শনিবার, ০২ ফেব্রু ২০১৯ ০২:০২ ঘণ্টা

বাবার কথা : বাবাদের কথা

Share Button

বাবার কথা : বাবাদের কথা

জুয়েল সাদত : ২৯ জানুয়ারী আমার বাবা মরহুম গোলাম মোছাওয়িরের ৩৩ তম মৃত্যু দিবস । বাবার সাথে কোন ছবি নেই , একটা মাত্র ছিল সেটা ও পেলাম না । ৮০ দশকে ছবি তুলার প্রচলন ছিল না । তাই ছবি নাই । সন্ধ্যা থেকে মন খারাপ ছেলে ওয়াসি বলছে তুমি আপসেট কেন । আমেরিকায় বেড়ে উঠা সন্তানদের তাও ৭ বছরের বোঝানো অনেক কঠিন । কেন ডেড হল ? তুমি কেন সেভ করলে না ? কেন মানি স্পেন্ড করলে না ? যত সব মজার মজার কথা । তাদের দুজন কে ওয়াসি ও ওয়াফিক কে আম্মার কাছে নিয়ে গেলাম বললাম কাল আব্বার চলে যাবার দিবস , কিছু মনে করতে পারেন না আগের মত । আম্মা তাদের বললেন , চেষ্টা করা হয়েছে । ৩৩ বছর আগের একজন ক্যান্সারের রোগীকে অনেকটা ইচছা অনেকটা অনিচছায় ভুল চিক্যিসায় মেরে ফেলা হল । তথন ক্যান্সার নিয়ে এক্সিপেরেন্ট করেছিল ডাক্তাররা । যাক, বয়স ছিল ১৩ বছর সময়টা ৮৬ সাল, মনে আছে ৮৫ সালটা খুব খারাপ গেছে আমাদের । এলপ্যাথি ফেল মারল হোমিওপ্যাথি চলল ।সমশের নগরের সুবল ডাক্তারের কাছে যাওয়া , ঢাকার জয়দেবপুর চাচার বাসায় থেকে ট্রিটমেন্ট করানো, ঢাকা থেকে বিমানে বিখ্যাত হোমিওপ্যাথি ডাক্তার আলি আহমাদ কে বাগানে আনা কত কিছু চলে ।৮৬ সালের ২৯ জানুয়ারী ভোর বেলায় আব্বা মারা যান । ছিলাম পাশে কাদিনি কারন উনার কষ্ট হচিছল ,বেশ কয়েক মাস থেকে । ভোর বেলা ফজরের নামাজের আগে চলে গেলেন । ভোর রাতে সাইকেল নিয়ে দৌড়ালাম ইমাম সাহেবের বাসায় । তিনি কেমন ছিলেন > এত প্রানবান মানুষ কম জন্মায় । ছিলেন ডাকসাইটে রাজনীতিবিদ, মারা যাবার আগে বলে গিয়েছিলেন তার কবর যেন হয় শহিীদ আলকাছের পাশে । তখন জানতাম না < শহীদ আলকাছ কে ছিলেন । পরে জেনে অবাক হলাম । কতটা আদর্শিক হলে নেতার পাশে সারা জীবন থাকতে চেয়েছিলেন আমার বাবা ( শহীদ আলকাছ পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের মন্ত্রী ছিলেন) । তিনি ছিলেন চা শ্রমিকদের প্রান পুরুষ । মালনিছড়া চা বাগানেই তিনি ৮৬ সাল মারা যান, বাগানের কুলিরা যতটা কেদেছিল ঠিক ততটা আমরা কাদতে পারিনি । সারা বাগানের কুলিদের আহাকার আজও চোখে ভাসে । ছিলেন যাত্রাপালার প্রমোটর , কুশিবল । দুর্গাপুজাায় কুলিদের বিনোদনে উনার অবাদান ছিল সবচেয়ে বেশী । কোন দল আসবে , কোন পালা হবে । সব ছিল আব্বার চিন্তাা । উনাকে ছাড়া গ্রিন রুম অচল ছিল । অনেক কথা, আম্মা ছিলেন কঠিন জেনারেল আর অব্বা নরম কোমল স্বভাবের । আজ অমাদের বাচ্চাদের কাছে আমি নরম ওদের মা জেনারেল । মাত্র ১৩ বছরে যা দেখেছি বলে শেষ করার মত নয় । মৌলভীবাজার এলাকার চা বাগানের বড় পদ ছেড়ে ৬৮ সালে সিলেট আসেন আমাদের ভাল কলেজে পড়াবেন বল । আমাদের সিলেটের বাগানের বাসায় অনেক গুলো চাচাত ভাই বোন,ফুফাতো ভাই বোন পড়াশুনা করেন। আজ যখন বাচ্চাকাচ্চাদের ভাল পড়াশুনা করানোের প্রতিযোগীতা দেখি, তখন ভাবি ৬৮ সালে আমার বাবা মা তা ভেবেছিলেন। আমরা ৪ বোন দু ভাই সিলেটের ভাল স্কুলে ও এম সি কলেজে পড়ি । উনার সব আশা পুরন হয়েছে । ৮৬ সালে আমাকে মিজাপুর ক্যাডেট কলেজে পড়াবেন ঠিক করলেন , সে আশাটা পুরন হল না, জানুয়ারীতে মারা যাওয়ায় তা ক্যানসেল করতে হল । চলে গেলেন যখন তখন মাত্র ৭ ম শ্রেনীতে আমি । আমরা বাপ ছেলে পাশের বাসার সোম বাবুদের একদিনের পুরোনো “ সংবাদ “ পত্রিকা পড়তাম । অথচ আমার জীবনে পত্রিকা কিনে পড়তে হয় নি । আমি কাগজে লিখি মানুষ পড়ে । লেখক সাংবাদিক হলাম বাবা দেখে গেল না । দেশে বিদেশের কাগজ ম্যাগাজিন মেইলে আসে ।
১০ বছর থেকে আমাাকে নিয়ে বাজারে যেতেন হাতে কলমে শেখালেন , তিনি হয়ত বুজতেন সাবলম্বী হওয়া দরকার । আমার সাংবাদিকতা ও লেখালেখির জগতটা দেখে গেলে খুব খুশি হতেন । আজ আমার ৫ টা বই একটা সিডি ,উনাকে উ্যসর্গ করি । কিছু করার নেই । অনেকের বাবা দেখি আর হতাশ হই । নিজের রোজগার উনাকে খাওয়ানোর সৌ্ভাগ্য হল না । যখন কারও বাবা দেখি আপসোস হয় । আব্বা ৫০ হবার আগেই চলে গেলেন । আমার তিনজন চাচা ছিলেন। দাদা, আব্বা, বড় চাচা,বড় ফুফা চারজন ই ছিলেন ট্রি প্লান্টার। আমাদের পরিবার চা বাগানেই জড়িয়ে ছিল। আজ একজন চাচা বেচে আছেন মাত্র।
অসম্ভব পশু প্রেমিক ছিলেন < আমদের বাসাটা মিনি চিড়িয়াখানা বানিয়েছিলেন । বিকেলে আমাকে নিয়ে বাগানের টিলায় যেতেন প্রায় প্রতিদিন । চা শ্রমিকরা অসম্ভব সম্মান করত, কারন লেবার বিভাগটা উনার নিয়ন্ত্রণে ছিল। লিখব অনেক আগামীতে । পাকিস্থান আন্দোলনে রেখেছেলেন অসামান্য অবদান , শহীদ আলখাছ সিলেট মানিক পীর টিলায় শায়িত তার পাশেই আব্বা ঘুমিয়ে আছেন ৩৩ বছর ।
জন্মেছিলেন গোলপগঞ্জের ঘোষগাও এ পড়াশুনার জন্য ও চাকরীর জন্য গ্রামের সাথে যোগাযোগ কম ছিল । সিলেট শহরে থাকলেও গ্রামে তেমন যেতেন না । আ্মাকে নিয়ে অনেক স্বপ্নে দেখতেন । সে স্বপ্নটা ছিল ক্যাডেট কলেজ থেকে সেনাবাহিনীতে যোগ দিব । জীবনের মানচিত্রে আমরা হয়ে গেলাম প্রবাসী ।
পুরো পরিবারের মধ্যে খুব প্রানবন্ত ছিলেন সব সময় । সহজ সরল সাবলিল এক সাংস্কৃতিক মনা মানুষ ছিলেন আমার বাবা । একটা জিনিস তখন মৃত্যু গুলো ছিল বেশ আবেগী, খূব কম মানুষ মারা যেত । তা দাগ কাটত এখন আমাদের কাছে যা খুব সহজ হয়ে গেছে । মনে ও রাখে না কেউ তেমন একটা । আজ ৩৩ বছরের আগের বাবা কে খুজি । বিদেশে মৃত্যু দিবস পালন করার রেওয়াজ নেই, আর নিজের বাবার জন্য নিজেকে দোয়া করতে হয় । দেশে যে মোলভী ডেকে মিলাদ বা কোরআন খতম করানো হয় তাও আজ সময়ের আবর্ত এ মুল্যহীন হয়ে গেছে , আমরা অনেক কিছু এখন জেনেছি যা আগে জানতাম না । বাবার বন্ধন ছাড়াও জীবনের সব পিচ্ছিল পথ মাড়িয়ে ঠিক ই এগুলাম তার কারন আমার “আমার মা”। যিনি ছায়ার চেয়েও কাছাকাছি ছিলেন।।। জীবনের ঘুর্ণায়ন বৃত্তে আমি চার জনের বাবা, বয়স বছর চারেক পর পঞ্চাশ হবে। বাচ্চাদের বুঝাই কিভাবে বাবাহীন ছিলাম।।
দোয়া চাই । আমিন ।

এই সংবাদটি 1,004 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com