শুক্রবার, ০৮ ফেব্রু ২০১৯ ১২:০২ ঘণ্টা

ইন্দোনেশিয়ায় তালাবদ্ধ দোকান থেকে ১৯৩ বাংলাদেশি উদ্ধার

Share Button

ইন্দোনেশিয়ায় তালাবদ্ধ দোকান থেকে ১৯৩ বাংলাদেশি উদ্ধার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপের মেদান শহরের একটি তালাবদ্ধ দোকান থেকে ১৯৩ জন বাংলাদেশিকে উদ্ধার করেছে দেশটির পুলিশ। মালয়েশিয়ায় নিয়ে যাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে মানবপাচারকারীরা তাদেরকে সেখানে আটকে রেখেছিল।

বৃহস্পতিবার ইন্দোনেশিয়ার অভিবাসন কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে রয়টার্স। প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে- ‘আটক বাংলাদেশিরা কাজের জন্য মালয়েশিয়ায় যাওয়ার উদ্দেশে পর্যটন ভিসায় ইন্দোনেশিয়ায় এসেছিলেন।

এ বিষয়ে সুমাত্রার অভিবাসন বিভাগের প্রধান জানান, আটক বাংলাদেশিরা মানবপাচারকারীদের কবলে পড়েছেন। তাদের মালয়েশিয়ায় নিয়ে গিয়ে ভালো কাজের লোভ দেখানো হয়েছিল। ফাঁদে ফেলে তাদের ইন্দোনেশিয়ায় নিয়ে আসা হয়।

এদিকে সিঙ্গাপুর-ভিত্তিক গণমাধ্যম ‘চ্যানেল নিউজ এশিয়া’র খবরে বলা হয়েছে, ‘ মঙ্গলবার দোতালা ভবনের এই দোকানে অভিযান চালানোর সময় উদ্ধারদের ২০ জন পুলিশের কাছে অভুক্ত থাকার কথা জানান।

দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা মনে করছেন, এসব বাংলাদেশি পার্শ্ববর্তী মালয়েশিয়াতে কাজ পাওয়ার আশায় কয়েক মাস ধরে সেখানে অবস্থান করছিলেন।

মেদানের প্রধান অভিবাসন কর্মকর্তা ফেরি মোনাং সিহিতে বলেন, তারা নৌকায় চড়ে এখানে এসেছে বলে আমাদের ধারণা। তাদের কাছে কোনও কাগজপত্র নেই।

তিনি বলেন, আমরা এখনও তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে আমরা পরে সিদ্ধান্ত নেবো।

এই সংবাদটি 1,013 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com