শনিবার, ০৯ ফেব্রু ২০১৯ ১০:০২ ঘণ্টা

মাওলানা সাইয়্যেদ সালমান নদভী ও কিছু কথা

Share Button

মাওলানা সাইয়্যেদ সালমান নদভী ও কিছু কথা

 

তাফাজ্জুল হক : গত ২৫শে অক্টোবর দেওবন্দ ফারেগ আমরা ৬-৭জন ছাত্র নদওয়াতুল উলামা লখনৌ দেখতে যাই। নদওয়ার সুবিশাল লাইব্রেরী, ছাত্রাবাস, ক্লাসরুম ঘুরে ঘুরে দেখি। দিনের মধ্যভাগে আমরা মাওলানা সাইয়্যেদ সালমান নদভী (আতালাল্লাহ উমারাহু)র সঙ্গে সাক্ষাত করি। স্বাভাবিক কুশল বিনিময় হয় এবং সংক্ষেপে পরস্পরিক পরিচয় পর্বও হয়। কোথায় থেকে গিয়েছি জিজ্ঞেস করলে সবাই দেওবন্দের কথা বলে। দেওবন্দের কথা শুনেই আমাদের কাছে দেওবন্দের বিভিন্ন বদনাম বলতে শুরু করলেন। মনে হচ্ছে যেনো আমরা তার প্রতিপক্ষ তাই সুযোগে পেয়ে কিছুটা ধুয়ে দেয়া যায়!

জিজ্ঞেস করলেন “মাওলানা আরশাদ মাদানী কিয়া পরহাতে হ্যা”?
আমরা বললাম “তিরমিজি সানী পড়ান।
তিনি বললেন “ওহ কিয়া পড়হাতে হ্যা? পুরী দরস মেঁ তো সিরফ বাতই করতে হ্যায় “!
অথচ আমরা যারা আগে বা পরে মাওলানা আরশাদ মাদানী (দাঃবাঃ)র কাছে পড়েছি তারা সবাই জানি যে তিনি কতোটা গুরুত্বের সঙ্গে দরস করেন। কতো সুগোছালো আলোচনা করেন।
তারপর বলেন “মুহতামিম সাব কিয়া পরহাতে হ্যা “?
আমরা বললাম “তিরমিজি প্রথম খন্ডের শেষ অংশ পড়ান।কিতাবুন নিকাহ থেকে “।
তিনি বললেন “মুসলিম পর্সোনালো লা কে বারে বাত করতে হ্যাঁ “?
জবাবে সবাই হা বললো। তারপর বলেন ” কিয়া বাতাতে হ্যাঁ “?
আমরা বললাম তিন তালাকের ব্যাপারে আলোচনা করেন। তখন তিনি বললেন “পহলে তো নিকাহ কে বারে মেঁ গুফতুগো হুনা চাহিয়্যে না? আমরা বুঝে নেই তিনি আমাদের কথার বিপরিতে কিছু বলবেনই। তারপর তিনি দেওবন্দের ব্যাপারেও বলেন যে, ” উঁহা পড়হাই ন্যাহি হুতি, উঁহাকে পঞ্চানুয়ে ফিচদ তলাবা ইবারতই ন্যাহি পড় পাতে! লেকিন এহ তো ঠিক হ্যায় উহা কে আমলী নেজাম বহুত আচ্ছা হ্যায় “। আমরা দেওবন্দ ও দেওবন্দের উস্তাদদের ব্যাপারে এমন নির্জলা মিথ্যাচার শুনেও মুখে মুচকি হাসির রেখা টেনে চুপ থাকি। কারণ আমরা আগে থেকেই আত্মপ্রসাদে ভোগা এই অনুদার মানুষটার ব্যাপারে কিছুটা জানি যে,তিনি দেওবন্দ ও সাহারানপুর মাজাহিরুল উলুমের বিরোধিতা করেন। এখন তো দেখছি পুরোপুরিভাবে বিষোধগার উগড়ে দিচ্ছেন! কিন্তু তাতেও আমরা অবাক হইনি।

তারপর আরো অনেক কথা হয়। বিশ্বের রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হয়। বাংলাদেশ নিয়ে আলোচনা হয়। তখন জামাল খাশুকজী আলোচনার তুঙ্গে। তাকে নিয়ে সৌদি বাদশাহকে নিয়েও কিছু আলোচনা করেন। বাংলাদেশ সম্পর্কে বলেন “বাংলাদেশ মেঁ মাদরাসাউকি জাল বিছা হুয়া হ্যায়, লেকিন উঁহাকে উলামাউকি কোয়ী হাইসিয়াতই ন্যাহি। তখনও আমরা চুপ। তারপর ইতিহাস নিয়ে আলোচনার এক ফাঁকে বলতে লাগলেন “সাহাবা কে বারে মেঁ জরাহ হুনা চাহিয়্যে ” এই বাক্যটা শুনে সবাই মুখ চাওয়া চাওয়ী করলো। তিনি বলেই যাচ্ছেন। আমাদের কিছু বলার সুযোগই দিচ্ছেন না। তারপর উনার ক্লাসের সময় হয়ে যাওয়ায় আমাদেরকে ক্লাসে শরীক হওয়ার আবেদন করেন। আমরা বাধ্য হয়ে শরীক হই। ক্লাসে তিনি হুজ্জাতুল্লাহিল বালেগার দরস দেন। একটা প্রশ্নোত্তর পর্ব হয়। সেখানে তিনি মাওলানা মওদুদীর খুব প্রশংসা করেন। তিনি নাকি খুব ভালো কাজ করে গেছেন। সবাই তাকে মান্য করেছে। কেবলমাত্র হুসাইন আহমদ মাদানী (রঃ)এবং যাকারিয়া (রঃ) তার বিরোধিতা করেছেন। দেওবন্দ এবং সাহারানপুরের উলামারা বিরোধিতা করেছেন। মাওলানা মানযুর নোমানী মাওলানা আবুল হাসান আলী নদভী সবাই তার দ্বারা প্রভাবিত হয়ে তাকে মেনে নিয়েছেন। আল্লামা মানযুর নোমানী (রঃ)র ব্যাপারে সবাই জানেন যে তিনি মওদুদীর সঙ্গ ছেড়ে বইও লিখেছেন । যার বাংলা অনুবাদ “মাওলানা মওদুদীর সাথে আমার সাহচর্যের ইতিবৃত্ত। মুওদুদী জিহাদের ব্যাখ্যা বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে বেশি বিতর্কিত। এই বিষয়টাই সালমান সাহেবের বেশি পছন্দের! তিনি নাকি একটা শক্তিশালী দলীল কায়েম করে গেছেন।

এর কিছুদিন আগে অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে মাওলানা সালমান নদভী হযরতে মোয়াবিয়া (রাঃ) নিয়ে (তিনি নাকি হযরত আলীর খেলাফত মেনে নেননি। যুদ্ধের মাধ্যমে জুলম করেছেন।) বিরুপ মন্তব্য করায় সমস্ত হিন্দুস্তান পাকিস্তানের উলামায়ে কেরামের কাছে বিতর্কিত হয়েছেন। এমনকি নিজ প্রতিষ্ঠানেও কোনো স্থান তিনি পাননি। স্বয়ং রাবে হাসান নদভী পর্যন্ত তার কথাকে গ্রহন করেননি। তিনি বলেছেন তার এমন বক্তব্য থেকে আমরা “বারিউয যিম্মাহ ” । তিনি সরাসরি তার বক্তব্যকে পত্যাখান করেন। তারপর মাওলানা সালমান নদভী সাহেব রুজু করেছেন, অনুতপ্ত হয়েছেন। সেটা মিডিয়ায়ও এসেছে। (ভিডিও কমেন্টে)

কথা সেটাও না কথা হলো তিনি ভুল করেছেন। মাফ চেয়েছেন। তবে কেনো আমাদের কাছে বলেলেন “সাহাবাকে বারে জরাহ হোনা চাহিয়ে “? যে জায়গা আল্লাহ বলে দিয়েছেন তাদের প্রতি তিনি সন্তুষ্ট তারাও আল্লাহর প্রতি সন্তুষ্ট। রাসুলও বলেছেন “আসজাবি কান নুজুম বিআইয়ীহিম ইকতাদাইতুম ইহতাদাইতুম। এবং কুল্লুহুম উদুল” প্রশিদ্ধ কথাটা সবারই জানা আছে। তার মানে সাহাবার ব্যাপারে আগের সমালোচনা তার ইচ্ছাকৃত ছিলো। ভুল ছিলো না। সর্বমহল থেকে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার ভয়ে রুজুর ভান করেছেন। এগুলো বলে তিনি আমাদের কী মেসেজ দাতে চান। কোন আকিদা গ্রহনে উদ্বুদ্ধ করছেন একটুও ভাবনার কিছু আছে কি?

সেটা তো গেলো। সম্প্রতি সা’দ সাহেব ইস্যু নিয়ে গোটা দুনিয়া তোলপার হচ্ছে। বিশেষ করে বাংলাদেশ ভারতে ও পাকিস্তানে। সবাই একমত সা’দ সাহেব তার ভুলেই বহাল আছেন। উলামায়ে দেওবন্দ ফতুয়া দিয়েছে। সবাই মেনেও নিয়েছে। যদিও তিনি মানেননি। সমস্যা নাই। এখানে তিনি তার সাফাই গেয়ে আবার নতুন বিতর্কের সৃষ্টি করেছেন। এর দ্বারাও কী প্রমান হয় তিনি স্বচ্ছ মতাদর্শের লোক? আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের বিশুদ্ধ আকিদার সঠিক অনুসারী? তবে এটা তো মানতে হবে যে, ইতিহাসের ব্যাপারে তাঁর ভালো ধারণা আছে। উর্দু এবং আরবী ভাষায় তার বিশেষ দখল আছে। তার ব্যাপারে একবাক্যে বলতে গেলে ভারতে তার অবস্থান আমাদের দেশে ফ্রড সাহেবের মতো। কিছু মানুষ তাকে মান্য করে ঠিক, জমহুর উলামাই তার বিপরিত। কিন্তু কেবল বড় প্রতিষ্টানে পড়ালেই দূর থেকে মহান কিছু মনে করে তার সকল কথা,মতামত, চিন্তা বীনাবাক্যে গ্রহন করতে হবে? তার ব্যাপারে সতর্ক করার কোনো অধিকার আমাদের নেই? ” আবনায়ে দারুল উলুম”এর একজন হিসেবে মনে করি অবশ্যই আছে। সেই দাবী থেকেই কাল শিরোনামে কিছুটা সতর্কতামূলক পোস্ট দিয়েছিলাম।আজ পুরোটা বললাম। আমাদের দেশ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত। সেখানে নতুন কোনো হাঙ্গামা বাঁধুক এমনটা চাইনি বলেই সতর্ক করার চেষ্টা করেছি। আশা করি বিজ্ঞব্যাক্তিরা বিষয়টি নিয়ে ভাববেন। এই সবগুলো কথার দায় আমি নেবো। যদি দেওবন্দ এবং নদওয়ার উস্তাদ ছাত্রের সামনে স্বয়ং সালমান নদভী সাহেবের সামনে বলতে হয় তাও বলবো। সুতরাং সবার প্রতি আকুল আবেদন কারো ব্যাপরে দূর থেকে কিছু না জেনে কোনো সিদ্ধান্ত নেবেন না। আমাদের সতর্কতা কাম্য। আল্লাহু আ’লামু বিস সাওয়াব।
(Md Tafazzul Haque এই থেকে সংগৃহীত)

এই সংবাদটি 1,154 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com