বৃহস্পতিবার, ০৭ ফেব্রু ২০১৯ ০৪:০২ ঘণ্টা

নিউইয়র্কে ফকির আলমগীরের সঙ্গীত সন্ধ্যা ১৭ ফেব্রুয়ারি

Share Button

নিউইয়র্কে ফকির আলমগীরের সঙ্গীত সন্ধ্যা ১৭ ফেব্রুয়ারি

হাকিকুল ইসলাম খোকন-নিউইয়র্ক : বাংলাদেশের জনপ্রিয় ও প্রখ্যাত গনসঙ্গীত শিল্পী ফকির আলমগীরের একক সঙ্গীত সন্ধ্যা আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি রবিবার সন্ধ্যা। সঙ্গীত জগতে শিল্পীর ৫০ বছর উপলক্ষ্যে ফুলকলি ফাউন্ডেশন ইউএসএ এই সংবর্ধনা ও একক সঙ্গীত সন্ধ্যার অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।

নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের জুইস সেন্টারে ঐদিন সন্ধ্যা ৭টায় আয়োজিত ফকির আলমগীরের সংবর্ধনা ও একক সঙ্গীত সন্ধ্যা সফল করতে ফুলকলি ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট ও সাংবাদিক বেলাল আহমেদ সকল প্রবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা এবং প্রবাসীদের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সম্মান ‘একুশে পদক’ ছাড়াও ‘ভাসানী পদক’ সহ একাধিক পদক পাওয়া ও বহু সম্মানে ভূষিত সঙ্গীতশিল্পী ফকির আলমগীর বর্তমানে নিউইয়র্কে অবস্থান করছেন। ‘ও সখিনা গেসস কিনা ভূইলা আমারে’, ‘সান্তাহার’, ‘নেলসন ম্যান্ডেলা’, ‘নাম তার ছিলো জন হেনরী’, ‘বাংলার কমরেড বন্ধু’, ‘মায়ের এক ধার’, ‘দাম দিয়ে কিনেছি বাংলা’ প্রভৃতি বিপুল সংখ্যক জনপ্রিয় গানের শিল্পী ফকির আলগীরের জন্ম ১৯৫০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি। তার একাধিক গানের অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে।

এই সংবাদটি 1,040 বার পড়া হয়েছে

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক।  ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী।  ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’  কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’  রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক। ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী। ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’ কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’ রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com