বৃহস্পতিবার, ০৭ ফেব্রু ২০১৯ ১১:০২ ঘণ্টা

ইজতেমার নামে কাদিয়ানীদের ঈমানবিধ্বংসী কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে: আল্লামা বাবুনগরী

Share Button

ইজতেমার নামে কাদিয়ানীদের ঈমানবিধ্বংসী কার্যক্রম  বন্ধ করতে হবে: আল্লামা বাবুনগরী

জুনাইদ আহমদ:

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও হাটহাজারী মাদরাসার সহযোগী পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, পঞ্চগড়ের আহমদনগরে ‘কথিত মুসলিম নামধারী কাদিয়ানি অমুসলিমদের “জাতীয় ইজতেমার নামে ঈমানবিধ্বংসী কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে ৷ খতমে নবুওয়াত অস্বীকারকারী কাদিয়ানীরা অমুসলিম, কাফের ৷ মুসলিম নাম ধারণ করে ৯০% মুসলমানের দেশে তাদের ঈমানবিধ্বংসী কোন কার্যক্রম চলতে দেয়া হবে না ৷
৬ জানুয়ারী বুধবার ঢাকার বারডেম জেনারেল হসপিটাল থেকে সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন তিনি ৷
আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী আরো বলেন, মানব জাতির হেদায়াতের জন্য যুগে যুগে আল্লাহ তা’য়ালা নবী-রাসুল প্রেরণ করেছেন ৷ নবী রাসুলগণের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ এবং সর্বশৈষ নবী ও রাসুল হচ্ছেন হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ৷ ঈমানদার হওয়ার জন্য আকীদায়ে খতমে নবুয়াত তথা মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সর্বশেষ নবী ও রাসুল হওয়ার বিশ্বাসা স্থাপন করতে হবে ৷ আকিদায়ে খতমে নবুয়াত ঈমানের অবিচ্ছোদ্য অংশ ৷ খতমে নবুয়াতে বিশ্বাসী হওয়া ছাড়া মুসলমান হওয়া যায় না ৷ কাদীয়ানিরা খতমে নবুয়াতকে অস্বীকার করে তাই তারা কাফের ৷

মসজিদ পৃথিবীর সর্বোৎকৃষ্ট জায়গা, মুসলিম উম্মাহর ইবাদতের পবিত্র স্থান ৷ কাদিয়ানিরা কাফের, কাফেরদের কোন মসজিদ হতে পারে না ৷ নামায, রোজা, হজ্জ্ব, যাকাত ইত্যাদি মুসলমানদের ধর্মীয় পরিভাষা ৷ কাদিয়ানিরা কাফের তাই মুসলমানদের কোন পরিভাষা ব্যবহার করে তারা তাদের ভ্রান্ত মতাদর্শ প্রচার করতে পারে না ৷ এটা ইসলাম ধর্মের অবমাননার শামিল ৷ তিনি আরো বলেন,বাংলাদেশ সংখ্যাঘরিষ্ট মুসলমানের দেশ ৷ এ দেশের মুসলমানগণ বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে নিজেদের প্রাণের চাইতেও বেশি মুহাব্বাত করেন ৷ বিশ্বনবী সা. এর রিসালতকে অস্বীকারকারি কাদিয়ানি অমুসলিমদের আস্ফালন এদেশের ধর্মপ্রাণ তৌহিদী জনতা মেনে নেবে না ৷
আল্লামা বাবুনগরী,বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক দেশ ৷ গণতান্ত্রিক অধিকার হিসেবে এদেশের হিন্দুরা হিন্দু নামে,বৌদ্ধরা বৌদ্ধ নামে এবং খ্রীষ্টানরা খ্রীষ্টান নামে তাদের ধর্মীয় রীতি নীতি পালন করছে৷কিন্তু কাদিয়ানি অমুসলিমরা “মুসলমান নাম ধারণ করে সরলমনা সাধারণ মুসলমানদেরকে ধোকা দিয়ে ঈমানবিধ্বংসী কার্যক্রম পরিচালনা করছে ৷ যা ইসলাম ধর্মের নামে অপপ্রচারের শামিল ৷ তা কখনো মেনে নেয়া যায় না ৷ অনতি বিলম্বে পঞ্চগড়ে অনুষ্ঠিতব্য কাদিয়ানিদের তথাকথিত জাতিয় ইজতেমা সহ বাংলাদেশে তাদের ঈমানবিধ্বংসী সকল কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে ৷
অন্যথায় আকিদায়ে খতমে নবুয়াত রক্ষার্থে এদেশের লক্ষ নবীপ্রেমিক তৌহিদী জনতা অমুলিম কাদিয়ানিদের বিরুদ্ধে দূর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে বাধ্য হবে ৷
কাদিয়ানিরা অমুসলিম ৷ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কাদিয়ানিদেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে অমুলসলিম ঘোষণা করা হয়েছে ৷ ৯০% মুসলমানের দেশ বাংলাদেশেও কাদিয়ানীদেরকে রাষ্ট্রীয়ভাবে অমুসলিম ঘোষণা করার জোর দাবী জানান হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ৷

এই সংবাদটি 1,030 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com