বৃহস্পতিবার, ০৭ ফেব্রু ২০১৯ ১২:০২ ঘণ্টা

ওলিপুরীর মাহফিলের সেই জৌলুস আর নেই

Share Button

ওলিপুরীর মাহফিলের সেই জৌলুস আর নেই

সিলেট রিপোর্ট: সিলেট সরকারী আলিয়া মাদরাসা মাঠে খাদিমুল কুরআন পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরীর তাফসীর মাহফিলের সেই জৌলুস এখন আর নেই। অর্ধলক্ষ মানুষের উপচেপড়া ভিড়ের মধ্যেই শুনতে হতো মাহফিল। আলিয়ার আশপাশ-রাস্তাঘাটেও প্রচন্ড ভিড় হতো ওলিপুরীর বয়ানের সময়। সিলেটের বিভিন্ন অচ্ঞল থেকে শতশত, হাজার হাজার মানুষ গাড়ি রিজার্ভ করে আসতে দেখাগেলেওএখন এমন দৃশ্য দেখা যায়না। নগরীও পার্শবতী বড়বড় কওমি মাদরাসা থেকে শতশত ছাত্রদের স্বেচ্চাসেেকের ভূমিকায় দেখা যেতো। কয়েক মাস পুর্ব থেকে চলতো ব্যাপক প্রচার-প্রসার, ফলে সর্বত্র উৎসাহের আমেজ বিরাজ করতো। বিগত কয়েক বছর যাবত অনেকটা নীরবে প্রাণহীন অবস্থায় চলে আসছে খাদিমুল কুরআন পরিষদের তাফসীরুল কুরআন মাহফিল। আগের মতো লোকসমাগম কম হওয়ার কারণ নিয়ে অনেকেই অনেক কথা বলছেন। কেউ বলছেন মাওলানা ওলিপুরীর প্রতি মানুষের আগের মতো আস্তা-ভালোবাসা নেই। কেউ বলছেন আয়োজক কমিটির নানা ব্যর্থতার কথা। প্রকৃত পক্ষে এর কারণ কী? এর উত্তর খুঁজে পেয়েছেন অনেকেই। এনিয়ে জনপ্রিয় সামাজিক সাইট ফেসবুকে নানা জনে নানা কথা
উঠে এসেছে। সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য ফেসবুক থেকে কিছু মন্তব্য তুলে ধরা হলো:

সিলেট শহরের ঐতিহাসিক একটি মাদরাসা ময়দানে রাত ৯ টা ২০ মিনিটে ধারণকৃত ছবি।
পেন্ডালের ১০ ভাগের ১ ভাগ শ্রুতা।
কিন্তু কেন?
অথচ সিলেট বিভাগ তথা দেশ বিদেশ খ্যাত প্রখ্যাত মুফাস্সিরে কুরআন স্টেইজে। যার নাম শুনলে এখনও গ্রাম গঞ্জের হাজার হাজার মানুষ ১৫/২০ মাইল দূর থেকেও ভীর জমায়। কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনায় এত গলদ হলে আমরা মুখ লোকাবো কোথায়?
যার যশ সুনাম এখন ও বেড়েই চলছে। তার সভায় ৪/৫ শত মানুষ হবে কেন?
বেআদবী মাফ করবেন।   

  • Muhi Uddin Masum এখন৯.৫০ টা।একজন বড়ভাই বলল গেলাম তাফসীর শুনতে দেখি বিশ হাজার টাকা দিয়ে বই বিক্রি হচ্ছে।চলে এলাম।
  • Soyed Abdullah AL Foysal দুঃখজনক
  • Mahmudul Hasan এ প্রশ্ন আমার মনে গত তিন বছর ধরে ঘোরপেঁচ খাচ্ছে?
    তবে এমন হওয়ার কিছু কারন আমি খোঁজে বের করেছি,যেগুলো আমি উক্ত পরিষদের সভাপতি সাহেবের কাছেও বলেছি।
    কারন নাম্বার ১। উক্ত পরিষদের তাফসীর চলাকালীন সময়ে ওলিপুরী হুজুরের দিনের বেলার ও বাদ মাগরিব আশ পাশের উপজেলায়
     আয়োজনের সুযোগ করে দেয়া,মানুষ নিজ ঘরের পাশে ওয়াজ শুনতে পাচ্ছে বিধায়, কষ্ট করে আলীয়া মাঠে আসার প্রয়োজন মনে করছেনা।
    ২।পরিষদের তাফসির মাহফিল বৃহত্তর সিলেটের বড় বড় মাদরাসার মাহফিল চলাকালীন সময়ে আয়োজন করা।
    ৩। প্রচারণার ব্যাপক ঘাটতি, আগে দেখলাম প্রত্যেকটা উপজেলায় দায়িত্বশীলরা যেতেন, মতবিনিময় করতেন এখন এসব নেই।
    আরো ও অনেক কারন আছে,শুধু এগুলোই বললাম।
    • Md Ansar Uddin সুন্দর বিশ্লেষন
    • Masum Ahmad Mahmudul Hasan ভাই : গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট বলেছেন। আরো কিছু কারণ আছে। সবচেয়ে বড় কারণ, আমাদের বড়দের সরলতার সুযোগ নিয়ে কিছু মানুষের নাম কামানোর ফিকির এই মাহফিলের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। এরচেয়ে বেশি বলা ঠিক হবে না। 🙁
    • A Rahman Siddeque ব্যবস্থাপনা দুর্বল । অ.কাজের লোক দিয়ে কাজ হয়না । মাঠের অবস্থা জার জলন্ত প্রমাণ । কমিটি হয়েছে পকেট কমিটি ।
    • Ahtesham Qasimee বিষয়গুলো ওলীপুরী হুজুরের কানে দেয়া দরকার।
    • Hasan Saied Sunamgonj to bondho hoye geche mahfil.koyek bochor teke khadimul quraner mahfil hocchena.
    Write a reply…
     
  • Abdullah Al Monsur ওলিপুরি হযরত (হাফিযাহুল্লাহ)
    বয়ানের মঞ্চে প্রতিপক্ষ কে অশ্লীল আক্রমনের কারনে দিনদিন জনপ্রিয়তা কমছে কওমি অঙ্গনেও।
  • আবুবকর জামাল আমার দৃষ্টিতে আপাদত এই কারনগুলিই মনে হচ্ছে।

    ১ম পরিষদের প্রচারনার যতেষ্ট অভাব ও ঘাততি আছে। যা আগের তুলনায় ১০ভাগ ও প্রচার নেই।


    ২য় – জায়গায় জায়গায় ওয়াজ মাহফিল হওয়ার কারনে কেউ এখন আর দুরে শুনতে যায়না।

    ৩য় একই বিষয় উল্টিয়ে পালটিয়ে অন্যকে খোচাখোচি সাধারণ শিক্ষিত সমাজ এটাকে ভালভাবে নেয়নি। যারা ধারাবাহিক এই পরিষদে বয়ান শুনে থাকেন তারা অবশ্যই এটা জানার কথা।
  • Nazim Uddin Nadim আর এক সময় খাদিমুল কোরআনের ওয়াজ হলে আলাদা একটা আমেজ মনে হতো,, মাদ্রাসার আশপাশ লোকেলোকারন্য দেখা যেত,,,
  • A Rahman Siddeque ব্যবস্থা পনা একে বারে দুর্বল ।অ.কাজের লোক দিয়ে কাজ হয়না । মাঠের অবস্থা জার জলন্ত প্রমাণ । যে লক্ষ উদ্যোস্য নিয়ে খাদিমুল কোরআন পরিষদ করা হয়েছিল সেই লক্ষ ফৌত হয়েগেছে । এবার পকেট কমিটি দিয়ে দায় সারা কাজ করে মছলক মসরস এর ভরাডুবি হচ্ছে ।
  • জাকারিয়া আল হেলাল তিনি তো গ্রামেও যান। আজ কানাইঘাটের বড়বন্দে শুনলাম তাঁর যাওয়ার কথা। তিনি যদি জেলা, শহরকেন্দ্রিক মাহফিল করতেন তাহলে এমনটা হতনা।

 

  • Sorif Ahmod আগে বলা হতো ওয়াজের মঞ্চে বসে বেদাতীরা গালাগালি করে,এখন দেওবন্দী মসলকের কথিত মুখপাত্র খতিবে যামানরাও প্রতিপক্ষকে অশ্লিল গালমন্দ করেন।মানুষ এখন সচেতন, তাফসিরের নামে গালাগালি আর উস্কানী, কটাক্ষতা কর্কষতা শুনতে রাজি নয়,এজন্যই এ হাল….
    • Abdul Mojid Al Husain আপনিতো ওলীপুরির চরম দুশমন মনে হয়?নতুবা কারো দালাল।
  • Mjh Jamil একই স্থানে লাগাতার মাহফিল হলে যা হয় তা হয় আর কি? তবে কথা সত্য সিলেটে চরমোনাই পন্থীদের মাহফিলে উপস্থিতি দিন দিন বেড়েই চলেছে। কারণ উনাদের মাহফিলে ইসলাম পন্থী কোন ব্যক্তি বা দলের সমালোচনা হয় না বললেই চলে। যদিও আগে সমালোচনা হতো এখন হচ্ছেনা। কারণ মানুষ মাহফিলে দ্বীনের কথা শুনতে যায়। কোন ইসলামিক ব্যক্তির সমালোচনা নয়।

এই সংবাদটি 1,118 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com