শনিবার, ০২ ফেব্রু ২০১৯ ০৮:০২ ঘণ্টা

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নতুন কমিটি:নূরপুরী আমির মাহফুজুল হক মহাসচিব

Share Button

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নতুন কমিটি:নূরপুরী আমির মাহফুজুল হক মহাসচিব

সিলেট রিপোর্ট:  বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ২০১৯-২০২০ সেশনের কমিটি পূনর্গঠন করা হয়েছে। এতে মাওলানা ইসমাইল নূরপুরী আমির এবং মাওলানা মাহফুজুল হক মহাসচিব মনোনিত হয়েছেন।

কেন্দ্রীয় মজলিসের শূরার অধিবেশনে তাদেরকে মনোনয়ন দেয়া হয়। কমিটির অন্যরা হলেন- নায়েবে আমির মাওলানা যোবায়ের আহমদ আনসারী, মাওলানা আফজালুর রহমান, মাওলানা রেজাউল করীম জালালী, মাওলানা খুরশিদ আলম কাসেমী, মাওলানা আলী উসমান, মুফতী সাঈদ নূর, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদ, মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন, মাওলানা কুরবান আলী, মাওলানা আব্দুল আজীজ, মুফতী শরাফত হোসাইন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতী হাবীবুর রহমান, মাওলানা আজিজুর রহমান হেলাল, মাওলানা জিএম মেহেরুল্লাহ, মাওলানা এনামুল হক মূসা, বায়তুলমাল সম্পাদক মাওলানা মাহবুবুল হক, সহ-বায়তুলমাল সম্পাদক মাওলানা নিয়ামাতুল্লাহ, প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা এনামুল হক নূর, মাওলানা মুহসিনুল হাসান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাওলানা হারুনুর রশীদ ভূঁইয়া, সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাওলানা ফয়সাল আহমদ, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মাওলানা রেজাউল হক, আন্তর্জাতিক সম্পাদক মাওলানা ফয়েজ আহমদ, মাওলানা হোসাইন হাবীবুর রহমান, নির্বাহী সদস্য মাওলানা হোসাইন আহমদ, মুহাম্মদ শাহাবুদ্দীন, মুফতী হাসান মুরাদাবাদী, হাফেজ শহীদুর রহমান, মাওলানা ফরিদ আহমদ, মাওলানা সিরাজুল ইসলাম সিরাজী, মুফতী হাবীবুর রহমান কাসেমী, মাওলানা আব্দুন নূর, মুহাম্মদ আব্দুর রহীম, মাওলানা জসিম উদ্দীন, মাওলানা সামিউর রহমান মূসা, মাওলানা আব্দুল জাব্বার, মাওলানা আনোয়ার আলী প্রমুখ।

মাওলানা ইসমাইল নূরপুরী বলেন, বর্তমানে সব ইসলামী শক্তির ঐক্যবদ্ধ হওয়া সময়ের দাবি। আগের জাতীয় সংসদে ইসলামী দলগুলোর প্রতিনিধি থাকলেও চলতি সংসদে উলামায়ে কেরামের কোনো প্রতিনিধি নেই। ইসলামী দলগুলোর অনৈক্যই এর প্রধান কারণ। তিনি ইসলামী সকল দল ও শক্তির ঐক্যবদ্ধ প্ল্যাটফর্ম গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

তিনি আরো বলেন, গত ৩০ ডিসেম্বর দেশে নির্বাচনের নামে একটি প্রহসন হয়েছে। এ নির্বাচন কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। অগ্রহণযোগ্য নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত সরকার বৈধ বলে দাবি করতে পারে না। তাই কারচুপির এ নির্বাচন বাতিল করে অবিলম্বে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচন দিতে হবে।

এই সংবাদটি 1,029 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com