মঙ্গলবার, ০৫ ফেব্রু ২০১৯ ০৮:০২ ঘণ্টা

পরস্পপরের মধ্যে ঐক্যের বন্ধন তৈরী করুন : মাওলানা ইমদাদুর রহমান মাদানী

Share Button

পরস্পপরের মধ্যে ঐক্যের বন্ধন তৈরী করুন : মাওলানা ইমদাদুর রহমান মাদানী

সিলেট রিপোর্ট: মাজাহিরুল উলুম লন্ডনের প্রিন্সিপাল, বিশিষ্ট ইসলামী ব্যক্তিত্ব ও মারকাযুল হিদায়া সিলেটের মহাপরিচালক হাফিজ মাওলানা ইমদাদুর রহমান মাদানী বলেছেন, ইসলাম সার্বজনীন ও শান্তির ধর্ম। ইসলামের নবী যে বানী প্রচার করেছেন সেটাই পৃথিবী বাসীর জন্য শান্তি ও নিরাপত্তার একমাত্র গ্যারান্টি। তিনি সমাজে শান্তি -সমতা প্রতিষ্ঠার জন্য উলামায়ে কেরামকে নবীর ওয়ারিস হিসেবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করার জন্য আহবান জানিয়ে বলেন পরস্পপরের মধ্যে ঐক্যের বন্ধন তৈরী করুন। ইসলাম শান্তির পুর্বশর্তহিসেবে ঐক্যবদ্ধের কথাই বলেছে। তাই আসুন নিজেদের মধ্যে মহাঐক্যের সিড়ি তৈরী করি। তিনি কওমি মাদরাসা শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরো সমৃদ্ধশালীকরে নিজেদের যোগ্যহিসেবে গড়ে তোলার জন্য ছাত্রদের প্রতি আহবান জানান। শনিবার বিকেলে তিনি সিলেট নগরীর শহীদ সুলেমান হলে মারকাযুল হিদায়া সিলেট ও জামি’আতুল উলূম আশ শারইয়্যাহ সিলেটের যৌথ উদ্যোগে ব্যতিক্রমধর্মী “ইলমী প্রতিযোগিতা আযোজিত এক অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে আলোচনা পেশ করেন বিশিষ্ট লেখক মাওলানা শরীফ মুহাম্মদ, আরবী সাহিত্যের প্রবাদপুরুষ মাওলানা সফিউল্লাহ ফুআদ, জামেয়া কাসিমুল উলূম দরগাহ শাহজালাল রাহ. সিলেটর শায়খুল হাদীস মুফতি মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালীম বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা আবদুল বছীর, মাওলানা জুনায়েদ কিয়ামপুরী, জামেয়া মাদানিয়া শেখবাড়ির ভাইস প্রিন্সিপাল মাওলানা আহমদ আফজাল বর্ণভী, মারকাযু শারইয়্যাহ ঢাকার পরিচালক মুফতি মুহাম্মদ হারুন, মাওলানা মুহাম্মদ আবদুল্লাহ, মাওলানা এহতেশাম কাসিমী, মুফতি নূরুযযামান সাঈদ, মুফতি আবু মুহাম্মদ ইয়াহইয়া, মাওলানা মুশতাক আহমদ চৌধুরী, মাওলানা আবদুর রহমান কফিল, মাওলানা আশরাফ হোসাইন ফুআদী,সিলেট রিপোর্ট সম্পাদক রুহুল আমীন নগরী প্রমুখ।
এদিকে, মাওলানা ইমদাদুর রহমান মাদানী গতকাল সোমবার সকালে এক সাক্ষাতকারে সিলেট রিপোর্টকে জানান, ইলমী প্রতিযোগিতায় আমি মুগ্ধ হয়েছি। তরজমাতুল কুরআন, হিফযুল হাদীস, আরবী মাকালা, আরবী বক্তব্য ও মাসাইলে নাহু- এই ৫টি বিষয়ে ছিলো প্রতিযোগিতা। প্রায় ৪০০ (চারশত) প্রতিযোগী এতে অংশগ্রহণ করেন। পুরস্কার হিসেবে প্রতি বিষয়ে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অর্জনকারীকে প্রদান করা হয় যথাক্রমে নগদ ৭০০০/-, ৫০০০/- এবং ৩০০০/- টাকা করে। এছাড়াও প্রতি বিষয়ে পরবর্তী ১০ জনকে দেওয়া হয় ৫০০/- টাকা সমমূল্যের কিতাব।
উক্ত ইলমী প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে নগদ এক লক্ষ টাকা পুরস্কার প্রদান করে মাওলানা ইমদাদুর রহমান মাদানী বলেন সিলেটের ছাত্ররা যাতে ভালো রেজাল্ট করতে পারেন সেজন্য সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।
উল্লেখ্যযে, হাফিজ মাওলানা ইমদাদুর রহমান ১৯৬৯ সালের ৪ঠা ফেব্রুয়ারি সিলেটের ওসমানী নগর উপজেলার উত্তর কালনীরচর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম আলহাজ্ব আব্দুল খালিক। আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী প্রতিষ্ঠিত জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা ঢাকা থেকে ১৯৮৮ সালে তিনি দাওরায়ে হাদীসে বেফাক বোর্ডে প্রথম স্থান অধিকার করেন। মাওলানা হ্ওয়ার পরে ব্যক্তিগত ভাবে মাত্র ৬ মাসে পবিত্র কুরআন হিফজ সম্পন্ন করেন। দাওরায়ে হাদীস শেষে দারুল এহসান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি মার্ষ্টাস করেন। এরশাদের আমলে কওমি মাদরাসার স্বীকৃতি বিষয়ে তিনি তখনকার ধর্মপ্রতিমন্ত্রী মুফতি মো: ওয়াক্কাস ও সৈয়দ আলী আহসানের মাধ্যমে প্রচেষ্টা চালান। অত:পর তিনি উচ্চশিক্ষা লাভের জন্য মদীনা ইঊনিভার্সিটিতে ভর্তিহন। সেখানে ৭ বছর লেখাপড়াকালে মেধার সাক্ষর রাখেন, ১৯৯৮ সালে দেশে আসেন। ১৯৯৯ সালে ইংল্যান্ডে গমন করেন। সেখানে ২০০০ সালে মাজাহিরুল উলুম লন্ডন মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯১ সালে পরিনয় সুত্রে আবদ্ধ হন। বর্তমানে ৩ ছেলে ১ কন্যা সন্তানের জনক। আধ্যাত্মিক ময়দানে তিনি প্রথমে ফেদায়ে মিল্লাত আল্লামা সায়্যিদ আসআদ মাদানী (র) এর কাছে বায়াত হন। তার ইন্তেকালের পরে আল্লামা সায়্যিদ আরশাদ মাদানীর কাছে বায়াত হন। তিনি মাদরাসার পাশাপাশি লন্ডনের ব্রমলী বাই ব জামে মসজিদের খতীবের দায়িত্ব ও পালন করছেন। তিনি সংক্ষিপ্ত সফরে সম্প্রতি বাংলাদেশে আগমন করেন। সফরে তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে সিলেট রিপোর্টকে তিনি বলেন, বাংলাদেশের উলামায়ে কেরামের মধ্যে ঐক্যের সেতুবন্ধন চাই। কওমি মাদরাসা শিক্ষার স্বীকৃতির জন্য তিনি সরকারের প্রতি ধন্যবাদ জানান। তবে স্বকীয়তা-ঐতিহ্য যাতে বজায় থাকে সেব্যাপারে খেয়াল রাখার জন্য সতর্ক থাকার পরার্মশ দেন এই স্কলার।

এই সংবাদটি 1,519 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com