপেক্ষাকৃত ভালো দিকটা তুলে ধরা । আমরা আশা করব সচেতন সংস্কৃতিসেবীরা ঘাটুগানকে বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা করে আমাদের ঐতিহ্যমণ্ডিত সংস্কৃতির সুস্থধারায় ফিরিয়ে আনতে বিশেষ ভূমিকা নেবে ।

https://m.youtube.com/watch?v=msNdG75wHzs

https://youtu.be/Or1QIUo3Iqc

https://youtu.be/yHBZln4zHSI

https://youtu.be/vER3UMsrekg

তথ্যপঞ্জি

বাংলাদেশের আঞ্চলিক ভাষার অভিধান
লোকসাহিত্য-ঘাটুগান – উইকিপিডিয়া
ঘাটুগান – বাংলাপিডিয়া
গাটু, গাটুগান ও গাটুনাচ – মোহাম্মদ আব্দুল হাই
ঐতিহ্যবাহী ঘাটুগান – সঞ্জয় সরকার
লোকগীতির ধারায় ঘাটুগান – ফয়সল আহমেদ
আবুল কাইয়ুম আহম্মদের ঘাটুগান নিয়ে প্রবন্ধ
বিলুপ্তির পথে ঘাটুগান – বাউলবাড়ি ডটকম
হুমায়ূন আহমদের চলচ্চিত্র ‘ঘেঁটুপুত্র কমলা’

(-‘ভাটির টানে’… শীর্ষক ম্যাগাজিন)

এই সংবাদটি 1,010 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com